সোমবার, ডিসেম্বর ১৬, ২০১৯

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরার সর্বাধুনিক অনলাইন পত্রিকা

আরো খবর....

কেশবপুরে নবাগত ওসির সাথে প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের মতবিনিময়

যশোরের কেশবপুর থানার নবাগত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আবু সাঈদের সাথে কেশবপুর প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রোববার সন্ধ্যার পরে কেশবপুর প্রেসক্লাবের কনফারেন্স রুমে এ উপলক্ষে আলোচনা সভায় প্রেসক্লাবের সভাপতি আশরাফ-উজ-জামান খান সভাপতিত্ব করেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন কেশবপুর থানার নবাগত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আবু সাঈদ।

অনুষ্ঠানের শুরুতে প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে নবাগত অফিসার ইনচার্জকে ফুলেল শুভেচ্ছা প্রদান করা হয়।

আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন পৌরসভার মেয়র রফিকুল ইসলাম মোড়ল, থানার উপপরিদর্শক কামরুজ্জামান, প্রেসক্লাবের নির্বাহী কমিটির সদস্য কবীর হোসেন ও নুরুল ইসলাম খান প্রমুখ। এসময় প্রেসক্লাবের নির্বাহী কমিটির নেতৃবৃন্দ ও সকল সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে থানার অফিসার ইনচার্জ কেশবপুরের শান্তি শৃংখলা রক্ষার্থে সাংবাদিককের সহযোগিতা কামনা করেন।

জমি নিয়ে বিরোধ :পানের বরজ নষ্টের অভিযোগ

যশোরের কেশবপুরে ডিসিআর নেওয়া জমির গাছ ও পুকুরের মাছ মেরে এবং পানের বরজ নষ্ট করে ১০ লক্ষ টাকার ক্ষতি সাধন করেছে প্রতিপক্ষরা।
এ ঘটনায় ভুক্তভোগী মোনতাজ গোলদার বাদি হয়ে গত ২৮ অক্টোবর যশোরের জেলা প্রশাসক, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) ও কেশবপুর সহকারী কমিশনার (ভূমি) এবং কেশবপুর থানায় ৩ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ২০/২৫ জনের নামে একটি অভিযোগ দায়ের করেছে।
অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, ১১২ নং পাঁজিয়া মৌজার আর এস খতিয়ান ১/১, হাল ৫৪১, ৫৪২, ৫৪৩ দাগের ১.২১ শতক জমি সরকারের নিকট থেকে ডিসিআর গ্রহণ করে দীর্ঘ বছর যাবৎ তারা ভোগ করে আসছে। উক্ত জমিতে মোনতাজ গোলদার গংরা ফলজ ও বনজ বৃক্ষের পাশাপাশি পানের বরজের চাষ করে আসছেন। উক্ত জমি উপজেলার বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের মকবুল হোসেনের স্ত্রী সুরাইয়া বেগম, মৃত নুরুল ইসলামের ছেলে সোহানুর রহমান সোহাগ ও নফর মোল্যার ছেলে মকবুল হোসেন দীর্ঘদিন যাবত তাদের পৌত্রিক সম্পত্তি হিসেবে দাবি করে উক্ত সম্পত্তি জবর দখলের চেষ্টা করে আসছে। তারই জের ধরে গত মঙ্গলবার ঘরের ভেতরে জিম্মি করে ভাড়াটিয়া দূর্বৃত্তদের নিয়ে উক্ত জমিতে জবর দখল করে ফলজ ও বনজ বৃক্ষ এবং পুকুরের মাছ মেরে বিক্রি করে ফেলে এবং ২টি পানের বরজ নষ্ট করে দেয়। উক্ত জমি জবর দখল নিয়ে প্রায় ১০ লক্ষা টাকার ক্ষতি সাধন করেছে। ওই জমিতে তারা ঘর নির্মাণ করেছে। এ ব্যাপারে মোনতাজ গোলদার বাদি হয়ে ৩ জনের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাত ২০/২৫ জনের নামে কেশবপুর থানায় একটি অভিযোগ করেছে।
এ ব্যাপারে কেশবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো.আবু সাঈদ বলেন, এবিষয়ে একটি অভিযোগ পাওয়া গেছে। তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নিয়মবহির্ভূত সেচ প্রকল্পের তদন্ত সম্পন্ন

যশোরের কেশবপুরে বরনডালি পশ্চিম মাঠের বিলে নিয়মবহির্র্ভূতভাবে অনুমোদন পাওয়া সেচ প্রল্পের তদন্ত সম্পন্ন হয়েছে।
গত ৩০ সেপ্টেম্বর বরনডালি গ্রামের গোলাম মোস্তফা ওই সেচ স্কিমকে অব্যধ দাবি করে সরকারের একাধিক দপ্তরে আবেদন করেন। এরই পরিপ্রক্ষিতে ৩ নভেম্বর উপজেলা কৃষি অফিসার মহাদেব চন্দ্র সানার নেতৃত্বে এ তদন্ত সম্পন্ন হয়।
জানা গেছে, ২০১৩ সালে উপজেলার বরনডালি গ্রামের মৃত গরিবুল্লাহ মোল্যার ছেলে গোলাম মোস্তফা, শওকত মোল্যা, আব্বাজ মোল্যা কপোতাক্ষ তীরবর্তী ঘোচমারা বিলে গভীর নলকুপ স্থাপন করে এলাকার শতাধিক কৃষকের প্রায় ২’শ বিঘা জমিতে আবাদকৃত পাট ও বোরো ধান ক্ষেতে সেচ প্রদান করে আসছেন। পরবর্তীতে সরকার ভূগর্ভস্থ পানি ব্যবহারের নীতিমালা প্রণয়ন করলে তাৎক্ষণিকভাবে গোলাম মোস্তফা কপোতাক্ষ নদ থেকে ভূ-উপরিস্থ পানি ব্যবহারের অনুমতি নেয়। এরপর থেকে তিনি বিএডিসির পাইপ লাইনের মাধ্যমে নিজ অর্থে ২টি ৩০ কেভি শক্তির ট্রান্সফরমার কিনে সেচ কার্য পরিচালনা করে আসছেন।
এদিকে, একই গ্রামের আতিয়ার রহমানের ছেলে শাহিনুর রহমান সেচ নীতিমালা লঙ্ঘন করে ৫’শ ফুটের মাথায় আরও একটি বিএডিসির নলকুপ নদে স্থাপনের জন্যে আবেদন করেন। এরই প্রেক্ষিতে বিএডিসি তাকে সেচ প্রত্যয়ন দেয়। বিএডিসির এ প্রত্যয়নকে নিয়মবহির্ভূত দবি করে গোলাম মোস্তফা গত ৩০ সেপ্টম্বর বিএডিসি সেচ এর উপসচিব, যশোরের প্রকল্প পরিচালক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর পৃথক অভিযোগপত্র দাখিল করেন। উপজেলা নির্বহী কর্মকর্তা বিষয়টি তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্যে উপজেলা কৃষি অফিসারকে নির্দেশ দেন। এ অভিযোগের জের ধরে শওকত মোল্যার নামের বৈদ্যুতিক সেচপাম্প ধ্বংস করতে গত ২ অক্টোবর রাতে তার ২ ট্রান্সফরমার রহস্যজনক চুরির ঘটনা ঘটে। ফলে হুমকির মুখে পড়ে শওকত মোল্যার সেচ স্কিমটি।
এ ব্যাপারে শাহিনুর রহমান বলেন, বোরো ধান আবাদে শওকত মোল্যা কৃষকদের শোষণ করে টাকা আদায় করে থাকে। যে কারণে কৃষকদের দবির মুখে তিনি সেচ স্কিমটি গ্রহণ করেছেন।
উপজেলা কৃষি অফিসার মহাদেব চন্দ্র সানা বলেন, গত ৩ নভেম্বর সরেজমিনে তদন্তে গিয়ে ওই সেচ স্কিমের পক্ষের বিপক্ষের কৃষকদের অভিযোগ শোনা হয়েছে। শাহিনুরের সেচ স্কিমটি নিয়মবহির্ভূত কিনা তা তদন্ত করে দেখা হয়েছে। তদন্তে যা পাওয়া গেছে তারই ওপর ভিত্তি করে প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।

একই রকম সংবাদ সমূহ

বেনাপোলে দুই কেজি সোনার বার উদ্ধার

যশোরের বেনাপোল পোর্ট থানার গাতীপাড়া সীমান্ত দিয়ে ভারতে পাচারের সময়বিস্তারিত পড়ুন

মনিরামপুরে ৭১’এর স্মৃতি হয়ে আছে যুদ্ধবিমান থেকে পড়া অবিস্ফোরিত বোমাটি

মনিরামপুরে স্মৃতিচিহ্ন হয়ে আছে ৭১’এ যুদ্ধবিমান থেকে পড়া অবিস্ফোরিত বোমাটি।বিস্তারিত পড়ুন

বেনাপোলের সীমান্তবর্তী কদম বিলে অতিথি পাখির মেলা

সীমান্তবর্তী এলাকার ১ শত ৫০ গজ দুরে ভারতের কাটা তারেরবিস্তারিত পড়ুন

  • মনিরামপুরের রাজগঞ্জে ডে-নাইট হাডুডু খেলা অনুষ্ঠিত
  • ভারতে আটক ১৯ বাংলাদেশি বেনাপোলে হস্তান্তর
  • কেশবপুরে শিশু অপহরণের পর ধর্ষণ প্রচেষ্টা ।। আটক ১
  • কলারোয়ার কাজীরহাটে ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনালে শার্শার বাইকোলা
  • কেশবপুরের বরণডালি ফুটবল টুর্নামেন্টে কলারোয়ার কেঁড়াগাছি চ্যাম্পিয়ন
  • ঝিকরগাছার ধানপোতা ফুটবল টুর্নামেন্টে শিয়ালঘোনা চ্যাম্পিয়ন
  • মনিরামপুরের রাজগঞ্জে মেয়ের উপর অভিমান করে মায়ের আত্মহত্যা!!
  • বেনাপোলে ডলার সহ এক মহিলা পাসপোর্ট যাত্রী আটক
  • ভারত থেকে দূষন মুক্ত বিশ্ব নির্মান স্লোগান নিয়ে সাইকেল র্র্যালী
  • ভারতে কারাভোগ শেষে বিশেষ ট্রাভেল পারমিটে ১৯ বাংলাদেশি দেশে ফেরত
  • ঝিকরগাছার রঘুনাথনগর ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনালে চানদুটিয়া
  • কলারোয়ার খোরদো ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনালে কেশবপুরের বরনডালি