বুধবার, নভেম্বর ১৩, ২০১৯

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরার সর্বাধুনিক অনলাইন পত্রিকা

শীতের আগমনী বার্তা নিয়ে প্রকৃতিতে হেমন্ত

হেমন্ত প্রেমী কবি জীবনানন্দ দাশের ‘নির্জন স্বাক্ষর কবিতায় হেমন্ত ধরা দিয়েছে। কবি তার ভাষায় লিখেছেন “যখন ঝরিয়া যাব হেমন্তের ঝড়ে, পথের পাতার মতো তুমিও তখন আমার বুকের পরে শুয়ে রবে?। ঠিক তেমনি শরতের শেষে শীতের আগমনী বার্তা নিয়ে প্রকৃতির দরজায় করা নারছে হেমন্ত।

হেমন্তের আগমনে প্রকৃতি সেজেছে এক অপরুপ সাজে। সন্ধ্যার মৃদু কুয়াশা, হিমেল বাতাস, রাতের রানী শিউলী, সকালে সবুজ ঘাসের মাথায় জমে থাকা শিশির কণাই জানান দিচ্ছে প্রকৃতিতে এসেছে হেমন্ত। হেমন্তর আগমন ঘটলেই যেন শান্ত হয়ে উঠে উত্তপ্ত এই প্রকৃতি। হেমন্তের আগমনে গ্রামের মেঠোপথে সকালে হাঠলেই পা ভিজে যাই শিশির কণাতে। তাই তো হেমন্তের আগমনে রাজগঞ্জের মাঠে মাঠে হেসে উঠেছে সোনালী ধান।

রাজগঞ্জের প্রত্যন্ত অঞ্চলের মাঠে মাঠে পাকাধানের মৌ মৌ সুমৃষ্ট সুভাসে মুখরিত চারিপাশ। আর কয়দিন পরেই কৃষকের ঘরে ঘরে উঠবে রক্তজলকরা সোনালী রোপা ধান আর এই নতুন ধানের চাউল থেকে বাংলার গৃহবধুরা গুরা তৈরী করে নতুন খেজুরের গুড় দিয়ে তৈরী করবে হরেক রকমের বাঙ্গালী পিঠা-পুলি। আসতে শুরু করবে মেয়ে-জামাই। বাংলাদেশ ষড়ঋতুর দেশে প্রতি দুই মাস পর পর প্রকৃতি বদলায় তার রুপ আর রং। তবে জলবায়ু পরিবর্তনের কারনে এখন দুইমাস পর পর ঋতু পরিবর্তন হয়না।

সন্ধ্যার শুরুতেই মৃদুহিমেল বাসাত সাথে সাদা কুয়াশার চাদর ভোরে বাড়ি থেকে বের হলেই রাস্তার দুই ধারের দুর্বার ওপর ঘন শিশির কণা, মাঠে সোনালী রোপা ধানের শীষে শিশিরই জানান দিচ্ছে হেমন্ত প্রকৃতিতে এনে দিয়েছে শীত। শীতের আগমনে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় শুরু হয়েছে লেপ-তোষক তৈরীর কাজ। শুরু হবে হাট-বাজারের পথে ঘাটে চটি পেতে পুরাতন কাপড় বিক্রয়। বাজার গুলিতে উঠতে শুরু করেছে শীতের আগাম সবজি। স্থানীয়রা বলছে, ‘হেমন্ত মানেই যেমন শীতের আগমনী বার্তা।

অপরদিকে গ্রামবাংলার মানুষের জীবনে হেমন্ত মানেই নবান্ন উৎসবের আমেজ। আগে হেমন্ত এলেই এই জনপদের মানুষের মাঝে আনন্দ বিরাজ করতো। গ্রামের পুরুষেরা সকাল থেকে শুরু করে জমিতে নতুন ধান কাটতো আর গৃহবধুরা লালপেড়ে শাড়ী পরে গ্রামের মেঠোপথ ধরে খাবার নিয়ে জমিতে যেতো।

সারাদিনের কাটা ধান রাতভর বাড়ির উঠানে মাড়াই করতো বাড়ির পুরুষেরা আর গৃহবধুরা সেই ধান রোদে শুকিয়ে ঘরে তুলতো। ঢেঁকিতে নতুন ধানের গুড়া তৈরী করে ঐতিহ্যবাহী নতুন খেজুরের গুড় দিয়ে প্রতিটি বাড়িতে বাড়িতে তৈরী হতো পিঠা-পুলি, খির ও পায়েশ আর গ্রাম গুলিতে পালিত হতো নবান্ন উৎসব কিন্তু বর্তমানে আধুনিকতার যুগে কালের আবর্তে এই গুলি এখন সবই যেন পুঁথি কথা হয়ে গেছে।

একই রকম সংবাদ সমূহ

ট্রেন দুর্ঘটনার পুনরাবৃত্তি রোধে সতর্ক থাকার জন্য প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ট্রেন দুর্ঘটনায় প্রাণহানির ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রী শেখবিস্তারিত পড়ুন

মাত্র ৩০ সেকেন্ডের খেসারতে ঝরল এতগুলো প্রাণ

তূর্ণা নিশীথা ট্রেনটিকে আউটার ও হোমে মেইন লাইনে থামার জন্যবিস্তারিত পড়ুন

ট্রেন দুর্ঘটনায় আহত সেই শিশুর পরিচয় মিলেছে

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলায় দুই ট্রেনের সংঘর্ষের ঘটনায় আহত শিশুর পরিচয়বিস্তারিত পড়ুন

  • কসবা ট্রেন দুর্ঘটনা: রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও স্পিকারের শোক
  • তূর্ণা নিশীথার ‘চালকের অবহেলায়’ কসবার ট্রেন দুর্ঘটনা
  • ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দুই ট্রেনের সংঘর্ষে ১৬ জন নিহত
  • নড়াইলে মোহনা টেলিভিশনের ১০ বছরে পদার্পনে র‌্যালি, কেক কাটা অনুষ্ঠান
  • সুন্দরবনে অনুপ্রবেশের অভিযোগে আটক ৪৯
  • জেএসসি-জেডিসির সংশোধিত ৫ পরীক্ষার সময়সূচি
  • নর্দান ইউনিভার্সিটির ২২ শিক্ষার্থী পেলেন চীন সরকারের শিক্ষা বৃত্তি
  • মঙ্গলবারের জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষাও পেছাল
  • সীমান্তে এসে বিজিবি সদস্যদের সঙ্গে ‘আমার সোনার বাংলা’ গাইলেন দেব
  • খালি হচ্ছে ঘূর্ণিঝড়ের নামের ভাণ্ডার, নতুন নাম তৈরিতে ব্যস্ত যে ৮ দেশ
  • বুলবুলকে ‘রুখে দিল’ প্রকৃতির ঢাল সুন্দরবন
  • ৮ জেলায় ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ কেড়ে নিল ১০ প্রাণ