বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২০

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরার সর্বাধুনিক অনলাইন পত্রিকা

শীত বিদায় নিচ্ছে, কাল বসন্ত

ঠান্ডা আগের মতো অনুভূত হচ্ছে না আবার মাঝেমধ্যে হচ্ছে। বেলা যত বাড়ছে, গায়ে গরম পোশাক রাখা বেশ অস্বস্তিকর হয়ে পড়ছে। তবে কি শীত বিদায় নিচ্ছে! ঠিক ধরেছেন, আজ শীতের শেষ দিন। শীতের বিদায়ের পথ ধরে সহাস্যে উঁকি দিচ্ছে ঋতুরাজ বসন্ত। এরইমধ্যে নতুন হাওয়ার ছোঁয়ায় প্রকৃতি নেচে ওঠছে। দুলে ওঠছে মানুষের মন। পাখ-পাখালির মনেও কি শিহরণ জাগছে? হয়তো জাগছে।

পুরনো বাংলা বর্ষপঞ্জি অনুযায়ী বসন্তের প্রথম দিন অর্থাৎ পহেলা ফাল্গুন ছিল ১৩ ফেব্রুয়ারি। কিন্তু বাংলা বর্ষপঞ্জি সংশোধনের পর এক দিন পিছিয়েছে বসন্ত। বাংলা বর্ষপঞ্জি সংশোধনের কাজ করেছে বাংলা একাডেমির গবেষণা, সংকলন এবং অভিধান ও বিশ্বকোষ বিভাগ। তারা জানিয়েছে, সংশোধিত বর্ষপঞ্জিতে বৈশাখ থেকে আশ্বিন পর্যন্ত প্রথম ছয় মাস ৩১ দিন, কার্তিক থেকে মাঘ মাস ৩০ দিন এবং ফাল্গুন মাস ২৯ দিন ধরে গণনা করা হবে। তবে গ্রেগরীয় পঞ্জিকার অধিবর্ষে (লিপ ইয়ার) ফাল্গুন মাস ২৯ দিনের পরিবর্তে ৩০ দিন গণনা করা হবে।

কবি সুভাস মুখোপাধ্যায় লিখেছেন- ‘ফুল ফুটুক আর না ফুটুক/ আজ বসন্ত।’ বসন্তই যদি হবে, ফুল ফুটবে না কেন? ফুল ফোটার প্রতিশ্রুতি নিয়েই তো বসন্ত আসে। এখন অবশ্য বসন্তের আগেই ফুটে নানান ফুল। সুনামগঞ্জের শিমুল বাগান হয়তো চেনেন, এ বছর মাঘের মাঝামাঝিতেই ফুলে ফুলে লাল হয়েছে পর্যটনকেন্দ্রটি। আপনার আশেপাশে আম গাছ থাকলে তাকিয়ে দেখুন না- কত সুন্দর মুকুল ধরেছে।

বসন্ত মানেই নতুন সাজে প্রকৃতি মুখরিত হওয়ার দিন। ফুল ফোটার পুলকিত সময়। শীতের জরাগ্রস্ততা কাটিয়ে নতুন পাতায় ঋদ্ধ হয়ে উঠবে রুক্ষ প্রকৃতি। ফাগুনের ঝিরঝিরে বাতাস আর কোকিলের মিষ্টি কলতানে উন্মাতাল হবে প্রকৃতি। ফুলেল বসন্ত যৌবনের উদ্দামতা বয়ে আনে। আনন্দ আর উচ্ছ্বাস মুখরতায় মন-প্রাণ ভরিয়ে তোলে।

বসন্ত মানেই পূর্ণতা। বসন্ত মানেই নতুন প্রাণের কলরব। কাল অমর একুশে গ্রন্থমেলার শিশুপ্রহরে গেলেই টের পাবেন উচ্ছ্বস; কচিপাতায় আলোর নাচনের মতোই। শাহবাগ, টিএসসি, রমনা, ধানমণ্ডিলেকের চত্বর এদিন বাসন্তী রংয়ের শাড়ি পরা নারী ও বিভিন্ন রংয়ের ফুলে রঙিন হয়ে ওঠে। ফাগুনের প্রথম দিনে বাসন্তী রঙের শাড়ি পরে পথে নামবে তন্বী-তরুণীরা। নতুন ফুলে খোঁপা সাজাবে। অসংখ্য রমণীর বাসন্তী রঙে রঙিন হয়ে ওঠে রাজধানীর রাজপথ, পার্ক, একুশের বইমেলা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সুশোভিত সবুজ চত্বরসহ পুরো রাজধানী। তরুণরাও পরবে বাসন্তী রঙের পোশাক।

এ বসন্তেই ভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে বাঙালির স্বাধীনতার বীজ রোপিত হয়েছিল। বসন্তেই বাঙালি মুক্তিযুদ্ধ শুরু করেছিল। তাই কেবল প্রকৃতি আর মনে নয়, বাঙালির জাতীয় ইতিহাসেও বসন্ত আসে এক বিশেষ মাহাত্ম্য নিয়ে। বসন্ত আসুক সবার হৃদয়ে।

একই রকম সংবাদ সমূহ

যুব ক্রিকেট বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন দলের অলরাউন্ডার মৃত্যুঞ্জয়কে কলারোয়ায় পথে পথে সংবর্ধনা

২০২০ আইসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের অন্যতমবিস্তারিত পড়ুন

ভয়ংকর মাদক ক্রিস্টাল মেথ ঢুকেছে রাজধানীতে

রাজধানীতে প্রবেশ করেছে ভয়ংকর মাদক ক্রিস্টাল মেথ। অতিরিক্ত সেবনে মৃত্যুবিস্তারিত পড়ুন

মুজিববর্ষ উদযাপন করতে গিয়ে বাড়াবাড়ি যেন না করি: ওবায়দুল কাদের

মুজিববর্ষ উদযাপন নিয়ে চাঁদাবাজির দোকান নিয়ন্ত্রণের আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশ আওয়ামীবিস্তারিত পড়ুন

  • ১০৫-এ কল দিলেই এনআইডি সমস্যার সমাধান!
  • বইমেলায় ছাত্রলীগের মাতৃভূমি স্টলে ড. কাজী এরতেজা হাসানের জননেত্রী ‘শেখ হাসিনার ধর্ম চিন্তা’
  • এসএসএফ-কে হোন্ডার দু’টি ফ্ল্যাগশিপ মোটরসাইকেল হস্তান্তর
  • বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে লিখা বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী
  • মেট্রোরেলে চড়ানো শেখাতে নমুনা কোচ ঢাকায়
  • মধু যাচ্ছে জাপানে, ৪০০ মেট্রিক টনের অর্ডার: কৃষিমন্ত্রী
  • বাংলাদেশ ভারতের চেয়ে কোথায় কোথায় এগিয়ে দেখিয়ে দিল হিন্দুস্তান টাইমস
  • সরকারি চাকরিজীবীদের জুন থেকে নতুন সুবিধা
  • ‘কে ভোট দিল, কে দিল না তা বিবেচনা করে না আ.লীগ’ : প্রধানমন্ত্রী
  • কেশবপুরে নৌকার প্রার্থী শাহীন চাকলাদার
  • ডাকঘরে সঞ্চয়ের সুদ হার কমিয়ে অর্ধেক
  • খালেদার জিয়ার কারামুক্তি নিয়ে কাদের-ফখরুল ফোনালাপ