মঙ্গলবার, আগস্ট ২০, ২০১৯

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরার সর্বাধুনিক অনলাইন পত্রিকা

দুই যুগ ধরে রমজানে বিনা পয়সায় মেসওয়াক বিলি করেন তিনি

মাহাতাব উদ্দিন, বয়স ৫৪। পেশায় ওয়াচম্যান (প্রহরী)। দৈনিক মজুরিতে চাকরি করেন। নিজের সংসার চালাতে যিনি হিমশিম খান, তিনিই আবার রমজান মাসে নিজেকে রোজাদারদের সেবায় নিয়োজিত করেন।

জানা গেছে, রমজান মাস এলেই দরিদ্র মাহাতাব উদ্দিন চাকরি থেকে ছুটি নেন। দেশের বিভিন্ন স্থানে ঘুরে ঘুরে বিনামূল্যে মেসওয়াক বিলি করেন। গত দুই যুগ ধরে এভাবেই রোজাদারদের সেবা দিয়ে আসছেন তিনি।

নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলার চকমহাপুর গ্রামের বাসিন্দা মাহাতাব নর্থ বেঙ্গল সুগার মিলের কৃষ্ণা খামারে চাকরি করেন।
বৃহস্পতিবার বাগাতিপাড়ার তমালতলা বাজারে মেসওয়াক বিতরণের সময় মাহাতাবের সঙ্গে কথা হয় সংবাদকর্মীদের।

মাহাতাব জানান, সেই ছোটবেলা থেকে রমজান মাসে বাড়ির পাশের বাজারে গিয়ে বসে থাকতেন। বিকাল হলেই সবাই তাকে মেসওয়াক (দাঁতন) নিয়ে আসতে হুকুম করতেন। সেই থেকে মানবসেবার অদ্ভুত এক নেশায় পেয়ে বসে তাকে।

তিনি মনে করেন, কেউ হুকুম করার আগেই যদি তার মেসওয়াকটা হাতের কাছে এনে দেয়া যেত, তা হলে লোকটি বোধ হয় আরও খুশি হবে। সেই ভাবনা থেকেই শুরু।

এর পর দুই যুগ ধরে রমজান মাসে মেসওয়াকের ব্যাগ নিয়ে ঘুরে বেড়ান নাটোর, রাজশাহী, পাবনা, সিরাজগঞ্জ, ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে। হাট-বাজার ও মসজিদের সামনে বিনামূল্যে মেসওয়াক বিতরণ করেন তিনি।

মাহাতাব বলেন, সেহরি খাওয়ার পর থেকে সকালবেলা পর্যন্ত মেসওয়াক তৈরি করি। দুপুরের পরই মেসওয়াকের ব্যাগ নিয়ে বেরিয়ে পড়ি। এ কাজে আমার স্ত্রী ও সন্তানরা সহযোগিতা করে।

তিনি আরও জানান, তিনি নিমগাছের ডাল দিয়ে মেসওয়াক বানান। এ কাজের জন্য গাছের মালিকরা তাকে দাওয়াত করে ডেকে নিয়ে যান। তাছাড়া বিশিষ্ট ব্যক্তিদের জন্য ঔষধি গাছ আপাংয়ের ডালের বিশেষ মেসওয়াক তৈরি করেন তিনি।

মাহাতাব জানালেন, সারা বছর ছুটি না কাটিয়ে সেগুলো জমা করে রাখেন। রমজান মাস এলেই পুরো মাসের ছুটি নিয়ে নেমে পড়েন এ কাজে। শুরুর দিকে কর্তৃপক্ষ ছুটি দিতে না চাইলেও তার এ কাজের নেশা দেখে এখন আর বাধ সাধে না।

সংসার জীবনে মাহাতাব তিন সন্তানের জনক। ১৪ বছর আগে একমাত্র মেয়ে মুক্তার বিয়ে দিয়েছেন। বড় ছেলে মধু একাদশ শ্রেণি পাস করে আনসার বাহিনীতে চাকরি করছেন। আর ছোট ছেলে নবম শ্রেণিতে পড়ে।

স্থানীয় কলেজশিক্ষক গোলাম তোফাজ্জল কবির মিলন বলেন, দীর্ঘদিন থেকে মাহাতাব উদ্দিনকে এভাবে মেসওয়াক বিলি করতে দেখছি। কিন্তু কোনোদিন কারো কাছ থেকে একটি টাকাও নিতে দেখিনি। নেহাতই মনের আনন্দ পেতে চাকরি থেকে ছুটি নিয়ে জেলায় জেলায় ঘুরে তার এ মানবসেবা সত্যিই আমাদের অবাক করে।

একই রকম সংবাদ সমূহ

ডেঙ্গুজ্বর দুর্নীতি ও ধর্ম ব্যবসার গজব

নতুনধারা বাংলাদেশ এনডিবির চেয়ারম্যান মোমিন মেহেদী বলেছেন, ডেঙ্গুজ্বর দুর্নীতি ওবিস্তারিত পড়ুন

হস্তান্তরের ৩ মাসেই ভেঙে পড়লো ব্রিজ

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার বড়ভিটা ইউনিয়নের পূর্ব ধনীরাম গ্রামের বাঘখাওয়ার চরেবিস্তারিত পড়ুন

দেবহাটায় নিজের গড়া রূপসী ম্যানগ্রোভ পর্যটন কেন্দ্র পরিদর্শনে উপসচিব তরিকুল ইসলাম

অক্লান্ত পরিশ্রম ও প্রচেষ্টায় নিজের হাতে গড়া সাতক্ষীরার ঐতিহ্যবাহী রূপসীবিস্তারিত পড়ুন

  • ফুটফুটে পরশকে কেড়ে নিল ডেঙ্গু
  • কোরবানির চামড়া পাচার রোধে বিজিবির সতর্কতা
  • মাদারীপুরে গরু জবাইকালে ছুরি পেটে ঢুকে শিশুর মৃত্যু
  • ঈদের দিন হতেপারে বৃষ্টি, পূর্বাভাস আবহাওয়া বিভাগের
  • নড়াইলে ভিজিএফের চাল আত্মসাতের ঘটনায় প্যানেল চেয়ারম্যান ও সচিবের কারাদন্ড
  • নড়াইলের শিল্পী সুলতানের ৯৫তম জন্মবার্ষিকী পালিত
  • ডেঙ্গু নিরসনে বিভিন্ন হাসপাতালে কাজ করছেন সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. রুহুল হক এমপি
  • নড়াইলে বাঁশবাগানে ফেলে রাখা সেই মায়ের শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ
  • দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী
  • ‘মা-বাবাকে অবহেলা করো না’ : শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তথ্যমন্ত্রী
  • নড়াইলে প্রাসাদ বিলীন হলেও জমিদার কালীশঙ্কর রায়ের নাম আজও স্মরণীয়
  • সুষমা স্বরাজের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক