সোমবার, ডিসেম্বর ১৬, ২০১৯

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরার সর্বাধুনিক অনলাইন পত্রিকা

গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য বেত গাছ এখন প্রায় বিলুপ্ত

প্রাচীন যুগে দিনে প্রত্যন্ত গাঁ-প্রাম অঞ্চলে গভীর জঙ্গলের মধ্যে লতা গাছের মত দেখতে নাম তার বেতগাছ। তবে এই বেত গাছ বহু নামে পরিচিত। যেমন বেত গাছ, বেথুন, বেথুল, বেতগুলা, বেতগুটি ও বেত্তুইন নামে পরিচিত।
তবে সাধারণ ভাবে বেত গাছ নামে চেনে।

এই বেত গাছ বাংলাদেশ, ভুটান, কম্বোডিয়া, লাওস, মায়ানমার, থাইল্যান্ড, ভিয়েতনাম, ভারত, জাভা অঞ্চলের উদ্ভিদ বেত গাছ। ক্রান্তীয় উপক্রান্তীয় ভেজা ও জলা নিচু ভূমিতে ভাল জন্মে। প্রাম বাংলার নৈসর্গীক শোভা বিস্তারে এ গাছের জুড়ি নেই।

এখন আর আগের মত বেত গাছ দেখা মেলেনা। গ্রাম বাংলার বাড়ীর আনাচে কানাচে রাস্তার পাশে বা পতিত জমিতে ও লতা পাতা জংলার মধ্যে চির সবুজ এই উদ্ভিদটি।

বেতগাছ ৪৫ থেকে ৫৫ ফুট এবং কখনো কখনো তার চেয়ে বেশী লম্বা হয়ে থাকে। বেত গাছে ফুল হয় পরে ফল হয়। ফলটি পাকলে দেখতে ঘিয়ে রং মত, খেতে খুব মিষ্টি ও সুস্বাদু ফল।

বেত গাছ উদ্ভিদ ক্রান্তীয় ও উপক্রান্তীয় অঞ্চলে ভেজা ও জঞ্জালার নিচু জমিতে ভালো জন্মে। গাছগুলো লম্বা কাটা যুক্ত লতা আকৃতির শক্ত হয়ে থাকে।

দুই থেকে তিন দশক আগেও আমাদের দেশে গ্রাম বাংলার বনজঙ্গলে ধারে নানা ধরনের বেত গাছ দেখা যেতো। আর এখন এ গাছটি এখন দূর্লভ বস্তুতে পরিনত হয়েছে। বর্তমান বাজার হাটে বা মেলায় শুকনা বেত দেখা যায়। শুকনা বেত দিয়ে চেয়ার, টেবিল, মোড়া, ধামা, পালি, ডালা, দোলনা, র‍্যাক, সোফা, ফুলদানী সহ বহু রকমের আসবাব পত্র তৈরী হতো। বর্তমান গ্রাম অঞ্চলে এখন আর এ গাছ দেখা যায় না।

আমাদের এই সোনার বাংলাদেশে এক সময় প্রচুর বেত গাছ দেখা যেতো, চাষ হতো বর্তমান এখন আর চোখে মেলেনা। তবুও আমাদের দেশে এখনো বেত দিয়ে আসবাবপত্র তৈরী হচ্ছে এবং বেতের কদর এখনো আছে। বিভিন্ন বেতের আসবাবপত্র ঘর সাজানো, দৃষ্টিনন্দন টেকসই ও মুল্যবান যে কারনে বেতের কদর এখনো সকলের কাছে সমাদৃত। ঐতিহ্যবাহী বেত শিল্পকে টিকিয়ে রাখার চেষ্টা করছে।

তবে বাংলাদেশে এই বেত গাছ বিলুপ্ত প্রায়। বেত গাছ আমাদের অতি প্রয়োজনীয় ও কুঠির শিল্পের অন্যতম বেত গাছ বেত একটি মূল্যবান টেকসই এবং স্মার্ট শ্রেনির দ্রব্য হিসাবে বিবেচিত। বর্তমান প্র্রজন্মের ছেলে মেয়েরা জানেনা বেত কি, কেমন দেখতে। বর্তমান বেত গাছ আমাদের দেশ থেকে প্রায় বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে। বেতের বিকল্প আসবাবপত্র তৈরী হচ্ছে। বর্তমান এখন ডিজিটাল যুগ ও আধুনিক যুগের সভ্য শিক্ষিত তারা বুদ্ধি চিন্তা চেতনা মেধা দিয়ে বেতের বদলে এখন প্লাষ্টিক বেত।

বেতের জায়গা দখল করে নিয়ছে লোহার ফ্রেম করে প্লাষ্টিকের বেত তৈরী করে আসবাবপত্র তৈরী হচ্ছে এমনকি লোহা ইস্টিল, কাঠ পাটেক্স প্লাষ্টিক বোর্ড আরো অনেক রকমের বস্তু দিয়ে আলমারী টেবিল চেয়ার, খাট, র‍্যাক, সোফা, সহ বিভিন্ন ধরনের নতুন প্রযুক্তিতে আসবাবপত্র তৈরী হচ্ছে বর্তমান এখন আর প্রাচীন যুগের সেই ঐতিহ্যবাহী বেত গাছ দরকার পড়ে না। এই ঐতিহ্যবাহী বেত গাছ আমাদের মাঝ থেকে বিলুপ্তি হয়ে গেছে বলা যায়।

একই রকম সংবাদ সমূহ

প্রাণসায়র খাল খননে অনিয়ম মেনে নেয়া হবে না: জেলা প্রশাসক

সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এসএম মোস্তফা কামাল বলেছেন, প্রাণ সায়ের খালবিস্তারিত পড়ুন

সাতক্ষীরা জেলা আ.লীগের সভাপতি-সম্পাদককে শুভেচ্ছা কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের ৩ নেতার

সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের নব-নির্বাচিত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের সাথেবিস্তারিত পড়ুন

কলারোয়া উপজেলা জাতীয় পার্টির সম্মেলন ॥ মশিউর সভাপতি, আলিম সম্পাদক

কলারোয়া উপজেলা জাতীয় পার্টির দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার কলারোয়াবিস্তারিত পড়ুন

  • সাতক্ষীরা জেলা আ.লীগের সভাপতি-সেক্রেটারিকে শুভেচ্ছা ভোমরা বন্দর ব্যবহারকারী এসোসিয়েসনের
  • সাতক্ষীরা জেলা পরিষদে আ.লীগের নয়া সেক্রেটারি নজরুল ইসলামকে সংবর্ধনা
  • ‘আদর’ এর পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া মাদকাসক্তের রহস্যজনক মৃত্যু!
  • সাতক্ষীরায় ‘খাদ্য অধিকার আইন চাই’ শীর্ষক সেমিনার
  • সাতক্ষীরার কুশখালীতে প্রি-ক্যাডেট স্কুলের উদ্বোধন
  • সাতক্ষীরায় রবি এমপি’র অনুদানের চেক বিতরণ
  • শহিদ বুদ্ধিজীবী দিবসে সাতক্ষীরা শহিদ মিনারে মোমবাতি প্রজ্জ্বলন
  • ‘নিজেদের অবস্থান থেকে মানবিক সমাজ গড়তে হবে’ : জেলা জজ শেখ মফিজুর রহমান
  • সাতক্ষীরায় শহিদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে দোয়া ও আলোচনা সভা
  • সাতক্ষীরা জেলা আ.লীগের সভাপতি-সম্পাদককে শুভেচ্ছা নাগরিক অধিকার কমিটির
  • সাতক্ষীরা আহ্ছানিয়া মিশন মাদরাসায় শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে দোয়ানুষ্ঠান
  • সাতক্ষীরায় শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে দোয়া ও আলোচনা সভা