রবিবার, মার্চ ২৯, ২০২০

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরার সর্বাধুনিক অনলাইন পত্রিকা

করোনা ভাইরাস : সাতক্ষীরার মাঠপর্যায়ের স্বাস্থ্যকর্মীরাই স্বাস্থ্যঝুঁকিতে

দোকান থেকে এক ব্যক্তিকে মাথা থেকে পা পর্যন্ত একঢালা প্লাস্টিকের রেইনকোর্ট কিনতে দেখা গেলো। এখন তো বৃষ্টির সময় নয়, তাহলে কেন রেইনকোর্ট কিনলেন?- এমন প্রশ্নের জবাবে বললেন তিনি সাতক্ষীরার মাঠ পর্যায়ের একজন স্বাস্থ্যকর্মী। নিজের ঝুঁকি এড়াতে এটি কিনেছেন।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রমে সাতক্ষীরার মাঠ পর্যায়ের স্বাস্থ্যকর্মীরাই স্বাস্থ্যঝুঁকিতে রয়েছেন। হাসপাতালের ডাক্তার-নার্সরাও এই ঝুঁকি থেকে বাদ যাচ্ছেন না।

ইতোমধ্যে দেশব্যাপী ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। এসময় সরকারি-বেসরকারি সকল প্রতিষ্ঠানে কর্মরতদের নিজ কর্মস্থলের বাসায় অবস্থানের নির্দেশনা দিয়েছে সরকার।
তবে বাসা-বাড়িতে থাকতে পারছেন না মাঠ পর্যায়ের স্বাস্থ্য কর্মীরা। এতে উদ্বেগের পাশাপাশি ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন হাসপাতালের ডাক্তার-নার্সদের বাইরে এমন সাধারণ স্বাস্থ্যকর্মীদের কেউ কেউ। আর ডাক্তার-নার্সরা নিজেদের ‘করোনা’ থেকে প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা নিয়েও বেশ চিন্তিত।

এরইমাঝে নাগরিকদের নিজ বাড়িতে থাকার সরকারি নির্দেশনার পর স্বাস্থ্যকেন্দ্র ও হাসপাতালে আউটডোর রোগীদের চাপ অনেকটা হ্রাস পেয়েছে। তবে হ্রাস পায়নি যারা স্বাস্থ্য সেবা দিয়ে আসছেন তাদের আতঙ্ক-উদ্বেগ-ঝুঁকির বিষয়টি।

সাতক্ষীরা জেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলের মাঠ পর্যায়ের সাধারণ স্বাস্থ্যকর্মীদের সাথে কথা বলে এমন চিত্র ফুটে উঠেছে।

নাম-পদবী প্রকাশ না করার শর্তে অনেকে বলেন, ‘করোনা নিয়ে হাসপাতালের ডাক্তার-নার্সরাও আতঙ্কে। বাধ্য হয়ে তাঁরা নিজেদের সুরক্ষিত রাখতে ব্যক্তিগত উদ্যোগে এ সংক্রান্ত পোশাক-পরিচ্ছদ সরঞ্জাম কিনছেন। হাসপাতালের দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে তাদের সময় বন্টন অর্থাৎ ডিউটি, শিফট নির্ধারিত থাকে। একাধিক ডাক্তার-নার্স থাকায় তারা পর্যায়ক্রমে দায়িত্ব পালন করেন। তবে এক্ষেত্রে মাঠ পর্যায়ের স্বাস্থ্য কর্মীরা তাদের কর্মস্থলে একা একজন-ই দায়িত্বে থাকায় মহাবিপাকে, উদ্বেগে আর ঝুঁকিতে থাকতে হচ্ছে তাদের।’

কারণ হিসেবে তাঁরা জানান- ‘করোনা ভাইরাস থেকে নিজেকে সুরক্ষিত রাখতে অন্যতম প্রধান উপায় অন্য মানুষ থেকে দুরত্ব বজায় রাখা। প্রশাসন ইতোমধ্যে সকলকে ঘর থেকে বের না হওয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন। আর উপজেলা হাসপাতাল ছাড়া গ্রামাঞ্চলের কোন স্বাস্থ্যকেন্দ্রে এমবিবিএস ডাক্তার না থাকায় ওইসকল স্বাস্থ্যকেন্দ্রের স্বাস্থ্যকর্মীরা অতিপ্রাথমিক চিকিৎসা ছাড়া অন্য কোন চিকিৎসা দেয়ার এখতিয়ার রাখেন না। বর্তমানে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে নিজের সুরক্ষার স্বার্থে মাঠ পর্যায়ের এসকল স্বাস্থ্যকর্মীদের বাসায় অবস্থান অথবা জরুরী প্রয়োজনে কর্মক্ষেত্রে আসা অথবা ডিউটির সময় কমিয়ে আনা অথবা নিজেদের মধ্যে শিফট ভাগ করে দেয়া উচিত।’

‘নিজেরা অরক্ষিত থেকে ভাইরাসজনিত কোন অঘটন ঘটলে শুধু সেই ভুগবে না, বরং অন্যদেরও ভুগতে হবে। এর দায় নেবে কে?’- প্রশ্ন ছুঁড়েছেন তারা।
‘তাছাড়া, বাইরে যত কম আসা যাবে ততই সকলের জন্য মঙ্গল’- যোগ করেন তারা।

ক্ষোভ প্রকাশ করে তাঁরা বলেন, ‘আমরা ডাক্তার-নার্স না। বর্তমান পরিস্থিতিতে আমাদের মতো সাধারণ স্বাস্থ্যকর্মীদের উপর মাত্রাতিরিক্ত খবরদারি করছেন কেউ কেউ। ঊর্দ্ধতনরা অধীনস্থদের উপর অযাচিত, অহেতুক ও অনৈতিক বিভিন্ন চাপ প্রয়োগ করে থাকেন।’

উল্লেখ্য, মরনঘাতক করোনা ভাইরাসে টালমাটাল পুরো বিশ্ব। বাদ যাচ্ছে না বাংলাদেশেও।
বুধবার দুপুর পর্যন্ত আইইডিসিআর এর তথ্যসূত্রে বাংলাদেশে কভিড-১৯ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত: ৩৯, সুস্থ: ৭ ও মৃত্যু: ৫ জন।
তবে আশার কথা হচ্ছে ইতোমধ্যে সরকার সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করে নানান পদক্ষেপ নিয়েছেন।

আতঙ্কিত না হয়ে সচেতন থাকার আহবান জানিয়ে সাধারণ জনগণকে ঘনঘন সাবান পানি দিয়ে হাত ধোয়া, মাস্ক ব্যবহার করা, জনসমাগম এড়িয়ে চলা ইত্যাদি বিষয়গুলো মেনে চলতে বলা হয়েছে।

করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে মাঠ পর্যায়ের স্বাস্থ্য কর্মীদের স্বাস্থ্যঝুঁকিতে কমাতে মানবিক নির্দেশনা ও মনোভাবের দাবি জানানো হয়েছে।

এ বিষয়ে সাতক্ষীরা সিভিল সার্জন ডাক্তার হুসাইন শাফায়াত বলেন, ‘রেইনকোর্টে ভাইরাস প্রবেশ করতে পারবে না। সেজন্য বিভিন্ন উপজেলার স্বাস্থ্যকর্মীদের রেইনকোর্ট কিনতে বলা হয়েছে। আমাদের কাছে খুব কম সংখ্যক পিপিই আছে। সেগুলো এখন ব্যবহার করলে পরে কোন পজেটিভ কেস পেলে তখন সংকট পড়বে। আর পিপিই তো সবাইকে দেওয়া হবে না। যারা করোনা আক্রান্ত রোগীদের নিয়ে কাজ করবে তাদের দেওয়া হবে।’

এদিকে, বুধবার বিকেলে সাতক্ষীরা-১ আসনের সংসদ সদস্য এড.মুস্তফা লুৎফুল্লাহ কলারোয়া হাসপাতালকে ৭সেট ও কলারোয়া থানাকে ২সেট পিপিই প্রদান করেছেন।

একই রকম সংবাদ সমূহ

করোনা মোকাবেলা ও কৃত্রিম সংকট

আজ সারাবিশ্বে বড় আতংকের নাম করোনা ভাইরাস। চায়ের দোকান থেকেবিস্তারিত পড়ুন

কলারোয়া পৌরসদরে মজনু চৌধুরীর উদ্যোগে জীবাণুনাশক স্প্রে করলেন লাল্টু ও সাহাজাদা

কলারোয়া পৌর সদরের বিভিন্ন স্থানে জীবাণুনাশক পানি স্প্রে সহকারে ছিটানোবিস্তারিত পড়ুন

সাতক্ষীরা জেলায় ২৪ ঘন্টায় নতুন করে ১০৬ জন হোম-কোয়ারেন্টাইনে

সাতক্ষীরায় গত ২৪ঘন্টায় বিদেশ ফেরত আরো নতুন ১০৬জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনেরবিস্তারিত পড়ুন

  • কলারোয়ার শংকরপুরে যুবকদের জীবাণুনাশক স্প্রে ও প্রচারণা
  • ‘করোনা: ২৪ ঘন্টার ডাক্তার আমাদের সুব্রত ঘোষ’
  • করোনা: সাতক্ষীরায় নিন্ম আয়ের মানুষদের বিভিন্ন সামগ্রী দিলো ওয়ার্কার্স পার্টি
  • গুজবের দেশ বাংলাদেশ! গুজব রটনার মাধ্যম ফেসবুুক!
  • গুজব একটি সামাজিক ভাইরাস, এটি প্রতিরোধে আসুন সচেতন হই
  • করোনা প্রতিরোধে ইউপি চেয়ারম্যানদের প্রতি কলারোয়া উপজেলা চেয়ারম্যানের খোলা চিঠি
  • কলারোয়া গরুহাট, বাজারসহ বিভিন্ন এলাকা তদারকিতে এসিল্যান্ড আক্তর হোসেন
  • করোনা: জীবাণুনাশক ছিটালো কলারোয়ার মুরারীকাটির কয়েকজন যুবক
  • করোনা: কলারোয়ার জয়নগরে জীবানুনাশক ছিটালেন ইউপি সদস্য জয়দেব সাহা
  • কলারোয়ায় রাস্তায় জীবাণুনাশক স্প্রে করলো জেলা ছাত্রদল
  • করোনা : কলারোয়ার কেঁড়াগাছি প্রিমিয়ার ছাত্র সংঘের উদ্যোগে স্যানিটাইজার বিতরণ
  • চাপনিতে (গোপনে) এনজিও’র কিস্তি আদায়! তবে কমেছে