বৃহস্পতিবার, মে ১৯, ২০২২

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরা, দেশ ও বিশ্বের সকল সংবাদ, সবার আগে

অশনির প্রভাবে বৃষ্টি : মণিরামপুরে মাঠে কেটেরাখা পাকা ধানের সর্বনাশ

ঘূর্ণিঝড় অশনির প্রভাবে সৃষ্টি নিম্নচাপের কারণে সোমবার সকাল ১০টার পর থেকে শুরু হওয়া টানা ৬ ঘন্টার বৃষ্টিতে যশোরের মণিরামপুরের মাঠে মাঠে কেটেরাখা হাজার হাজার বিঘা জমির পাকা বোরো ধান পানির উপর ভাসছে।

ধানচাষিরা বলছেন- আমাদের সকল স্বপ্ন শেষ। বৃষ্টি অবস্থায় মাঠে কাটা ধান সরানো, জালি দেওয়াসহ পলিথিন দিয়ে ঢেঁকে রাখা হয়েছে। কিন্তু ধান ভালো থাকবে কিনা যানিনা।

ঝাঁপা ইউনিয়নের হানুয়ার গ্রামের চাষি রবিউল ইসলাম (৪৫) বলেন- আমাদের হানুয়ার মাঠে কেটেরাখা পাকা ধান এইবার দিয়ে তিনবার ভিজলো। এবার পানির উপর ভাসছে। অনেক ধানের চারা বের হয়ে গেছে। রবিউল ইসলামের বড় চাচা মোজাহার আলী (৬৫) বলেন- ধানের অবস্থা অনেক খারাব। মাঠের পর মাঠ কেটেরাখা পাকা বোরো ধান পানির উপর ভাসছে। হানুয়ার গ্রামের চাষি সামছুর রহমান বলেন- ঈদের পর থেকে মাঠে ধান কাটা, ধান সরানো ও শুকানোর কাজ করেছি। আজকের (সোমবার) বৃষ্টিতে সব কষ্ট মাটি হয়ে গেলো। টানা বৃষ্টি মাথায় নিয়ে ধান বাঁচানোর চেষ্টা করেছি।

বৃষ্টি পরবর্তি সরেজমিনে দেখাগেছে- মণিরামপুর উপজেলার রাজগঞ্জ এলাকার মোবারকপুর, হানুয়ার ও দোদাড়িয়া মাঠে শত শত কিসান তাদের স্বপ্ন বাঁচানোর খুব চেষ্টা করছে। নারী-পুরুষ এক হয়ে মাঠে নেমেছে সারা বছর খেয়ে বেঁচে থাকার খোরাকি বাঁচানোর জন্য।

চালুয়াহাটি ইউনিয়নের মোবারকপুর মাঠে ধান সরানোর কাজ করছে ইবরাহিম হোসেন (৫০) নামের এক চাষি। কথা হয় তার সাথে। তিনি বলেন- কথা বলার সময় নেই। ঈদের আগের দিন থেকে অনেক বৃষ্টি ছিলো। গত দুই-তিন দিন বৃষ্টি না থাকায় আমরা ধান কেটে মাঠে রেখেছিলাম। কিন্তু বাড়ি আনার আগেই সোমবারের বৃষ্টিতে সব সর্বনাশ হয়ে গেছে।

উপজেলার মোবারকপুর গ্রামের কয়েকজন কৃষক বলেছেন- আমাদের কাটা ধান বৃষ্টিতে ভিজে গেছে। এতে এবার আমাদের বোরো চাষে লোকসানসহ অনেক ক্ষতি হবে।

হানুয়ার গ্রামের চাষি সিরাজুল ইসলাম (৪৫) বলেন- কিসান (শ্রমিক) সংকটের কারণে আমাদের ধান কাটতে দেরি হয়েছে। এজন্য এই বৃষ্টিতে ধরা খেয়েছি। তিনি আরও বলেন- আল্লাহর রহমতে এবার বোরো ধানের বাম্পার থেকে বাম্পার ফলন হয়েছিলো। কিন্তু ধানের বর্তমান যে অবস্থা তাতে খুব চিন্তায় আছি।

সিরাজুল ইসলাম বলেন- বাজারে ধানের দামও ভালো ছিলো। কিন্তু পানিতে ভিজে যাওয়া ধান ভালো দামে বিক্রি করতে পারবো কিনা জানিনা।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানাগেছে- চলতি ইরি-বোরো মৌসুমে মণিরামপুর উপজেলা ব্যাপী মোট ২৭ হাজার ৫০০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিলো। জলাবদ্ধতার কারণে অন্তত ৫০০ হেক্টর জমিতে কৃষক ধান চাষ করতে পারেননি চাষিরা। ফলে ২৬ হাজার ৯৬৫ হেক্টর জমিতে বোরো ধান চাষ করা হয়েছে।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে আরও জানাগেছে- আমাদের জানামতে মণিরামপুর উপজেলায় ইতিমধ্যে প্রায় ৬০-৬৫ শতাংশ পাকা ধান কাটা পড়েছে।

একই রকম সংবাদ সমূহ

মণিরামপুরে সড়ক দূর্ঘটনায় পা হারানো গৃহবধূকে ইয়াকুব আলীর আর্থিক সহয়তা

“মানুষ মানুষের জন্য, জীবন জীবনের জন্য, একটু সহানুভূতি কি মানুষ পেতে পারেবিস্তারিত পড়ুন

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের প্রতিটি সেক্টরে দৃশ্যমান উন্নয়ন হয়েছে : স্বপন ভট্টাচার্য্য

মহান স্বাধীনতার স্থপতি সর্বকালের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানবিস্তারিত পড়ুন

এক দু’কেজি বাদাম বিক্রি করেই জীবনটা চলে রাজগঞ্জের মুক্তার আলীর!

মুক্তার আলী (৫০)। জীবনটাই চলেগেলো বাদাম বিক্রি করে। রাজগঞ্জ হাইস্কুল, রাজগঞ্জ প্রাইমারীবিস্তারিত পড়ুন

  • রাজগঞ্জে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে মাদ্রাসা ছাত্রীর আত্মহত্যা
  • দারিদ্র বিমোচনে নিরলসভাবে কাজ করছে সরকার : স্বপন ভট্টাচার্য্য
  • মনিরামপুরের ঝাঁপায় ফলন্ত পটল গাছের সাথে শত্রুতা!
  • মণিরামপুরে ক্ষেত থেকে ভেজা ধান তুলতে ব্যস্ত কৃষকেরা
  • মণিরামপুরের ঋষি পল্লিতে তৈরি টায়ার-টিউবের শিল্পপণ্য বিদেশে রপ্তানির সম্ভাবনা
  • মণিরামপুরে বিশ্ব “মা” দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা
  • দেশের উন্নয়নে শেখ হাসিনার সরকারই সফল : প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য
  • মণিরামপুরে মুক্তিযোদ্ধা, কৃতি শিক্ষার্থী, চাকরিজীবি ও হাফেজদের সংবর্ধনা
  • মণিরামপুরে যথাযোগ্য ধর্মীয় মর্যাদায় উদযাপিত হয়েছে পবিত্র ঈদুল ফিতর
  • মণিরামপুরে বীর মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যু, রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন
  • শেখ হাসিনার যোগ্য নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে : মণিরামপুরে প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য
  • error: Content is protected !!