রবিবার, জুন ৭, ২০২০

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরার সর্বাধুনিক অনলাইন পত্রিকা

Rapid IgG/M test এবং দেশপ্রেমিক সাধারণ নাগরিক হিসাবে আমাদের দায়িত্ব

পৃথিবীর অনেক দেশই এখন কোভিড সনাক্তের জন্য দ্রুত, কম খরচে, সবখানেই করা সম্ভব এমন টেস্টের সন্ধান করছে এবং অনেক উন্নত দেশ এটি চালুও করেছে এবং ভাল ফল পাওয়ার প্রত্যাশি। নিয়মিত এই টেস্ট গুলির মডিফিকেশন হচ্ছে এবং নির্ভুল করার চেস্টা অব্যাহত।

আমরা জাতি হিসেবে দেশের বাইরের জিনিসের একটু বেশি মূল্যায়ন করি, দেশি ঠাকুর পায়ে ঠেলে দেয়, বিদেশি কুকুরকে অনেক বড় স্থান দেই। সীমান্ত এলাকায় আমার প্রাকটিসের অভিজ্ঞতা থেকে আমি দেখেছি যখনি আমার কোন প্রেসক্রিপসন ওপারের ডা. দ্বারা ভ্যালিডেট হয়েছে তখনিই কেবল আমি সঠিক ছিলাম এটা তাদের কাছে বিশ্বাস হয়েছে। প্রথম দিকে অনেক কষ্ট লাগলেও এখন সয়ে গেছে। যেদেশে গুনীর কদর হয়না সেখানে গুনী হয়তো জন্ম নিবে কিন্তু তার প্রতিভাকে বিকশিত করতে দেওয়া হবে না। হয়তো মনের দূঃখে একদিন উড়াল দিবে যেখানে তার মেধার মূল্যায়ন হয়। এমন হতে থাকলে ড. বীজন শীল দের মতো প্রতিভাবানদের আর এই দেশে খুজে পাওয়া যাবেনা, কিছু মাছিমারা কেরানীরাই থাকবে। এই সব কষ্টের কথা না বলে আমরা মূল কথায় আসি।

পৃথিবীর কোন টেষ্টই ১০০% নিশ্চিত রেজাল্ট দিতে পারে না। প্রতিটি টেস্টের থাকে নির্দিষ্ট Sensitivity & Specificity. এটার উপর ভিত্তি করে টেস্টটির মানদণ্ড নির্নীত হয়।

Sensitivity বলতে সহজ কথায় আমরা বলতে পারি ১০০ জন নিশ্চিত রোগীর মধ্যে যদি কোন টেষ্ট দিয়ে ৮০ জন কে সনাক্ত করা যায় তাহলে ঐ টেস্টের সেনসিসিটিভিটি হলো ৮০%। সাধারণত Community surveillance এর জন্য বেশি Sensitivity সম্পন্ন টেস্ট করা হয়।

Specificity বলতে সহজ ভাবে বুঝি যদি কোন টেষ্ট এর মাধ্যমে নির্নীত ১০ জনের মধ্যে ৯ জনের প্রকৃত রোগ আছে নিশ্চিত হয় তাহলে ঐ টেস্টের Specifity হলো ৯০%। রোগীদের চিকিৎসার নিমিত্তে Highly Specific Test এর গুরুত্ব অপরিসীম।

রেপিড টেস্টের সংক্রমনের ৭ম দিনের পর থেকে Sensitivity ৮০-৯৫%।

Gonoshasthaya Kendra – GK উদ্ভাবিত করোনাভাইরাস টেস্ট কীট একটা উন্নত ও র‌্যাপিড টেস্ট পদ্ধতি। এটা ডট ব্লট পদ্ধতি ব্যবহার করে খুব অল্প সময়ে সামান্য রক্ত নিয়ে বর্তমান সংক্রমণ (Ig-M) ও অতীত সংক্রমণ (Ig-G) সনাক্ত করতে পারে। পৃথিবীর বেশকিছু প্রতিষ্ঠান এমন টেস্ট প্রস্তুত ও ব্যবহার করছে। ইউরোপ, আমেরিকাতেও এই পদ্ধতি টেস্ট করা হচ্ছে।

এটি সহজে পরীক্ষাযোগ্য (অনেকটা প্রেগনেন্সি টেস্টের যে টেস্টকিট রয়েছে তার মতো), কম খরচ (২৫০-৩০০ টাকা) এবং দেশে উৎপন্ন হওয়ায় সহজলভ্য। তাছাড়া এগুলোর Sensitivity রেটও বেশ ভালো, তবে পরীক্ষা না করে এটা নিশ্চিতভাবে বলা যাবেনা। এবং তাদের বিজ্ঞানীদের Confidence আমি দেখেছি।

আমাদের যেহেতু এখন অনেক PCR proved patients আছে, তাদের সমান্য একটু রক্ত নিয়ে খুব সহজে আমরা পরীক্ষা করে দেখতে পারি, সাথে কিছু সুস্থ মানুষের রক্ত নিয়েও পরিক্ষা করতে পারি, এর নির্ভরযোগ্যতা। যেটা খুব সহজে ও কম সময়ে করা সম্ভব।

এটার জন্য পিসিআর বা জিনেক্সপার্টের মতো ব্যয়বহুল কোন যন্ত্রেরও প্রয়োজন নেই। স্টোরেজের জন্য আলাদা রিফ্রিজারেশনেরও দরকার হয়না; সাধারম রুম টেম্পারেচারেই প্রিজার্ভ করা সম্ভব।

তবে যেহেতু টেস্টটি এ্যান্টিবডির উপর নির্ভরশীল, আর এ্যান্টিবডি কোভিড-১৯ সংক্রমণের সাথে সাথেই উৎপন্ন হয়না, তাই কেউ অতিসম্প্রতি সংক্রমিত হয়ে থাকলে, এই টেস্ট তাদেরকে সনাক্ত করতে ব্যর্থ হবে। তবে সংক্রমনের ৭ম থেকে ১৪ তম দিনের মধ্যেই Ig-M সনাক্ত করতে পারবে।(সাধারণ ডট ব্লট পদ্ধতির টেস্টগুলো এমনই )।

তবে কেউ অতীতে সংক্রমিত হয়ে থাকলে IgG সনাক্ত করে তার ইমিউনিটি পরীক্ষা করা সম্ভব, যেটা এই টেস্টের উপরিপাওনা।

বর্তমান বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে এর উপযোগিতা বেশ ভালোরকমই আছে।এর মাধ্যমে আমরা জানতে পারবো

১) খুব কম সময়ে কম খরচে দেশে সর্বমোট কি পরিমান কোভিড আক্রান্ত রোগী আছে

২) কাদের শরীরে প্রটেকটিভ IgG Antibody তৈরি হয়েছে। তাদেরকে আমরা কর্মক্ষেত্রে আনতে পারবো।

৩) ভ্যাক্সিন তৈরি হয়ে গেলে, এই টেস্টটি অত্যন্ত মূল্যবান হিসেবে দেখা দিবে। কারণ, তখন আমরা চাইব যাদের শরীরে Ig-G নেই তাদেরকে Vaccine দিবো। এ কাজটি এখন পর্যন্ত গণস্বাস্থ্যের টেস্টকিটই করতে সক্ষম।

৪) বর্তমানে কনভালেসেন্ট প্লাজমা থেরাপি কোভিড-১৯ এর সম্ভাব্য চিকিৎসা হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে। এই টেস্টর মাধ্যমে আমরা ঐ সমস্ত ভলেন্টিয়ারদের খুজে বের করতে পারবো।

৫) বর্তমানে আমাদের দেশের গার্মেন্টস সহ বিভিন্ন কলকারখানার মালিকরা শ্রমিকদের কাজ শুরু করতে দেওয়ার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছে।কারখানার মালিকরা তাদের কর্মীদের উপর স্বল্পমূল্যের এই টেস্টটি করে দেখতে পারে কারো মধ্যে IgG তৈরি হয়েছে কিনা। তাদেরকে কারখানায় কাজ করার অনুমতি দেওয়া যেতে পারে। (যদিও কোভিড-১৯ এর ইমিউনোলজিকাল প্রোপার্টি এখনো ওয়েল এসটাবলিশড না; তাই সাবধানতা অবলম্বন করতেই হবে)। কাজেই বাংলাদেশের কারখানা মালিকদের জন্য গণস্বাস্থ্যের এই টেস্ট আশীর্বাদ হিসেবে গণ্য করা যেতে পারে।

আমি বলবো আমরা এখন একটা যুদ্ধময় অবস্থার মধ্যে আছি। ইংরেজিতে একটা কথা আছে Everything is fair in War and Love. বঙ্গবন্ধু কিন্তু ৭ই মার্চের ভাষণে বলেছিলেন যুদ্ধের ময়দানে যার যা কিছু আছে তাই নিয়ে ঝাপিয়ে পড়তে।

মেডিসিন কে আমি শুধু সায়েন্স বলতে নারাজ। এটা কিছু বিজ্ঞান, কিছু কলা, কিছু খটমটে পরিসংখ্যান, কিছু রসায়ন আর কিছু আবেগ ইমোশনের মিশ্রন।

এই অসম যুদ্ধের ময়দানে ড.বীজন শীলদের আশাব্যঞ্জক রসদ আমাদের জন্য আশীর্বাদ স্বরূপ। এই কঠিন সময়ে সব ধরনের ইগোর কথা ভুলে গিয়ে আমরা একটা সুযোগ তাদের দিতে পারি। আমলাতান্ত্রিক কঠিন জটিলতায় তাদের ফেলে দিয়ে প্রতিভাবানদের ইচ্ছা শক্তি অংকুরেই বিনষ্ট না করি।
US FDA এর মতো খুঁতখুঁতে প্রতিষ্ঠান যখন সামান্য কোন পজিটিভ এভিডেন্স পেলেই বর্তমান এই কঠিনতম সময়ে যেকোন নতুন কোন সৃষ্টির অনুমোদন দিচ্ছে সেক্ষেত্রে আমরা কেন গো ধরে বসে থাকবো?

এটি অনুমোদন দিলে আমাদের ক্ষতি হওয়ার কোন সম্ভাবণা নেই। কার্যোকরি কিছু না হলে আমরা বন্ধ ও করে দিতে পারি। তবে এটা অনেক সম্ভাবণার দ্বার উন্মুক্ত করবে বলে আমার দৃঢ় বিশ্বাস। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের যেন শুভবুদ্ধির উদয় হয়, এই কামনায় সমগ্র দেশবাসী।

ডাঃ মোঃ রোকন-উজ-জামান
এমবিবিএস (ডিএমসি), এফসিপিএস (মেডিসিন),
এমডি (নিউরোলজি)
মেডিসিন ও নিউরোমেডিসিন বিশেষজ্ঞ
ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ নিউরোসায়েন্সেস এন্ড হসপিটাল, ঢাকা

একই রকম সংবাদ সমূহ

নিয়মিত ঘি খেলে শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে

অনেকেই ঘি খেতে পছন্দ করেন না। ঘি এড়িয়ে চলেন ওবেসিটি,বিস্তারিত পড়ুন

বিয়ের আগে যেসব স্বাস্থ্য পরীক্ষা জরুরি

বিয়ের আগে শারীরিক সুস্থতা নিশ্চিত করা এবং ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্যবিস্তারিত পড়ুন

আশাশুনিতে ঘূর্ণিঝড় আম্পানে ক্ষতিগ্রস্থ বেঁড়িবাধ নির্মাণ কাজ শুরু করেছে সেনা বাহিনী

আশাশুনিতে ঘূর্ণিঝড় আম্পানে ক্ষতিগ্রসস্থ বেঁড়িবাধ সংস্কাররের কাজ শুরু করেছে বাংলাদেশবিস্তারিত পড়ুন

  • টাকা জমানোর ৫টি কৌশল
  • করোনা আর আম্পানের তান্ডবে জামাইষষ্ঠীর দফারফা!
  • ঘরে বসেই করোনা দমন করতে ড. বিজন শীলের ৬ পরামর্শ
  • করোনাকে দূরে রাখতে পারে যে ১০ খাবার
  • রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে যা খাওয়া জরুরি
  • ভিটামিন ডি’র অভাবই মৃত্যুর বড় কারণ!
  • তরুণ উদ্ভাবক রিয়াজুল দেড় লাখ টাকায় ল্যাম্বরগিনির আদলে তৈরী করছে প্রাইভেটকার! (ভিডিওসহ)
  • করোনার ভয়ে লাঠি দিয়ে মালাবদল, বর-কনের কাণ্ডে হাসির রোল!
  • ‘Herd Immunity’ – একটি আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত
  • লকডাউনে সুস্থ ও সবল থাকতে যা করবেন
  • মাস্ক থেকে সংক্রমণ রোধে বিশেষজ্ঞদের তিন পরামর্শ