শনিবার, জুন ৬, ২০২০

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরার সর্বাধুনিক অনলাইন পত্রিকা

পাইকগাছায় নারী কর্তৃক অন্যকে ফাঁসানোর পায়তারা!

পাইকগাছায় স্বামী পরিত্যক্তা যুবতী কর্তৃক হয়রানিমূলক মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে পুলিশ কর্মকর্তা সহ গড়ইখালী বাজার বনিক সমিতির বার বার নির্বাচিত সভাপতি বাবু গাইনের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার জন্যে উদ্যেশ্য প্রণোদিতভাবে ফাঁসানোর ব্যাপক পায়তারা চলছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

জানা যায়, উপজেলার গড়ইখালী গ্রামের পোষ্ট অফিসের রানার সাইদুল গাইনের স্বামী পরিত্যাক্তা মেয়ে রত্না খাতুনের সাথে ২০১৩ সালে ফেসবুকের মাধ্যমে মেহেরপুর জেলার গাংনী উপজেলার সহড়াতলা গ্রামের সৌদি প্রবাসী সুজন বিশ্বাসের সাথে পরিচয় ও প্রেমজ সম্পর্ক গড়ে ওঠে এবং বিভিন্ন সময় সুজন রত্নার কাছে আসা যাওয়া করলে সুজন সম্পর্কে এলাকার লোক জানতে চাইলে রত্না বলে সুজন আমার মামা। কিন্তু কথাবার্তা ও চলাফেরা ছিল প্রেমিক প্রেমিকার মত। ফলে এলাকাবাসীর সন্দেহের চোখে পড়ে যায় ঐ রত্না ও সুজন। ঘটনাটি ২০১৭ সালে, সুজন হঠাৎ একদিন রাতে রত্নার কাছে আসে।

পুলিশ সেদিন এমন অবৈধ সম্পর্কের খবর পেয়ে সাইদুল গাইনের বাড়িতে গিয়ে সুজন নামের বহিরাগত যুবককে আটক করে। সকালে তারা বিয়ের বৈধ কাগজ পত্র নিয়ে থানায় হাজির হবে এমন শর্তে তৎকালীন ওসির নির্দেশে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

অথচ দুই বছর পরে রহস্যজনকভাবে বাবু গাইন ও পুলিশ কর্মকর্তাসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে হুমকি ও ভয় দেখিয়ে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়ার লোভে হয়রানি মূলক মিথ্যা অভিযোগ করে স্বামী পরিত্যক্তা এই যুবতী রত্না।

বর্তমান কয়রা থানার কর্মকর্তা এসসআই শাহাবুদ্দীন জানান, অবৈধ সম্পর্কের খবর পেয়ে ওই দিন রাতে সাইদুল গাইনের বাড়ীতে গিয়ে বহিরাগত সুজন নামের এক ব্যক্তিকে আটক করা হয়। সকালে তারা বিয়ের বৈধ কাগজপত্র নিয়ে থানায় হাজির হবে এমন শর্তে তৎকালীন ওসি স্যারের নির্দেশে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। এ ক্ষেত্রে কোন টাকা দাবী ও গ্রহণের ঘটনা ঘটেনি। এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক গোপন সূত্রে জানা যায় গড়াইখালী গ্রামের আলেক গাইন এর ইন্দোনে রত্না এমন সব কর্মকান্ড করে আসছে। এর আগেও মাসুদ নামের এক যুবকের সাথে রত্নার বিয়ে হয় । পরে মাসুদের কাছ থেকেও অনেক অর্থ হাতিয়ে নিয়ে তাকে পরিত্যাগ করে। সূত্রে আরও জানা যায়, কালাচাঁন এর মূল ইন্দনদাতা।

কালাচাঁন গাইন এর বিরুদ্ধেও রয়েছে নানা অভিযোগ। গড়াইখালি গ্রামের লবনাক্ত পানি খাওয়ার উপযোগী না হওয়ায় প্রদিবন এনজিও থেকে পানি বিশুদ্ধকরণ মেশিন ও পাম্প তৈরির ৩২ লাখ টাকার প্রকল্পের দয়িত্ব দেওয়া হয় কালাচাঁন গাইনকে। অথচ সেখান থেকে উধাও সকল যন্ত্রাংশ সহ পানি পরিশোধন করা মেশিনটিও। গোপন সূত্রে জানা যায় পাম্পের জেনারেটর ও বিভিন্ন যন্ত্রাংশ রাতের আধারে চুরি করে বিক্রি করে দেয় কালাচাঁন। এলাকার প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় থাকায় কালাচাঁনের বিরুদ্ধে ভয়ে কেউই মুখ খুলতে পারেনা এবং পারে না কোনো অভিযোগ করতে। এ ব্যাপারে এলাকাবাসী স্বামী পরিতক্তা রত্নার করা হয়রানি মূলক মিথ্যা, বানোয়াট এ অভিযোগ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন বলে জানিয়েছেন এবং তীব্র নিন্দা ও গভীর ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

একই রকম সংবাদ সমূহ

করোনা ও আম্পান: বিপন্ন মানুষের পাশে সেনাবাহিনী

করোনা এবং ঘূর্ণিঝড় আম্পান মোকাবেলায় চিকিৎসা বঞ্চিত বিপন্ন মানুষের পাশেবিস্তারিত পড়ুন

করোনা এবং আম্পান মোকাবেলায় মানবতার কল্যাণে যশোর সেনানিবাস

করোনা এবং আম্পান মোকাবেলায় জাতীয় জীবনে কঠিন এক সংগ্রামের মধ্যবিস্তারিত পড়ুন

  • মঠবাড়িয়ায় স্কুল শিক্ষার্থী অপহরণ মামলার প্রধান আসামী গ্রেপ্তার
  • চুকনগরে সাংবাদিক কন্যা তিশা জিপিএ-৫ পেয়েছে
  • করোনা ও আম্পান মোকাবেলায় সাহসিকতায় মানবিক পরিচয়ে যশোর সেনানিবাস
  • মানবিক মূল্যবোধ থেকেই মানুষের পাশে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী
  • সাতক্ষীরায় এক হাজার অসহায় পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ এনইউবিটিকে এর উপাচার্যের
  • এসএসসিতে যশোর বোর্ডের শীর্ষে সাতক্ষীরা, দ্বিতীয় খুলনা
  • করোনা ও আম্পান মোকাবেলায় যশোর সেনানিবাস
  • করোনা ও ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের পাশে যশোর সেনানিবাস
  • করোনা ও আম্পানে ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের পাশে সেনাবাহিনী
  • করোনা ও আম্পান মোকাবেলায় যশোর সেনানিবাসের জনসেবামূলক কার্যক্রম অব্যাহত
  • করোনা আর আম্পানের তান্ডবে জামাইষষ্ঠীর দফারফা!
  • করোনা ও আম্পান মোকাবেলায় ভাগ্যবিড়ম্বিত মানুষের পাশে সেনাবাহিনী