বুধবার, নভেম্বর ১৩, ২০১৯

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরার সর্বাধুনিক অনলাইন পত্রিকা

কেশবপুরে অবৈধভাবে সেচ প্রকল্প অনুমোদন দেয়ার অভিযোগ

যশোরের কেশবপুরে বিএডিসি‘র সহকারি প্রকৌশলীর (নির্মাণ) বিরুদ্ধে ভূ-গর্ভস্থ পানি উত্তোলন নীতিমালা উপেক্ষা করে একটি অনুমোদিত সেচ প্রকল্পের অভ্যন্তরে আরও একটি অবৈধ সেচ প্রকল্প অনুমোদন দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ ঘটনার প্রতিকার চেয়ে যশোর রিজিয়নের নির্বাহী প্রকৌশলীসহ উপজেলা সেচ কমিটির সভাপতির কাছে পৃথক অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়েছে। ফলে হুমকির মুখে পড়েছে মির্জানগর বিলের বোরো আবাদ।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, ২০১৭ সালে উপজেলার চাদড়া গ্রামের আব্দুল গফুরের ছেলে ও কেশবপুর পাইলট মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল মান্নান মির্জানগর বিলে বিএডিসি ও উপজেলা সেচ কমিটির অনুমোদন নিয়ে একটি অগভীর নলকুপ স্থাপন করেন। এরপর থেকে তিনি বিল সংলগ্ন কৃষকদের পাট ও বোরো ধান আবাদে সেচ কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছেন। ইতোমধ্যে সুষ্ঠুভাবে পানি সরবরাহের লক্ষ্যে তিনি প্রায় ৭ লাখ টাকা ব্যয়ে সেচ প্রকল্প এলাকায় ৬’শ ফুট পাইপ লাইন স্থাপন কাজ সম্পন্ন করেছেন। সম্প্রতি একই গ্রামের মৃত আবু কালাম সরদারের ছেলে ফারুক হোসেন বিএডিসির সহকারি প্রকৌশলীকে (নির্মাণ) অনৈতিক সুবিধা দিয়ে সেচ নীতিমালা লঙ্ঘন করে প্রায় সাড়ে ৩’শ ফুটের মাথায় আরও একটি সেচ প্রকল্প স্থাপনের অনুমোদন নেয়। অনুমোদন পেয়ে ফারুক হোসেন তার সেচ প্রকল্প বাস্তাবয়নের লক্ষ্যে আব্দুল মান্নানের সেচ প্রকল্প এলাকার ভেতর দিয়ে বিএডিসির সেচ প্রকল্পের ড্রেন নির্মাণ কাজ শুরু করেন। বিষয়টি সাংঘষিক হওয়ায় আব্দুল মান্নান গত ২৬ মে বিএডিসির সহকারি প্রকৌশলীর কাছে অভিযোগ করেন। কিন্তু তিনি বিভিন্ন অযুহাতে বিষয়টি এড়িয়ে গিয়ে দীর্ঘদিন ধরে সময় ক্ষেপণ করতে থাকেন। এমতাবস্থায় আব্দুল মান্নানের সেচ প্রকল্পের ভেতর দিয়ে যদি আরও একটি সেচ প্রকল্প স্থাপন করা হয় তাহলে তিনি আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হবেন বলেই অভিযোগপত্রটি দাখিল করেছেন।

আব্দুল মান্নান অভিযোগ করে বলেন, ভূ-গর্ভস্থ পানি উত্তোলন নীতিমালা অনুযায়ী ৭’শ ফুটের ভেতর কেউ সেচ অনুমোদন পাবে না। অথচ বিএডিসি এ আইন লঙ্ঘন করে ফারুক হোসেনকে সেচ প্রত্যয়ন দিয়েছে। তিনি ফারুক হোসেনের অবৈধভাবে নেয়া সেচ প্রত্যয়ন বাতিলের দাবি জানান।

এ ব্যাপারে বিএডিসির সহকারি প্রকৌশলী (নির্মাণ) জহিরুল ইসলামের ০১৭২৭৬৬৭১৬৭ নং মোবাইল ফোনে বারবার যোগাযোগ করলেও তিনি ফোন রিসিভ না করায় তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

উপজেলা সেচ কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মিজানূর রহমান বলেন, সেচ নীতিমালার বাইরে কেউ সংযোগ পাবে না। বিষয়টি তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্যে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। প্রতিবেদন পেলেই আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মহাদেব চন্দ্র সানা বলেন, গত ২৯ অক্টোবর তিনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশিত অভিযোগপত্রটি পেয়েছেন। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।

একই রকম সংবাদ সমূহ

বেনাপোল কাস্টমস্ ভোল্টে সোনা চুরির ঘটনায় থানায় মামলা

বেনাপোল কাস্টমস হাউজের ভোল্ট থেকে ১৯ কেজি ৩১৮ গ্রাম সোনাবিস্তারিত পড়ুন

কেশবপুরে ড্রাইভিং লাইসেন্স পরীক্ষা কেন্দ্রের দাবি সাংবাদিক সাঈদের

যশোরের কেশবপুরে মোটরসাইকেল ড্রাইভিং লাইসেন্স পরীক্ষা কেন্দ্র রাখার দাবি করেছেবিস্তারিত পড়ুন

  • কেশবপুরে রাসুল (সা:) জীবনীর উপর রচনা ও বক্তৃতা প্রতিযোগিতা
  • বেনাপোল কাস্টমসে লকার ভেঙ্গে চুরি, তোলপাড়
  • কেশবপুরে বালতির পানিতে পড়ে ঘুমন্ত শিশুর করুন মৃত্যু
  • বেনাপোলে যুবলীগের ৪৭তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত
  • ঘুর্ণিঝড় বুলবুল : মনিরামপুরে দরিদ্র পেঁপে চাষি সরোয়ারের স্বপ্নভঙ্গ
  • ঘুর্ণিঝড় বুলবুল’র প্রভাবে অসময়ের বৃষ্টি: মণিরামপুরে ক্ষতি ইটভাটা ও ফসলের
  • কেশবপুরে ফেন্সিডিলসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক
  • ঝিকরগাছার বল্লা ফুটবল টুর্নামেন্টের ২য় খেলায় কেশচন্দ্রপুর জয়ী
  • কেশবপুরে যুবলীগের ৪৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত
  • প্রেসক্লাব যশোর’র সাবেক সহ.সভাপতি হাবিবের মৃত্যুতে রাজগঞ্জ প্রেসক্লাব’র শোক
  • বেনাপোলে বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজী মশিউর রহমান আর নেই
  • ভারতের বনগাঁ থানায় ১১১জন বাংলাদেশি নাগরিক আটক