বৃহস্পতিবার, মে ১৯, ২০২২

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরা, দেশ ও বিশ্বের সকল সংবাদ, সবার আগে

সরকারের পদত্যাগ ছাড়া বিএনপি নির্বাচনে যাবে না

ওবায়দুল কাদের বিএনপিরও বোধ হয় উপদেষ্টা : রিজভী

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের কড়া সমালোচনা করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, তিনি শুধু আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নন, বিএনপিরও বোধ হয় উপদেষ্টা।

সোমবার (৯ মে) রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

রিজভী বলেন, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন আগামী নির্বাচন ফেয়ার ও সুষ্ঠু হবে বলে। বিএনপিসহ সব দলকে নিয়েই ভোট করতে চাই। নিশ্চয়তা দিচ্ছি নির্বাচন ফেয়ার হবে। ইভিএমে ভোট হবে, নির্বাচন কমিশন নিরপেক্ষ থাকবে। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ না নিলে বিএনপি অস্তিত্ব সংকটে পড়বে, তাদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতেই নির্বাচনে আসতে হবে। আমরাও একটি শক্তিশালী বিরোধী দলকে সংসদে স্বাগত জানাতে চাই। চাইবো বিরোধী দলের স্ট্যান্ড থাকুক।

বিএনপির এই মুখপাত্র বলেন, ওবায়দুল কাদের সর্বদা বিএনপিকে নিয়ে যে চিন্তায় থাকেন তাতে মনে হয় আরও অসুস্থ হয়ে পড়বেন। তিনি ফেয়ার নির্বাচন বলতে ‘ফেয়ার অ্যান্ড লাভলী’র কথা বুঝিয়েছেন কি না তা বোধগম্য নয়। ফেয়ার নির্বাচনের একটি আওয়ামী ভার্সন রয়েছে যা ১৪ বছরে দেশের মানুষ দিব্যচোখে অবলোকন করেছে।

‘তার ফেয়ার নির্বাচনের সংজ্ঞা অনুযায়ী সুষ্ঠু ভোট হলো-সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে জনগণকে কাবু করতে সকল শক্তি নিয়োগের মাধ্যমে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির বিনা ভোটের নির্বাচন ও ২০১৮ সালের নিশিরাতের নির্বাচন। আগামী নির্বাচন ইভিএমে হবে। নির্বাচন কমিশন নিরপেক্ষ থাকার যে কথা আপনারা বলেছেন তাতেই আপনার আগাম বার্তা জনগণ স্পষ্ট বুঝতে পেরেছে আগামী নির্বাচন হবে মহাজালিয়াতির ও দস্যুবৃত্তির।’

তিনি বলেন, ক্ষমতাসীন গোষ্ঠীর পাতা ঝরতে শুরু করেছে, এরা এখন ঝরা পাতা। তাই লুটপাট আর রক্তপাতের ভিত্তির ওপর দাঁড়িয়ে কোনো রকমে ক্ষমতা ধরে রাখতে চায়।

‘দেশব্যাপী সয়াবিন তেল নিয়ে যে তেলেসমাতি চলছে তাতেই বোঝা যায়-সরকার লুণ্ঠনের কর্মসূচি ছাড়া তাদের অন্যকোনো কর্মসূচি নেই। বলা হচ্ছে তেলের দাম বাড়িয়ে সরকার মুনাফাখোরদের সুযোগ করে দিচ্ছে। একেবারেই ভুল তথ্য। সরকার ও মুনাফাখোর একাকার। আলাদা ভাবার কোনো অবকাশ নেই।’

তিনি বলেন, তেল আমদানিকারক বড় পাঁচটি কোম্পানি সবাই সরকারের সঙ্গে যুক্ত। সরকারি মুনাফাখোর, মুনাফাখোরই সরকার। এ কারণেই সরকারের চরিত্র ও বৈশিষ্ট্য মাফিয়ার মতো। মাফিয়ারা নিজের শক্তিতে বলিয়ান। এরা কাউকে সুবিধা দেয় না, নিজেরা সুবিধাভোগীর একটি বিশেষ চরিত্র হয়ে দাঁড়ায়। বর্তমান আওয়ামী কর্তৃত্ববাদী সরকারের সামগ্রিক চরিত্র এটি।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন- বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান নিতাই রায় চৌধুরী যুগ্ম মহাসচিব খোকন ও স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক মীর সরাফত আলী সপু প্রমুখ।

সরকারের পদত্যাগ ছাড়া বিএনপি নির্বাচনে যাবে না: ফখরুল

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকারের পদত্যাগ ছাড়া বিএনপির নির্বাচনে যাওয়ার প্রশ্নই ওঠে না বলে মন্তব্য করেছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, ‘পরবর্তী নির্বাচন সম্পর্কে আমাদের কথা তো পরিষ্কার, আওয়ামী লীগ সরকার পদত্যাগ না করলে এবং নিরপেক্ষ সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর না করলে নির্বাচনের কোনো প্রশ্নই উঠতে পারে না। এই নিয়ে আমরা কোনো কথাই বলতে চাই না। শেখ হাসিনা ক্ষমতায় থাকলে আমরা নির্বাচনে তো যাবোই না।’

রোববার (৮ মে) এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি মহাসচিব এই মন্তব্য করেন। শনিবার আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় নির্বাচনের বিষয়ে সরকারি দলের সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে বিএনপির অবস্থান তুলে ধরতে এ সংবাদ সম্মেলন ডাকা হয়।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘(নির্বাচনে যাওয়ার) প্রথম শর্ত হচ্ছে যে তাদেরকে (আওয়ামী লীগ) রিজাইন করতে হবে এবং একটি নিরপেক্ষ-নির্দলীয় সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে হবে। তারা নির্বাচন পরিচালনার জন্য একটি নির্বাচন কমিশন গঠন করবে জনগণের মতামতের ভিত্তিতে। সেই নির্বাচন কমিশন যে নির্বাচন আয়োজন করবে তার মাধ্যমে জনগণের প্রতিনিধিত্বমূলক একটি সরকার ও পার্লামেন্ট গঠিত হবে।’

শনিবার আওয়ামী লীগের সভায় সরকার দলীয় নেতারা বলেছেন- বিএনপি না আসলে নির্বাচন গ্রহণযোগ্য হবে না। তারা বলেছেন, বিএনপিকে নিয়ে আমরা নির্বাচন করবো। সেই লক্ষ্যে নির্বাচন নিয়ে কোনো আলোচনার দ্বার উন্মোচিত হতে যাচ্ছে কি না জানতে চাইলে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমি মনে করি, কোনো কথাই হবে না যতক্ষণ না আওয়ামী লীগ সরকার পদত্যাগ করে। এছাড়া কোনো প্রশ্ন ওঠে না।’

দলের সভা শেষে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন যে বিরোধী দলকে সভা-সমাবেশ করার সুযোগ দেওয়া হবে। এই বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘তারা একটা মোনাফেক দল এবং তারা এই কথাটা বলতেই থাকে। তারা সুন্দর সুন্দর কথা বলে- দেখলে মনে হয় যে এদের মতো ভালো মানুষ আর নাই। আর ভেতরে ভেতরে যা করার তা করে যাবে।’

তিনি বলেন, ‘তারা (আওয়ামী লীগ) ভদ্রলোকের মতো কথা বলে, গণতন্ত্রের কথা বলে। অথচ সভা-সমাবেশ তো দূরের কথা, একটা মিলাদ করতে দেয় না, ঈদ পুনর্মিলনীতে আক্রমণ করে, দোয়া মাহফিলের মধ্যে আক্রমণ করে। এদের কাছ থেকে কী আশা করতে পারেন। সব তো মোনাফেকি।’

দাউদকান্দিতে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেনের বাসায় হামলার ঘটনার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এই অনির্বাচিত সরকার তাদের ক্ষমতাকে কুক্ষিগত করবার জন্যে এখন থেকেই সন্ত্রাসের আশ্রয় নিয়েছে। গতকাল আমাদের স্থায়ী কমিটির সিনিয়র সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন ঈদ পরবর্তী শুভেচ্ছা বিনিময় করতে দাউকান্দিতে তার বাসভবনে গিয়েছিলেন। সকাল সাড়ে ৯টার দিকে নেতা-কর্মীদের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন তিনি। এরপর তিতাসে তার একটি নিমন্ত্রণ ছিল, সেই নিমন্ত্রণ রক্ষার জন্য যখন বের হন তখন অতর্কিতে আওয়ামী সন্ত্রাসীরা লাঠি-সোঠা, ইট-পাটকেল ছুড়ে হামলা করে। ড. মোশাররফের ওপরে ফিজিক্যালি আক্রমণ বলেই আমরা এটাকে মনে করি। আক্রমণটা এত তীব্র ছিল যে, কর্মীরা ড. মোশাররফ হোসেনকে তাকে বাসায় তুলে দেন এবং গেট বন্ধ করে দেন। তারপরও আওয়ামী সন্ত্রাসীরা বৃষ্টির মতো ইট ছুড়তে থাকে, পাথর ছুড়তে থাকে…।’

‘যেহেতু তিনি আমাদের স্থায়ী কমিটির সিনিয়র নেতা, তার ওপরে হামলাকে আমরা মনে করি স্থায়ী কমিটির ওপর হামলা, আমাদের দলের ওপর হামলা। আমরা এটাকে ছোট করে দেখতে পারি না। আওয়ামী লীগের এই হামলায় প্রমাণ হয়েছে যে, তাদের চরিত্রের এতটুকু পরিবর্তন হয়নি। বরং তারা নতুন উদ্যোমে বিএনপি তথা ভিন্নমতকে, বিরোধী দলকে নির্মূল করতে, দমন করতে তারা চরম সন্ত্রাসের আশ্রয় নিয়েছে।’

এ সময় ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেনের ওপরে হামলাকারীদের গ্রেফতারের দাবি জানান বিএনপি মহাসচিব।

তিনি আরও বলেন, ‘গণমাধ্যমকে তারা (আওয়ামী লীগ) নিয়ন্ত্রণ করে রেখেছে। আপনারা দেখেছেন যে, সংবাদ মাধ্যমের যে সূচক করা হয় আন্তর্জাতিকভাবে, ফ্রিডম অব প্রেস কতটুকু আছে- সেখানে বাংলাদেশ ১০ ধাপ নেমে গেছে। এর থেকে প্রমাণিত হয় বাংলাদেশ ক্রমান্বয়ে একটা স্বৈরাচারী দেশে পরিণত হয়ে গেছে।’

সয়াবিন তেলের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে কোনো কর্মসূচি দল থেকে দেওয়া হবে কি না জানতে চাই বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘মুভমেন্ট দেখেছেন। এর আগে আমরা প্রায় এক মাস ধরে দ্রব্যমূল্যের প্রতিবাদে আন্দোলন করেছি। অবশ্যই আমরা সিদ্ধান্ত নিয়ে করণীয় রাজনৈতিক কর্মসূচি দেবো।’

একই রকম সংবাদ সমূহ

দেশ বাঁচাতে সবাইকে আন্দোলনে যোগ দিতে বললো বিএনপি

দেশ বাঁচাতে সবাইকে আন্দোলনে যোগ দিতে বললো বিএনপি। দেশ বাঁচাতে সব শ্রেণিবিস্তারিত পড়ুন

দ্রব্যমূল্যের দাম বেড়েছে আন্তর্জাতিক পরিস্থিতির কারণে : প্রধানমন্ত্রী

করোনা মহামারি ও রুশ-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণেই দেশে নিত্যপণ্যের দাম চড়া উল্লেখ করেবিস্তারিত পড়ুন

শেখ হাসিনা না থাকলে নিজ অর্থায়নে পদ্মা সেতু হতো না, জুনেই চালু : ওবায়দুল কাদের

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, গণতন্ত্রকে সুসংগঠিত করতেবিস্তারিত পড়ুন

  • সরকার ব্যস্ত আখের গোছাতে, কৃষকেরা সর্বস্বান্ত : মির্জা ফখরুল
  • শেখ হাসিনা বাংলাদেশের জন্য আশির্বাদ : পানি সম্পদ উপমন্ত্রী
  • কুমিল্লা সিটি নির্বাচনে মনোনয়নপত্র জমা দিলেন বিদায়ী মেয়র সাক্কু
  • নেতাকর্মীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ বিএনপির
  • প্রধানমন্ত্রী সময় দিলে জুনের শেষেই পদ্মা সেতু উদ্বোধন : ওবায়দুল কাদের
  • আওয়ামী লীগের অধীনে কোনো নির্বাচনে যাবে না বিএনপি
  • ফখরুলের মতো ব্যর্থ নেতাদের বঙ্গোপসাগরে ঝাঁপ দেয়া দরকার : ওবায়দুল কাদের
  • কলারোয়ায় বিএনপির অসুস্থ সভাপতির পাশে সাবেক এমপিপত্নি এডভোকেট বকুল
  • আগামী জাতীয় নির্বাচনে সারা দেশে ইভিএমে ভোট হবে : ওবায়দুল কাদের
  • পাশ্ববর্তী দেশসহ অনেক দেশে সয়াবিন তেলের দাম দ্বিগুণেরও বেশি বেড়েছে : ওবায়দুল কাদের
  • জামাতের সঙ্গে বিএনপির আদর্শিক সম্পর্ক নেই, ২০ দলের অংশীদার ছিল-আছে
  • error: Content is protected !!