মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ১০, ২০১৯

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরার সর্বাধুনিক অনলাইন পত্রিকা

দুই যুগ ধরে রমজানে বিনা পয়সায় মেসওয়াক বিলি করেন তিনি

মাহাতাব উদ্দিন, বয়স ৫৪। পেশায় ওয়াচম্যান (প্রহরী)। দৈনিক মজুরিতে চাকরি করেন। নিজের সংসার চালাতে যিনি হিমশিম খান, তিনিই আবার রমজান মাসে নিজেকে রোজাদারদের সেবায় নিয়োজিত করেন।

জানা গেছে, রমজান মাস এলেই দরিদ্র মাহাতাব উদ্দিন চাকরি থেকে ছুটি নেন। দেশের বিভিন্ন স্থানে ঘুরে ঘুরে বিনামূল্যে মেসওয়াক বিলি করেন। গত দুই যুগ ধরে এভাবেই রোজাদারদের সেবা দিয়ে আসছেন তিনি।

নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলার চকমহাপুর গ্রামের বাসিন্দা মাহাতাব নর্থ বেঙ্গল সুগার মিলের কৃষ্ণা খামারে চাকরি করেন।
বৃহস্পতিবার বাগাতিপাড়ার তমালতলা বাজারে মেসওয়াক বিতরণের সময় মাহাতাবের সঙ্গে কথা হয় সংবাদকর্মীদের।

মাহাতাব জানান, সেই ছোটবেলা থেকে রমজান মাসে বাড়ির পাশের বাজারে গিয়ে বসে থাকতেন। বিকাল হলেই সবাই তাকে মেসওয়াক (দাঁতন) নিয়ে আসতে হুকুম করতেন। সেই থেকে মানবসেবার অদ্ভুত এক নেশায় পেয়ে বসে তাকে।

তিনি মনে করেন, কেউ হুকুম করার আগেই যদি তার মেসওয়াকটা হাতের কাছে এনে দেয়া যেত, তা হলে লোকটি বোধ হয় আরও খুশি হবে। সেই ভাবনা থেকেই শুরু।

এর পর দুই যুগ ধরে রমজান মাসে মেসওয়াকের ব্যাগ নিয়ে ঘুরে বেড়ান নাটোর, রাজশাহী, পাবনা, সিরাজগঞ্জ, ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে। হাট-বাজার ও মসজিদের সামনে বিনামূল্যে মেসওয়াক বিতরণ করেন তিনি।

মাহাতাব বলেন, সেহরি খাওয়ার পর থেকে সকালবেলা পর্যন্ত মেসওয়াক তৈরি করি। দুপুরের পরই মেসওয়াকের ব্যাগ নিয়ে বেরিয়ে পড়ি। এ কাজে আমার স্ত্রী ও সন্তানরা সহযোগিতা করে।

তিনি আরও জানান, তিনি নিমগাছের ডাল দিয়ে মেসওয়াক বানান। এ কাজের জন্য গাছের মালিকরা তাকে দাওয়াত করে ডেকে নিয়ে যান। তাছাড়া বিশিষ্ট ব্যক্তিদের জন্য ঔষধি গাছ আপাংয়ের ডালের বিশেষ মেসওয়াক তৈরি করেন তিনি।

মাহাতাব জানালেন, সারা বছর ছুটি না কাটিয়ে সেগুলো জমা করে রাখেন। রমজান মাস এলেই পুরো মাসের ছুটি নিয়ে নেমে পড়েন এ কাজে। শুরুর দিকে কর্তৃপক্ষ ছুটি দিতে না চাইলেও তার এ কাজের নেশা দেখে এখন আর বাধ সাধে না।

সংসার জীবনে মাহাতাব তিন সন্তানের জনক। ১৪ বছর আগে একমাত্র মেয়ে মুক্তার বিয়ে দিয়েছেন। বড় ছেলে মধু একাদশ শ্রেণি পাস করে আনসার বাহিনীতে চাকরি করছেন। আর ছোট ছেলে নবম শ্রেণিতে পড়ে।

স্থানীয় কলেজশিক্ষক গোলাম তোফাজ্জল কবির মিলন বলেন, দীর্ঘদিন থেকে মাহাতাব উদ্দিনকে এভাবে মেসওয়াক বিলি করতে দেখছি। কিন্তু কোনোদিন কারো কাছ থেকে একটি টাকাও নিতে দেখিনি। নেহাতই মনের আনন্দ পেতে চাকরি থেকে ছুটি নিয়ে জেলায় জেলায় ঘুরে তার এ মানবসেবা সত্যিই আমাদের অবাক করে।

একই রকম সংবাদ সমূহ

প্রধানমন্ত্রীর হাত থেকে রোকেয়া পদক নিলেন পাঁচ নারী

নারীর আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন ও ক্ষমতায়নে অবদান রাখার স্বীকৃতিস্বরূপ ‘বেগম রোকেয়াবিস্তারিত পড়ুন

২০২০ সালে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটির তালিকা

২০২০ শিক্ষাবর্ষের সরকারি-বেসরকারি মাধ্যমিক ও নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলোর ছুটির তালিকাবিস্তারিত পড়ুন

মজুদ বৃদ্ধির লক্ষ্যে সারের বাফার গোডাউন নির্মাণ হবে : শিল্প প্রতিমন্ত্রী

শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার বলেছেন, আপদকালীন মজুদ বৃদ্ধির লক্ষ্যেবিস্তারিত পড়ুন

  • সাতক্ষীরা মুক্ত দিবস উপলক্ষে ঢাকা বিজয় শোভাযাত্রা
  • নড়াইলে যৌতুকের টাকার জন্য গৃহবধূকে হত্যা!!
  • নর্দান ইউনিভার্সিটিতে আন্তর্জাতিক সেমিনার অনুষ্ঠিত
  • কেশবপুরে প্রমীলা হকি খেলায় নড়াইলকে হারিয়ে স্বাগতিকদের জয়
  • চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে গ্রাম আদালতের রিফ্রেশার্স প্রশিক্ষণ শুরু
  • মালয়েশিয়ায় ফাঁসি থেকে রক্ষা পেলো দুই বাংলাদেশি
  • নড়াইলে পৌঁছেই এমপি মাশরাফি বুকে জড়িয়ে নিলেন ওবায়দুল কাদের
  • নড়াইলে প্রধানমন্ত্রীর জন্য দোয়া চাইলেন এমপি মাশরাফি
  • আগামী সপ্তাহে অনলাইন নিউজ পোর্টালের নিবন্ধন শুরু : তথ্যমন্ত্রী
  • ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত পেট্রোল পাম্পের ধর্মঘট স্থগিত
  • চলতি মাসে একাধিক শৈত্যপ্রবাহের সম্ভাবনা
  • নড়াইলে অতিথি পাখি উদ্ধার ।। গ্রেপ্তার ২