বুধবার, জুন ২৯, ২০২২

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরা, দেশ ও বিশ্বের সকল সংবাদ, সবার আগে

নড়াইলে পতিত জমিতে লেবু চাষে সাফল্য যুবকের

নড়াইলে পতিত জমিতে লেবু চাষে ভাবনীয় সাফল্য এক যুবকের।

নড়াইল সদর উপজেলার পানতিতা গ্রামের সুজন কুমার বর্মন লেবু চাষের উদ্যোগ নেওয়া শুরু করেন। ঢাকায় ব্যবসা করার সময় হঠাৎ মাথায় এল পতিত জমিতে এমন কিছু চাষ করা যায় কি না, যা দিয়ে লাভের পাশাপাশি এলাকার সম্ভাবনার দুয়ার খুলবে। পরে চলে গেলেন নাটোর বালিয়াডাঙ্গার রুহুল আমিনের কাছে। তার পরামর্শে ড্রাগন চারা আনার জন্য টাকা দিয়ে আসেন। কিন্তু ড্রাগন চাষে সব সময় পরিচর্যা করতে হয় বলে সিদ্ধান্ত পাল্টে লেবু চাষ শুরু করেন।

এক একর (১০০ শতাংশ) জমিতে চায়না থ্রি ও সিডলেস এলাচি জাতের ৬০০ কলম চারা গাছ প্রতিটি ৫০ টাকা দরে এনে রোপণ করলেন। আর তখনই এলাকার লোকজন বিরূপ মন্তব্য শুরু করল। রাগ করে ফলন আসার আগেই সিদ্ধান্ত নিলেন গাছগুলো কেটে ফেলবেন। পরে পরিবারের পরামর্শে তা আর করেননি।

এদিকে, বছর ঘুরতেই নিজের চোখকে বিশ্বাস করতে কষ্ট হচ্ছিল সুজনের। থোকায় থোকায় ৮ থেকে ১০টি করে লেবুর ফলন আসা শুরু হয়। পরে প্রতিটি গাছেই লেবুর ফলন আসে। বছরে প্রতিটি গাছে ১০০০ থেকে ১৫০০ লেবু ধরে থাকে।

লাভ-লোকসানের বিষয়ে সুজন বলেন, ‘পরিপক্ব হলে প্রতিটি লেবু ৩ থেকে ৪ টাকা দরে পাইকাররা জমি থেকেই কিনে নেন। সময়ভেদে প্রতিটি লেবু ৩ থেকে ১০ টাকা দরেও বিক্রি করি পাইকারদের কাছে। প্রতি সপ্তাহে নড়াইল সদর হাটে দু’বার ও তুলারামপুর হাটে দু’বার আমি লেবু বিক্রয় করি। দুই হাটে প্রতি সপ্তাহে প্রায় ৮ হাজার লেবু বিক্রয় হয়। সেই হিসাবে মাসে ৩২ হাজার লেবু বিক্রি হয়। ৩ টাকা করে ধরলে ৯৬ হাজার টাকার লেবু বিক্রয় হয়। খরচ বাদ দিলে মাসে আয় ৭০ হাজার টাকা।’

তিনি আরো জানান, ‘লেবু-বাগানের বাড়তি কোনো যত্নের প্রয়োজন হয় না। সার-ওষুধেরও ঝামেলা নাই। বিক্রি করতেও বেশি ঝামেলা হয় না। বাগান থেকেই নিয়ে যায়। মাঝে মাঝে আগাছাগুলো পরিষ্কার করলেই হয়। ১২ মাসই লেবুর ফলন পাওয়া যায়। স্থানীয় পাইকারদের পাশাপাশি ঢাকা থেকে পাইকাররা এসে নিয়ে যায়। লেবু বিক্রয়ের পাশাপাশি প্রতিটি গাছ থেকে ২০টা করে কলম চারা গাছ বিক্রয় সম্ভব। প্রতিটি চারা গাছ ৮০ টাকা করে বিক্রয় হয়। যা একসঙ্গে বড় অঙ্কের টাকা। এটা অত্যন্ত লাভজনক।’

বেকার যুবকদের চাকরির পেছনে না ঘুরে পতিত এক একর জমিতে লেবু চাষের পরামর্শ দিয়েছেন সুজন।

তিনি বলেন, ‘সব ধরনের খরচ ছাড়া আড়াই থেকে তিন লাখ টাকা পর্যন্ত আয় করতে পারেন। লেবু চাষের যে খরচ, তা এক বছরেই উঠে আসে। লেবু চাষ করে এমন অভাবনীয় সাফল্য পাওয়ায় সুজন কুমার বর্মন আরও জমিতে বড় পরিসরে চাষের চেষ্টা করছেন।’

পাইকারি বিক্রেতা অজিত বিশ্বাস বলেন, ‘প্রতিদিন আমি ৩০০ থেকে ৪০০ লেবু বিক্রি করি। এই লেবু শরবত ও ভাতের জন্য ব্যাপক চাহিদা। সুজন দাদার লেবু বাগান থেকে আমি সপ্তাহে দুই থেকে তিন হাজার লেবু কিনে নিয়ে যাই। লেবুর চাহিদা বেশি হওয়ায় আমরাও লেবু বিক্রি করে বেশ লাভ পাই। লেবু বাগান করে দাদা বেশ সফল আমি ও তাই ভাবছি নিজে লেবু চাষ করব।’

উদ্যোক্তা সজুনের বাগানে কাজ করে উৎস বর্মন।
তিনি বলেন, ‘আমি স্কুলে পড়ি। পড়াশোনার ফাঁকে লেবু-বাগানে কাজ করি। এখান থেকে কাজ করে যে টাকা পাই, তা দিয়া হাতখরচ ও পড়াশোনার খরচ হয়ে যায়। আগাছা পরিষ্কার করা ও লেবু তোলা তেমন কষ্ট না হওয়ায় আমার বন্ধুরা ও আমার সাথে এখানে কাজ করে।’

প্রতিবেশী সুন্দরী বিশ্বাস বলেন, ‘আমাগে বাড়ির পাশের জমিতে যখন লেবুগাছ লাগায়, ভাবছিলাম খামোখা লেবুগাছ লাগাচ্ছে। কত কথা কইছি। এহন দেহি লেবু সারা বছর ধরে। প্রতি সপ্তায় লোকজন এসে বস্তা ভইরে লেবু কিনে নিয়ে যায়। আমাগে লেবু কিনে খাওয়া লাগে না। আশপাশের সবাই লেবু বাগানের লেবু ফ্রি খায়। এহন দেখতেছি লেবু বাগান করা অনেক লাভ। আমাগে যদি জমি থাকত, আমরাও লেবু বাগান করতাম।’

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর জানায়, এই দুই জাতের গাছে বারো মাসই ফল ধরে। সার-ওষুধ তেমন প্রয়োজন না হওয়ায় এটি অত্যন্ত লাভজনক। নড়াইল জেলায় ২৭ হেক্টর জমিতে লেবুর আবাদ হচ্ছে। নড়াইল সদর উপজেলায় ১৫ হেক্টর জমিতে লেবুর আবাদ হয়। কৃষকের সঙ্গে পাইকারি বিক্রেতাদের সরাসরি বেচাকেনা হওয়ায় মধ্যস্বত্বভোগীদের সুযোগ না থাকায় কৃষক লাভবান হচ্ছেন।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর প্রান্তিক পর্যায়ের কৃষকের কৃষিজমি পরিদর্শন করে প্রযুক্তিগত সহায়তা দিয়ে আসছে। নড়াইলে লেবু জাতীয় ফসল উৎপাদন বৃদ্ধিতে নড়াইল জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করছে।

তারা আশা করেন নড়াইলে লেবু-জাতীয় ফসল উৎপাদন বাড়বে।

সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. রোকনুজ্জামান বলেন, ‘ভিটামিন ‘সি-এর অন্যতম উৎস হিসেবে সবার পরিচিত লেবু জাতীয় ফসলের চাষ নড়াইলে দিন দিন সম্প্রসারিত হচ্ছে। কারণ খুব অল্প খরচে, অল্প পরিশ্রমে, অল্প জমিতে কৃষক লেবু জাতীয় ফসল চাষ করে লাভবান হওয়ার সুযোগ আছে। নড়াইল সদর উপজেলার পানতিতা গ্রামের সফল উদ্যোক্তা সুজন কুমার বর্মনের চায়না থ্রি ও সিডলেস এলাচি (কাগজি লেবু) লেবু চাষের সাফল্যে এলাকার কৃষক লেবু চাষে উদ্বুদ্ধ হচ্ছেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘লেবু চাষ করে যেমন কৃষক মাঠে ফসল উৎপাদন করছেন, তেমনি খেতের আলফসল হিসেবে লেবু চাষে আগ্রহী হচ্ছেন অনেকে। এর অন্যতম কারণ হচ্ছে গাছগুলো যেমন বেড়া হিসেবে কাজ করছে, পাশাপাশি লেবুগুলো বাজারে বিক্রি করে।’

একই রকম সংবাদ সমূহ

পুলিশের সামনে শিক্ষককে অপমান দুঃখজনক, যারই গাফিলতি থাকুক ব্যবস্থা নেয়া হবে

নড়াইলে পুলিশের সামনেই শিক্ষকের গলায় জুতার মালা পরানোর ঘটনা অত্যন্ত দুঃখজনক। এটিবিস্তারিত পড়ুন

নড়াইলের মির্জাপুর কলেজে সৃষ্ট সহিংসতায় ৩জন কারাগারে

নড়াইলে কলেজ ছাত্রের ফেসবুক স্টাটাসের জেরে গত ১৮জুন মির্জাপুর ইউনাইটেড ডিগ্রি কলেজেবিস্তারিত পড়ুন

নড়াইলের একটি আদর্শ ও অনুকরণীয় পরিবার

নড়াইলের একটি আদর্শ ও অনুকরণীয় পরিবার। অবসরপ্রাপ্ত উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ লুৎফরবিস্তারিত পড়ুন

  • নড়াইলে আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগে প্রেমিকা গ্রেফতার
  • নড়াইলে বালু বোঝাই ট্রলির চাপায় মাদরাসা পড়ুয়া ছাত্রের মৃত্যু
  • নড়াইলে নবনির্মিত সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন হস্তান্তরের আগেই ফাটল!
  • পদ্মা ও কালনা সেতু চালু হলে পাল্টে যাবে নড়াইলের আর্থ-সামাজিক অবস্থা
  • কলারোয়া আলিয়া মাদ্রাসায় অধ্যক্ষসহ ৪ পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ
  • নড়াইলে দিন-দুপুরে ব্যবসায়ীকে পিটিয়ে হত্যা
  • নড়াইলের পটু হত্যা মামলার ৩ আসামি র‍্যাব’র অভিযানে গ্রেপ্তার
  • নড়াইলে বাণিজ্যিকভাবে তালের চাষাবাদে লাভবান হচ্ছে চাষিরা
  • নড়াইলে ফুটবল খেলতে গিয়ে খাদ্যনালি ছিঁড়ে যুবকের মৃত্যু
  • নড়াইলের মধুমতী নদীর ওপর নির্মিত কালনা সেতু’ চালু হবে সেপ্টেম্বরে
  • নড়াইলের পল্লীতে জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে কুপিয়ে খুন
  • নড়াইলের নবগঙ্গা নদীতে নির্মাণাধীন সেতুর হেলে যাওয়ায় পিলারের নকশা পরিবর্তন
  • error: Content is protected !!