শনিবার, জুলাই ১৩, ২০২৪

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরা, দেশ ও বিশ্বের সকল সংবাদ, সবার আগে

ভারতের সঙ্গে চুক্তি-সমঝোতা প্রত্যাখ্যান করেছে বিএনপি

ভারতের সঙ্গে চুক্তি-সমঝোতা প্রত্যাখ্যান করেছে বিএনপি সংবাদ সম্মেলনে কথা বলেন মির্জা ফখরুল
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরে যে ১০টি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে তাকে ‘গোলামির নবতর সংস্করণ’ অভিহিত করে তা প্রত্যাখান করেছে বিএনপি।

রোববার (৩০ জুন) বিকেলে গুলশানে দলের চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে সম্পাদিত চুক্তি ও সমঝোতার নানান দিক তুলে ধরে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দলের এই সিদ্ধান্তের কথা জানান।

তিনি বলেন, জনগণের ভোটাধিকার হরণকারী বর্তমান অবৈধ মাফিয়া সরকারের প্রধান, শেখ হাসিনা ভারতের সঙ্গে যে ১০টি সমঝোতা স্মারক সই করেছে তা গোলামির নবতর সংস্করণ। কানেকক্টিভিটির নামে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ভারতের এক অংশ থেকে আরেক অংশ পর্যন্ত রেল যোগাযোগের নামে করিডোর প্রদানের মাধ্যমে যা করা হয়েছে, তাতে আমাদের সার্বভৌমত্ব ও জাতীয় নিরাপত্তা মারাত্মক হুমকির মুখে পড়বে।

‘আপনাদের নিশ্চয়ই ১৯৭২ সালে ভারতের সঙ্গে স্বাক্ষরিত ২৫ বছরের চুক্তির কথা স্মরণ আছে। ৫২ বছর পর সে ধারাবাহিকতায় গত ২২ জুন ভারতের সঙ্গে সমঝোতার আড়ালে যেসব চুক্তি করা হলো তা বাংলাদেশকে আজীবনের জন্য ভারতের গোলামে পরিণত করবে। এর ফলে আমাদের জাতীয় নিরাপত্তা বিপন্ন হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। আমরা পুনর্ব্যক্ত করতে চাই, সার্বভৌমত্ব, জাতীয় নিরাপত্তাবিরোধী এসব চুক্তি জনগণ কখনো মেনে নেবে না। বিএনপি এসব দেশবিরোধী চুক্তি-সমঝোতা প্রত্যাখান করছে।

গত ২২ জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারত সফরকালে দুই দেশের মধ্যে ১০টি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির উপস্থিতিতে দলিলগুলো বিনিময় করা হয়। সাধারণত এ ধরনের অনুষ্ঠানের আগেই চুক্তিগুলো সই হয় এবং অনুষ্ঠানে সেটি বিনিময় হয়।

দু-পক্ষের মধ্যে চুক্তিগুলো হচ্ছে- ‘বাংলাদেশ-ভারত ডিজিটাল পার্টনারশিপ’ এবং ‘বাংলাদেশ-ভারত গ্রিন পার্টানারশিপ’।

সমঝোতা স্মারকের মধ্যে রয়েছে-‘মেরিটাইম কো-অপারেশন’, ‘মহাকাশ সহযোগিতা’, ‘রেলওয়ে কানেক্টিভিটি’, ‘ওশেনোগ্রাফি সহযোগিতা’ এবং ‘মিলিটারি শিক্ষা সহযোগিতা’।

এছাড়া তিনটি সমঝোতা স্মারক নবায়ন করা হয়েছে। সেগুলো হচ্ছে ‘স্বাস্থ্য ও ওষুধ সহযোগিতা’, ‘দুযোর্গ ব্যবস্থাপনা’ এবং মৎস্য খাতে সহযোগিতা’।

এসব দেশের জন্য বিপদজনক

ভারতের চুক্তি ও সমঝোতার বিভিন্ন বিষয়গুলো দেশের স্বার্থের সম্পূর্ণ বিরোধী উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, এসব চুক্তি-সমঝোতা স্মারকের মাধ্যমে আমাদের দেশের প্রতিরক্ষা ও জাতীয় নিরাপত্তার বিষয়টি ভারতের জাতীয় প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তার অংশে পরিণত করা হয়েছে। যা খুবই বিপজ্জনক এবং দেশের স্বাধীনতার প্রতি হুমকি। এটি শান্তির সহাবস্থান ও জোট নিরপেক্ষ নীতির পরিপন্থি।

‘বস্তুত এসব সমঝোতা চুক্তির মাধ্যমে শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে আঞ্চলিক ভূ-রাজনীতিতে নিরাপত্তার কৌশলগত ‘বাফার স্টেট’ হিসেবে ভারতকে ব্যবহারের সুযোগ দিতে চায়। এর ফলে বাংলাদেশ নিশ্চিতভাবে আঞ্চলিক ভূ-রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বিতার জটিলতার মধ্যে জড়িয়ে পড়বে। যে ৭টি সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে সেগুলোর প্রায় সবগুলোই দেশের উত্তরাঞ্চল কেন্দ্রিক।

প্রয়োজনের সময়ে বাংলাদেশের ভূখণ্ডকে ভারতের সামরিক ও বেসামরিক পণ্য পরিবহনের জন্য কৌশলগতভাবে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ‘চিকেন নেক’কে বাইপাস করে ব্যবহার করার সুদূরপ্রসারী মহাপরিকল্পনা থেকেই এসব চুক্তি করা হয়েছে বলে আমরা মনে করি। দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বকে জলাঞ্জলি দিয়ে শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে দীর্ঘ মেয়াদে ভারতের গোলামি চুক্তির গভীর ফাঁদে ফেলার ঘৃণ্য ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে।’

দেশের প্রাপ্তি শূন্য:

সম্পাদিত চুক্তি ও সমঝোতায় মির্জা ফখরুল বলেন, নানান নাম দিয়ে যে দশটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হলো তাতে বাংলাদেশের প্রাপ্তি শূন্য। দেশের স্বার্থ সংরক্ষণের চাইতে ভারতের কাছে শেখ হাসিনার কৃতজ্ঞতা প্রকাশের দায়বদ্ধতা থেকে এসব স্মারক সই হয়েছে তা জনগণের কাছে স্পষ্ট। এগুলোর সঙ্গে বাংলাদেশের মানুষের আকাঙ্ক্ষা পূরণের ন্যূনতম সংশ্লিষ্টতা নেই।

তিস্তা চুক্তি হলো না:

মির্জা ফখরুল বলেন, এবারের সফরে তিস্তার পানি প্রবাহ বৃদ্ধি এজেন্ডাতেই ছিল না। অথচ এটাই হওয়া উচিত ছিল সর্বেোচ্চ অগ্রাধিকার। ২০১১ সালে ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রীর ঢাকা সফরকালে তিস্তা চুক্তি হওয়ার কথা থাকলেও আজ পর্যন্ত তা বাস্তবায়ন হয়নি। এরপর গত ১৪ বছরে তিস্তা শুকিয়ে মরুভূমিতে পরিণত হলেও এই সংকটের সমাধান হয়নি।

এহেন অবস্থা থেকে পরিত্রাণ পাওয়ার লক্ষ্যে তিস্তা পানি সংরক্ষণ ও ব্যবস্থাপনা প্রকল্প গ্রহণ করা হলো। প্রশ্ন হলো, যাদের বিমাতাসুলভ আচরণের কারণে তিস্তার ন্যায্য পানি থেকে বাংলাদেশ বঞ্চিত হচ্ছে, সেই তাদেরকেই তিস্তার পানি ব্যবস্থাপনায় নিয়োজিত করলে তা যে স্বার্থ সাংঘর্ষিক ও আত্মঘাতী সেটা দেশের মানুষ বোঝে।

ভারত সফর পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া বক্তব্য ‘ভারত যদি তিস্তা প্রজেক্টটা করে দেয়, তাহলে আমাদের সব সমস্যাই তো সমাধান হয়ে গেলো’ এবং তিস্তার পানির অভাবে পর্যুদস্ত অসহায় মানুষের আর্তনাদকে প্রধানমন্ত্রী ‘প্যাঁ প্যাঁ’ বলে আখ্যায়িত করাকে ‘উনি সমগ্র জাতির সঙ্গে তামাশা ও হাস্য-রসিকতা করেছেন’ বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন বিএনপি মহাসচিব।

মির্জা ফখরুল বলেন, এবারে শেখ হাসিনার ভারত সফরটি কার্যত ছিল একপাক্ষিক। এই সফরে স্বাক্ষরিত কিংবা চুক্তি বাংলাদেশের ন্যূনতম স্বার্থ সুনিশ্চিত করে না। সামরিক সহযোগিতার নামে জাতীয় নিরাপত্তাকে হুমকির মুখে ঠেলে দেওয়া হয়েছে। আমরা এই সফরসহ ভারতের সঙ্গে স্বাক্ষরিত সব চুক্তি জনসমক্ষে প্রকাশের দাবি জানাচ্ছি।

দেশের স্বার্থ ঠিক রেখেই সব হতে হবে:

মির্জা ফখরুল বলেন, সড়কপথ, নৌপথ বা রেলপথে যেভাবে কানেক্টিভিটি বাড়ানো হোক না কেন, তাতে জাতীয় স্বার্থকে বিবেচনা করতে হবে সর্বাগ্রে।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সেলিমা রহমান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য ইসমাইল জবিউল্লাহ উপস্থিত ছিলেন।

একই রকম সংবাদ সমূহ

আদালতের রায়ের পর শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের যৌক্তিকতা নেই: ওবায়দুল কাদের

তরুণ শিক্ষার্থীদের আন্দোলনকে পুঁজি করে বিএনপি-জামায়াত অপরাজনীতি এবং ষড়যন্ত্র করছে বলে মন্তব্যবিস্তারিত পড়ুন

ভোট ও গণতন্ত্রের জন্যও শিক্ষার্থীদের লড়াই করার আহবান আমীর খসরুর

কোটা সংস্কার আন্দোলনের মতো দেশে ভোট ও গণতন্ত্রের জন্যও শিক্ষার্থীদের লড়াই করারবিস্তারিত পড়ুন

কোটা আন্দোলনে স্বাধীনতাবিরোধীরা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত: আইনমন্ত্রী

কোটাবিরোধী আন্দোলনে স্বাধীনতাবিরোধীরা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত বলে মন্তব্য করেছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। ICTবিস্তারিত পড়ুন

  • বিএনপির খায়েশ পূরণ হতে দেবে না আওয়ামী লীগ : ওবায়দুল কাদের
  • শিক্ষার্থীরা মনে হয় লিমিট ক্রস করে যাচ্ছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
  • শাহবাগে জড়ো হচ্ছে আন্দোলনকারীরা, সাঁজোয়া যান নিয়ে প্রস্তুত পুলিশ
  • শেখ হাসিনা যেটা ভাবেন, আদালতের রায়ে সেটা চলে আসে: রিজভী
  • কোটাবিরোধী আন্দোলন নিয়ে রাজনীতি হচ্ছে : ছাত্রলীগ
  • গ্রেট হল অব পিপলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উষ্ণ অভ্যর্থনা
  • কোটা ও পেনশন আন্দোলন সতর্কভাবে পর্যবেক্ষণ করছি : ওবায়দুল কাদের
  • খালেদা জিয়ার জন্য দৃশ্যমান কোনো বিক্ষোভ বিএনপি করতে পারেনি: ওবায়দুল কাদের
  • খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবি, দুর্নীতির প্রতিবাদে কর্মসূচিতে যাচ্ছে বিএনপি
  • সবচেয়ে বড় কোটা- ‘চোর কোটা’, ‘দুর্নীতিবাজ কোটা’ : ব্যারিস্টার সুমন
  • যুবদলের নতুন কমিটির সভাপতি মুন্না, সাধারণ সম্পাদক নয়ন
  • আবেদ আলী: পিএসসির গাড়িচালক থেকে থ্রি স্টার হোটেল মালিক!