মঙ্গলবার, আগস্ট ২০, ২০১৯

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরার সর্বাধুনিক অনলাইন পত্রিকা

১২৪৭ কোটি টাকা পেলেই ২৭৬২ যোগ্য প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির ঘোষণা

দুই হাজার সাতশ বাষট্টিটি প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির জন্য যোগ্য বিবেচিত হয়েছে। আর এগুলো এমপিওভু্ক্ত করতে এক হাজার দুইশ সাতচল্লিশ কোটি টাকা দরকার। এই টাকা চেয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ে চিঠি লিখেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। টাকা পেলেই জুনের মধ্যে ঘোষণা হবে।

শিক্ষা ও অর্থ মন্ত্রণালয়ের একাধিক সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীরা প্রতি মাসে বেতন-ভাতা বাবদ সরকারি অংশ (মূল বেতন ও কিছু ভাতা) পেয়ে থাকেন। এ জন্য বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো সব সময় এমপিওভুক্তির জন্য সরকারের কাছে মুখাপেক্ষী হয়। বর্তমানে সারাদেশে এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আছে প্রায় ২৮ হাজার। এগুলোতে শিক্ষক-কর্মচারী আছেন প্রায় ৫ লাখ। এর বাইরে স্বীকৃতি পাওয়া ননএমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আছে সাড়ে ৫ হাজারের মতো। এগুলোতে শিক্ষক-কর্মচারী ৭৫ থেকে ৮০ হাজার। স্বীকৃতি পায়নি এমন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানও আছে আরও কয়েক হাজার। সব মিলিয়ে সাড়ে ৯ হাজার বেসরকারি মাধ্যমিক স্কুল, কলেজ, কারিগরি প্রতিষ্ঠান ও মাদরাসা এমপিওপ্রত্যাশী।

সর্বশেষ ২০১০ খ্রিষ্টাব্দে ১ হাজার ৬২৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করা হয়েছিল। এরপর থেকে এমপিওভুক্তির দাবিতে ননএমপিওভুক্ত মাধ্যমিক বিদ্যালয়, কলেজ, মাদরাসা ও কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীরা আন্দোলন করে আসছেন। আন্দোলনের মুখে গত বছরের জুলাইয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয় এমপিওভুক্তির জন্য বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জনবলকাঠামো ও এমপিওভুক্তির জন্য আবেদন নেওয়া হয়।

এমপিওভুক্তির জন্য অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো শিক্ষা মন্তণালয়ের চিঠিতে বলা হয়েছে, নীতিমালা অনুযায়ী নতুন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির জন্য চারটি মানদণ্ডের ভিত্তিতে আবেদন নেওয়া হয়। এই মানদণ্ডগুলো হলো প্রতিষ্ঠানের একাডেমিক স্বীকৃতি, শিক্ষার্থীর সংখ্যা, পরীক্ষার্থীর সংখ্যা এবং পরীক্ষায় পাসের হার। প্রতিটি মানদণ্ডের জন্য ২৫ নম্বর রাখা হয়। এতে মোট ৯ হাজার ৬১৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আবেদন করে।

যাচাইয়ের এমপিও নীতিমালা সব শর্ত পূরণ করে যোগ্য প্রতিষ্ঠান হয়েছে ২ হাজার ৭৬২। এর মধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের অধীনে স্কুল ও কলেজ ১ হাজার ৬২৯টি। কারিগরি ও মাদরাসা বিভাগের অধীন মাদরাসা ৫৫১টি এবং কারিগরি প্রতিষ্ঠান ৫৮২টি। এগুলোর জন্য লাগবে মোট ১ হাজার ২৪৭ কোটি টাকা।
এর মধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের অধীন প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য লাগবে প্রায় ৭২৮ কোটি টাকা। বাকি টাকা লাগবে কারিগরি ও মাদরাসা বিভাগের অধীন প্রতিষ্ঠানের জন্য।

একই রকম সংবাদ সমূহ

ডেঙ্গুজ্বর দুর্নীতি ও ধর্ম ব্যবসার গজব

নতুনধারা বাংলাদেশ এনডিবির চেয়ারম্যান মোমিন মেহেদী বলেছেন, ডেঙ্গুজ্বর দুর্নীতি ওবিস্তারিত পড়ুন

হস্তান্তরের ৩ মাসেই ভেঙে পড়লো ব্রিজ

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার বড়ভিটা ইউনিয়নের পূর্ব ধনীরাম গ্রামের বাঘখাওয়ার চরেবিস্তারিত পড়ুন

দেবহাটায় নিজের গড়া রূপসী ম্যানগ্রোভ পর্যটন কেন্দ্র পরিদর্শনে উপসচিব তরিকুল ইসলাম

অক্লান্ত পরিশ্রম ও প্রচেষ্টায় নিজের হাতে গড়া সাতক্ষীরার ঐতিহ্যবাহী রূপসীবিস্তারিত পড়ুন

  • ফুটফুটে পরশকে কেড়ে নিল ডেঙ্গু
  • কোরবানির চামড়া পাচার রোধে বিজিবির সতর্কতা
  • মাদারীপুরে গরু জবাইকালে ছুরি পেটে ঢুকে শিশুর মৃত্যু
  • ঈদের দিন হতেপারে বৃষ্টি, পূর্বাভাস আবহাওয়া বিভাগের
  • নড়াইলে ভিজিএফের চাল আত্মসাতের ঘটনায় প্যানেল চেয়ারম্যান ও সচিবের কারাদন্ড
  • নড়াইলের শিল্পী সুলতানের ৯৫তম জন্মবার্ষিকী পালিত
  • ডেঙ্গু নিরসনে বিভিন্ন হাসপাতালে কাজ করছেন সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. রুহুল হক এমপি
  • নড়াইলে বাঁশবাগানে ফেলে রাখা সেই মায়ের শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ
  • দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী
  • ‘মা-বাবাকে অবহেলা করো না’ : শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তথ্যমন্ত্রী
  • নড়াইলে প্রাসাদ বিলীন হলেও জমিদার কালীশঙ্কর রায়ের নাম আজও স্মরণীয়
  • সুষমা স্বরাজের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক