মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০২০

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরার সর্বাধুনিক অনলাইন পত্রিকা

সাতক্ষীরায় জনতার হাতে ধৃত

ক্লাস এইট পাস, তবু তিনি চক্ষু চিকিৎসক!!

ক্লাস এইট পাস, তবু তিনি চক্ষু চিকিৎসক!!

ক্লাস এইট পাস তিনি। তবু নামের আগে ডাক্তার। রোগীও দেখেন।
চক্ষু চিকিৎসকের নামে প্রতারণা করার অভিযোগে আবদুল মালেক মন্ডল নামের এমনই এক ব্যক্তিকে আটক করেছে গ্রামবাসী।
তাকে তারা তুলে দিয়েছেন পুলিশের হাতে।

সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ঝাউডাঙ্গা এলাকার বাসিন্দারা জানান, আবদুল মালেক একজন ভারতীয় নাগরিক। তিনি নিজেকে ভারতের কোলকাতা থেকে চক্ষু চিকিৎসাবিদ্যা গ্রহন করেছেন দাবি করে মাইকিংয়ের মাধ্যমে চিকিৎসা দিয়ে আসছিলেন। ঝাউডাঙ্গা বাজার, সরসকাটি বাজার, কলারোয়া বাজার, বামনখালি বাজার, বুধহাটা বাজারসহ ১০টি স্থানে রয়েছে তার চেম্বার। কম টাকায় চিকিৎসার নামে তিনি অপচিকিৎসা দিয়ে আসছিলেন বলে গ্রামবাসীর অভিযোগ।

তবে শেষ রক্ষা হয়নি। বৃহস্পতিবার সকালে আবদুল মালেক মাইকিং করে চিকিৎসা দেওয়ার প্রচার চালানোর সময় গ্রামবাসী তাকে চ্যালেঞ্জ করেন। এসময় তিনি স্বীকার করে বলেন, তিনি বাংলাদেশে ক্লাস এইট পর্যন্ত লেখাপড়া করেছেন। এছাড়া ভারতের আয়ুর্বেদিক শাস্ত্রের কয়েকটি সার্টিফিকেট আছে তার। ভারতীয় এই নাগরিক থাকেন সাতক্ষীরা শহরের মধুমোল্লারডাঙ্গি গ্রামে।

স্থানীয়রা আরো জানিয়েছেন- অপটোমেট্রিস্ট, ফিজিশিয়ান, কোলকাতা, ঢাকা বিভিন্ন নামে অভিজ্ঞ ডাক্তারের প্রচারণা চালিয়ে চক্ষু চিকিৎসা দেয়ার নামে মানুষকে প্রতারণা করে আসছিলেন তিনি। চিকিৎসা ফ্রী তার ২০০ টাকা। ভুয়া ওই চিকিৎসক আব্দুল মালেক সাতক্ষীরা শহরের মধুমোল্লাডাঙ্গী এলাকার বাসিন্দা। বৃহস্পতিবার (২৩ জানুয়ারী) সকালে ঝাউডাঙ্গার একটি ফার্মেসী থেকে ওই ভুয়া ডাক্তারকে আটক করে জনতা তুলে দেয় সদর থানা পুলিশের হাতে।

সদর থানা পুলিশ তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেবে বলে জানিয়েছে।

সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মোস্তাফিজ রহমান জানান, স্থানীয়দের অভিযোগের ভিত্তিতে এসআই মানিক কুমার ও এএসআই জসিম উদ্দিন ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

এদিকে, ঘটনা সূত্রে জানা গেছে- দীর্ঘদিন যাবত সদর উপজেলার ঝাউডাঙ্গা বাজারের ঝাউডাঙ্গা ফার্মেসীতে চেম্বার বসিয়ে নামি-দামি ডিগ্রি অর্জনের প্রচার চালিয়ে মানুষ ঠকানো চক্ষু চিকিৎসা দিয়ে আসছিলেন আব্দুল মালেক। সে চিকিৎসার পাশাপাশি ঔষধ কোম্পানির দেয়া বিনামূল্যের ঔষধও বিক্রি করছিলেন।

আব্দুল মালেক বলেন, আয়ুর্বেদিক শাস্তের ডিগ্রি রয়েছে তার। তিনি শহরের ৬-৭টি স্থানে রুগী দেখেন। তিনি বাংলাদেশ থেকে অষ্টম শ্রেণী পাশ। বাকি লেখাপড়া করেছেন ভারতে।

তবে তিনি পুলিশকে কোনো সনদ দেখাতে পারেননি।

একই রকম সংবাদ সমূহ

সাতক্ষীরায় বসন্তের শুরুতে গাছজুড়ে আমের মুকুলে ভালো ফলনের হাতছানি

ৠতুরাজ বসন্তের শুরুতে সাতক্ষীরার বিভিন্ন এলাকাজুড়ে ম-ম ঘ্রাণে সৌরভ ছড়াচ্ছেবিস্তারিত পড়ুন

সাতক্ষীরা জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদকসহ তিনজনের নামে মামলা

সাপ্তাহিক সূর্যের আলো পত্রিকায় “জেলা জাতীয় পার্টি এখন পারিবারিক পার্টি”বিস্তারিত পড়ুন

  • সাতক্ষীরায় অজ্ঞানপার্টির কবলে পড়ে শিক্ষকের মৃত্যু!
  • সাতক্ষীরায় পুলিশের অভিযানে গ্রেপ্তার ৩৫
  • সাতক্ষীরা জেলা জজ শেখ মফিজুর রহমানের কবিতা ‘শো-কেসে সাহিত্য’
  • সাতক্ষীরায় মাহফিলের পর আটক হলেন ইসলামি বক্তা
  • সাতক্ষীরা জেলা হাসপাতালে স্বাস্থ্য সেবা ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা
  • সাতক্ষীরায় প্রাইমারি স্কুলের নতুন শিক্ষকদের ওরিয়েন্টেশন
  • অসুস্থ্য সাতক্ষীরা সদর আ.লীগের সভাপতিকে দেখতে হাসপাতালে এমপি রবি
  • সাতক্ষীরায় পুলিশের অভিযানে মাদক মামলার ৭ জনসহ গ্রেপ্তার ২২
  • কলারোয়ায় ২৫৫পিস ইয়াবাসহ যুবক আটক
  • কলারোয়ায় সরিষার ফলন বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রান্তিক কৃষকদের নিয়ে মাঠ দিবস
  • সাতক্ষীরায় বাসের ধাক্কায় ট্রলি চালক নিহত
  • সাতক্ষীরায় রবি প্রতিবন্ধী স্কুলে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও বনভোজন