মঙ্গলবার, এপ্রিল ১৬, ২০২৪

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরা, দেশ ও বিশ্বের সকল সংবাদ, সবার আগে

বেইলি রোড বিল্ডিং এ আগুন থেকে বের হচ্ছি

নিজস্ব প্রতিবেদক:
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ রাজধানীর বেইলি রোডের বাণিজ্যিক ভবনে আগুন না থাকায় গতকাল রাতে আগুন লেগে ৪৬ জন প্রাণহানি ঘটেছে এবং আরো অনেকে আহত হয়েছে বলে অভিযোগ প্রকাশ করেছেন।

“আমরা অগ্নিনির্বাপক যন্ত্রের ব্যবস্থা করেও মানুষ ততটা সচেতন নয়।” আপনি রাজধানীর বেইলি রোডের একটি বহুপুরৈ ভবনে আগুন দেখেছেন যেখানে কোন আগুন বের হয়নি,” তিনি বলেন।

আজ সকালে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) জাতীয় বীমা দিবস-২০২৪ উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী এ বক্তব্য রাখেন।

তিনি বলেন, তার সরকার বারবার নির্দেশ দিয়েছে
যথাযথ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করুন যাতে বিল্ডিংয়ে অগ্নিনির্বাপক যন্ত্র স্থাপন এবং আগুন নির্বাসন অন্তর্ভুক্ত হয়।

“কিন্তু, তারা (বেইলি রোড বিল্ডিং কর্তৃপক্ষ) আদেশ মানেননি,” তিনি বলেন।

প্রধানমন্ত্রী চালিয়ে যান: “পয়তাল্লিশ জন মারা গেছে। এর চেয়ে কষ্ট আর কি হতে পারে? ”

শেখ হাসিনা বলেন, বাড়ি বা ভবনের নকশা প্রস্তুত করলে স্থাপত্যশিল্পীদের খোলা বারান্দা, ফায়ার এক্সিট ও ভেন্টিলেশনের নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

“স্থপতিরা সেই অনুযায়ী নকশা তৈরি করেন না যখন মালিকরা এক ইঞ্চি জমি ছেড়ে দিতে চান না,” তিনি বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বেইলি রোডের অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্ত ভবনটির হয়তো কোনো বীমা নেই, যোগ করে,” সুতরাং, তারা কিছুই পাবে না (বীমা না থাকার কারণে)।

তিনি চালিয়ে যান: “তাই, বীমা সম্পর্কে মানুষের মধ্যে সচেতনতা তৈরি করা জরুরী প্রয়োজন। ”

বিমা বিষয়ে মানুষকে বিশেষ করে সাধারণ মানুষকে করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

“বীমা মানুষকে নিরাপদ জীবন দান করার নিশ্চয়তা দিতে পারে। “কারো যদি বীমা থাকে, তাহলে সে নিশ্চিত হতে পারে যে সে কিছু পাবে,” তিনি বলেন।

যত দ্রুত সম্ভব মানুষের বীমা দাবি পূরণের জন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে দ্রুত পদক্ষেপ নিতে বললেন প্রধানমন্ত্রী।

“প্রকৃত মানুষের বীমা দাবি সঠিকভাবে এবং দ্রুত পরিশোধ করা যেতে পারে বলে ব্যবস্থা গ্রহণ করুন,” তিনি আরো বলেন, মানুষকে এর মাধ্যমে বীমা করতে উত্সাহিত করা হবে।

তবে প্রধানমন্ত্রী কর্তৃপক্ষকে মিথ্যা বীমা দাবি করার জন্য ইচ্ছাকৃতভাবে তৈরি পোশাক কারখানার আগুন লাগানোর কাজ উল্লেখ করে মিথ্যা বীমা দাবি পরিশোধে সতর্ক থাকতে বলেছেন।

বীমা খাতের সার্বিক উন্নয়নে সরকারের পদক্ষেপ সংক্ষিপ্তভাবে বর্ণনা করে তিনি বলেন, তার সরকার বাংলাদেশ বীমা খাতের উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে।

“একবার প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে, এই খাতের পেশাদারিত্ব এবং প্রযুক্তিতে দক্ষতা আরও সমৃদ্ধ হবে,” তিনি বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, তার সরকার ২০০৮ সালের নির্বাচনের ইশতেহার মেনে বাংলাদেশকে ডিজিটাল করেছে এবং এখন 2024 সালের নির্বাচনের ইশতেহার অনুযায়ী স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার চেষ্টা করছে।

“বীমা সমৃদ্ধির দিকে স্মার্টভাবে এগিয়ে যাবে,” তিনি আশা করেন।

একই অনুষ্ঠানে প্রধান মন্ত্রী ব্যাংক থেকে সরাসরি বিমার প্রিমিয়াম প্রদানের সুবিধাযুক্ত ব্যাংকাসুরান্স সেবারও উদ্বোধন করেন।

তিনি ব্যাংক জড়িত বীমা প্রক্রিয়া আরো সহজ করার জন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন যার মাধ্যমে ব্যাংক এবং বীমা উভয় উপকারী হতে পারে।

শেখ হাসিনা বলেন, এই প্রক্রিয়া চালু করার পর মানুষ তাদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে বিমার প্রিমিয়াম দিতে পারবে।

ব্যাংকিং চ্যানেলের মাধ্যমে মানুষের বীমা দাবি পূরণের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

অর্থ মন্ত্রণালয় এবং বীমা উন্নয়ন ও রেগুলেটরি কর্তৃপক্ষ (IDRA) যৌথভাবে এই কর্মসূচি আয়োজন করেছে।

এ বছরের থিম ‘করবো বীমা গর্ব দেশ, স্মার্ট হবে বাংলাদেশ’ নিয়ে সারা দেশের অন্য কোথাও উপযুক্ত ভাবে পালিত হচ্ছে জাতীয় বীমা দিবস-২০২৪।

দুই গ্রুপে প্রবন্ধ রচনা প্রতিযোগিতায় প্রথম দ্বিতীয় ও তৃতীয়দের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করেন প্রধানমন্ত্রী।

বিমা শিল্পের উন্নয়নে অবদান রাখায় প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে দু’টি জীবন ও অ-জীবন বীমা কোম্পানিও সম্মানসূচক ক্রেস্ট পেলেন।

পরে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ফটোসেশনে অংশ নেন পুরস্কার প্রাপ্তরা।

রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ শাহাবুদ্দীন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার পৃথক বার্তা জারি করেছেন।

অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী, এমপি, অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব শেখ মোহাম্মদ সালিম উল্লাহ, আইডিআরএ’র চেয়ারম্যান মোহাম্মদ জয়নুল বারী এবং বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স এসোসিয়েশন (বিআইএ) সভাপতি শেখ কবির হোসেন এ অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন।

অনুষ্ঠানে বিমা খাতের ওপর একটি ভিডিও ডকুমেন্টারি প্রদর্শন করা হয়।

১৯৬০ সালের ১ মার্চ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সেই আলফা ইন্স্যুরেন্স কোম্পানিতে কাজ শুরু করেন। সুতরাং প্রতি বছর ১ মার্চকে জাতীয় বীমা দিবস হিসেবে উদযাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

স্বাধীনতার মহান স্থপতি, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মরণে সরকার “জাতীয় বীমা দিবস” কে ‘বি’ বিভাগ থেকে ‘ক’ বিভাগে উন্নীত করেছে।

একই রকম সংবাদ সমূহ

মুক্তিপণ নয়, আন্তর্জাতিক চাপেই নাবিকরা মুক্ত : নৌপ্রতিমন্ত্রী

সোমালিয়ান জলদস্যুদের হাত থেকে মুক্তিপণ দিয়ে ২৩ নাবিকের মুক্তির কথা জানা গেলেওবিস্তারিত পড়ুন

হাসপাতালের প্রিজন সেলে আসামির হাতে আসামি খুন

বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালের প্রিজন সেলে হত্যা মামলার এক আসামিকেবিস্তারিত পড়ুন

‘৫০ লাখ ডলার দিয়ে’ ছাড়া পেল এমভি আবদুল্লাহ

৫০ লাখ ডলার মুক্তিপণ নিয়ে ২৩ নাবিকসহ সোমালিয়ার জলদস্যুদের হাতে জিম্মি বাংলাদেশিবিস্তারিত পড়ুন

  • ‘একটা মাস কীভাবে কেটেছে, তা বলতে পারব না’
  • আজ পহেলা বৈশাখ ১৪৩১
  • বাংলা নববর্ষ অপশক্তির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে প্রেরণা জোগাবে: প্রধানমন্ত্রী
  • চলতি বছর ছাড়াতে পারে তাপমাত্রার রেকর্ড
  • ডেঙ্গু চিকিৎসায় যেসব পদক্ষেপ নিতে বললেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী
  • ইসরায়েল থেকে ফ্লাইট ঢাকায় নামল যে কারণে
  • পহেলা বৈশাখে হামলার শঙ্কা নেই: ডিএমপি কমিশনার
  • ঈদের ছুটিতেও স্বাস্থ্যসেবায় ব্যাঘাত ঘটেনি : স্বাস্থ্যমন্ত্রী
  • ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে মোদির চিঠি
  • আ. লীগ খেতে নয়, জনগণকে দিতে আসে : প্রধানমন্ত্রী
  • মালয়েশিয়ায় ঈদের দিনে সড়ক দুর্ঘটনায় ৩ বাংলাদেশি নিহত
  • ও মন রমজানের ঐ রোজার শেষে এলো খুশির ঈদ
  • error: Content is protected !!