সোমবার, ডিসেম্বর ৯, ২০১৯

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরার সর্বাধুনিক অনলাইন পত্রিকা

আধুনিক যুগেও ১০ বছরের দাসত্ব!

আধুনিক যুগেও ১০ বছরের দাসত্ব!

প্রায় দেড়শ’ বছর আগে যুক্তরাষ্ট্রে বাতিল করা হয়েছে দাসপ্রথা। কিন্তু, কৃষ্ণাঙ্গদের প্রতি অনেক শ্বেতাঙ্গের দৃষ্টিভঙ্গি বদলায়নি এতদিনেও। সেখানে এখনও দেখা যাচ্ছে বর্বরতম দাসপ্রথার কালো ছায়া। এই আধুনিক যুগে এসেও এক বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী কৃষ্ণাঙ্গকে ১০ বছর দাস বানিয়ে রেখেছেন এক শ্বেতাঙ্গ রেস্তোরাঁ ম্যানেজার।

সম্প্রতি দক্ষিণ ক্যারোলিনার কনওয়ে শহরে ঘটেছে এমন অমানবিক ঘটনা। খবর দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট, এনবিসি ও সিএনএন’র।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়, ১০ বছর ধরে শ্বেতাঙ্গ ববি পল এডোয়ার্ডসের ‘জে অ্যান্ড জে ক্যাফেটেরিয়া’য় বিনা বেতনে সপ্তাহে ১০০ ঘণ্টা করে কাজ করেছেন কৃষ্ণাঙ্গ জন ক্রিস্টোফার স্মিথ।

বিভিন্ন সময় তাকে বেল্ট, রান্নার পাত্র বা হাত দিয়ে মারধরের অভিযোগ স্বীকার করেছেন এডোয়ার্ডস।

৩৯ বছর বয়সী স্মিথ বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী, তার আইকিউ ৭০-এর চেয়েও কম। দক্ষিণ ক্যারোলিনার জেলা আদালতে দায়ের করা এক অভিযোগে বলা হয়, একবার এডোয়ার্ডস লোহার চিমটা ফুটন্ত তেলে ডুবিয়ে স্মিথের ঘাড়ে ছ্যাঁকা দেন। এছাড়া তিনি প্রায়ই বর্ণবাদী ও বাজে ভাষায় গালাগালি করতেন স্মিথকে।

চলতি বছরের নভেম্বরেই জোর করে দাস বানিয়ে রাখার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় এডোয়ার্ডসকে ১০ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

সেই সঙ্গে, ক্ষতিপূরণ হিসেবে স্মিথকে ২ লাখ ৭২ হাজার ৯শ’ ৫২ মার্কিন ডলার দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয় তাকে।

রায়ের পর মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআই’র স্পেশাল এজেন্ট জোডি নরিস বলেন, এক বুদ্ধিপ্রতিবন্ধীকে এভাবে দাস বানিয়ে দিনের পর দিন অত্যাচারের ঘটনা অত্যন্ত জঘন্য।

নাগরিক অধিকার বিভাগের অ্যাসিস্ট্যান্ট অ্যাটর্নি জেনারেল এরিক ড্রেইবান্ড বলেন, এই সময়ে এসেও এদেশে একজনকে জোর করে দাস বানিয়ে রাখা হচ্ছে, তা মেনে নেওয়ার মতো না। দাসপ্রথা বিলুপ্তির দেড় শতাব্দী পর এমন ঘটনা অচিন্তনীয়।

স্মিথ ১৯৯৬ সালে প্রথম জে অ্যান্ড জে ক্যাফেতে ডিশওয়াশার হিসেবে কাজ শুরু করেন। তখন তার বয়স ছিল মাত্র ১২। প্রথমদিকে তাকে বেতন দেওয়া হতো। তখন ক্যাফেটির মালিক ছিলেন এডোয়ার্ডসের ভাই। এডোয়ার্ডস ক্যাফের ম্যানেজার হওয়ার পর থেকেই স্মিথের ওপর নির্যাতন শুরু হয়।

স্মিথ বলেন, আমার সঙ্গে এডোয়ার্ডসের স্ত্রী, মা, বাবা, ভাই-বোন সবার সঙ্গেই ভালো সম্পর্ক ছিল। কিন্তু, তার সঙ্গে কিছুতেই বনিবনা হতো না।

এডোয়ার্ডস ম্যানেজার হওয়ার পর থেকেই ধীরে ধীরে স্মিথের ওপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন শুরু হয়। স্মিথকে রেস্তোরাঁর পেছনে একটি ছোট্ট ঘরে বসবাস করতে বাধ্য করেন তিনি।

একই রকম সংবাদ সমূহ

এবারের মিস ইউনিভার্স জোজিবিনি তুনজি

২০১৯ সালের মিস ইউনিভার্সের খেতাব জিতে নিলেন মিস দক্ষিণ আফ্রিকাবিস্তারিত পড়ুন

যে গ্রামে আত্মহত্যা করতে যায় শত শত পাখি!

ভারতে এমন একটি গ্রাম আছে যেখানে অদ্ভুত ঘটনা ঘটে। সেইবিস্তারিত পড়ুন

ধুমপান না করলে কর্মীদের অতিরিক্ত ৬ দিনের ছুটি দিচ্ছে যে সংস্থা!

ধুমপান না করলে কর্মীদের অতিরিক্ত ৬ দিনের ছুটি দিচ্ছে এইবিস্তারিত পড়ুন

  • ভুলে হাত মেলানো না হওয়ায় সেই ছোট্ট মেয়েটির বাড়িতে আবুধাবির রাজা!
  • দৌড়ে পার্লামেন্টে ঢুকলেন মন্ত্রী, ছবি ভাইরাল
  • মালয়েশিয়ায় ফাঁসি থেকে রক্ষা পেলো দুই বাংলাদেশি
  • ধর্ষণকারীদের জনসমক্ষে পিটিয়ে মেরে ফেলা উচিত : জয়া বচ্চন
  • একটি ছবিই ৪১ বছর পর মায়ের সঙ্গে দেখা করাল ছেলের
  • মাত্র ২০ মিনিটেই ধর্ষককে চিহ্নিত করল পুলিশ কুকুর!
  • বিজ্ঞাপন দেখে তেল কিনে প্রতারিত।। বিজ্ঞাপনের মডেল গোবিন্দ-জ্যাকিশ্রফকে জরিমানা
  • অদ্ভূত ফটোশ্যুট নবদম্পতির, ছবি ভাইরাল!
  • যেসব দেশে নেই কোনও গ্রাম!
  • বিশ্বের সবচেয়ে দামি মুদ্রা যেগুলো
  • জীবন নিয়ে কেউই পৌঁছাতে পারবে না পৃথিবীর এই স্থানে!
  • হাত-পায়ে ৩২ আঙুল, গ্রামবাসীর চোখে ‘ডাইনি’!!