বুধবার, ফেব্রুয়ারি ২১, ২০২৪

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরা, দেশ ও বিশ্বের সকল সংবাদ, সবার আগে

১০ দিনের রিমান্ড শেষে রিজেন্টের সাহেদ সাতক্ষীরা কারাগারে

১০ দিনের রিমান্ড শেষে সাহেদ করিমকে সাতক্ষীরা আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

বুধবার বেলা ১১টার দিকে কড়া নিরাপত্তা প্রহরায় তাকে সাতক্ষীরার আমলী আদালত-৩ এ নেয়া হয়।
বিচারক রাজীব রায় তাকে সাতক্ষীরা কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

এর আগে রিমান্ডের চতুর্থ দিনে রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মো. সাহেদ ওরফে সাহেদ করিমকে ২৯ জুলাই খুলনার র‌্যাব কার্যালয় থেকে তার গ্রেপ্তারস্থল সাতক্ষীরার সীমান্তবর্তী শাখরা-কোমরপুর এলাকায় নিয়ে যাওয়া যায়। বিকেলে তাকে লাবণ্যবতি নদীর ওপর নির্মিত বেইলি ব্রিজের ওপর মিনিট দশেক রাখা হয়। পরে তাকে আবারো খুলনায় র‌্যাব-৬ এর সদর দপ্তরে নিয়ে যাওয়া হয়।

তবে তদন্তের স্বার্থে রিমান্ডের প্রাপ্ত তথ্য না জানানো হলেও দায়িত্বশীল সূত্রে জানা গেছে, সাহেদ করিম মাঝে মাঝে খুব ক্ষ্যাপাটে আচরণ করছেন। আবার কখনো কখনো ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণ করছেন। তবে গ্রেপ্তার হওয়ার আগে সাতক্ষীরায় তার অবস্থান ও অস্ত্রসহ বিভিন্ন বিষয়ে তিনি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে তিনি তথ্য দিয়েছেন।

এ বিষয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা র‌্যাব-৬ সাতক্ষীরা ক্যাম্পের এসআই রেজাউল ইসলাম জানান, গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে, তবে অধিকতর তদন্তের স্বার্থে প্রকাশ করা সমীচীন হবেনা।

দেবহাটা উপজেলার কোমরপুর সীমান্তে অস্ত্র ও গুলিসহ গ্রেপ্তার হওয়া রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মো. সাহেদ ওরফে সাহেদ করিমকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গত রোববার ১০ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন সাতক্ষীরার আমলী আদালত-৩ এর বিচারক (ভার্চুয়াল) রাজীব রায়। মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা খুলনা র‌্যাব-৬ এর সাতক্ষীরা ক্যাম্পের উপপরিদর্শক রেজাউল করিমের ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন শুনানী শেষে এ আদেশ দেন। পরের দিন সোমবারই তাকে ঢাকা থেকে খুলনা র‌্যাব কার্যালয়ে নিয়ে আসা হয়।

এর আগে ১৫ জুলাই বুধবার ভোরে সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজেলার কোমরপুর সীমান্তের লাবন্যবতী নদীর উপর নির্মিত বেইলী ব্রীজ এর নীচ থেকে সাহেদকে বোরখা পরিহিত অবস্থায় গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। এ সময় তার কাছ থেকে একটি পিস্তল ও তিন রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়। এরপর তাকে হেলিকপ্টারে করে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়। ওই দিন রাতে র‌্যাব-৬ এর সিপিসি-১ এর ডিএডি নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে ১৯৭৮ সালের আর্মস অ্যাক্টের ১৯-এ উপধারা এবং ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনের ২৫ এর বি/এ ধারায় দেবহাটা থানায় একটি মামলা(৫নং) করেন। মামলায় সাহেদ করিমসহ তিনজনকে আসামী করা হয়।

একই রকম সংবাদ সমূহ

লায়লা পারভীন সেঁজুতি এমপিকে তিন সংগঠনের পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা

নিজস্ব প্রতিনিধি: দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রীবিস্তারিত পড়ুন

সদর উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী ভুমিহীন নেতা কওছার আলীর গণসংযোগ ও লিফলেট বিতরণ

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ ভুমিহীন ও অসহায় গরীব মানুষের নায্য অধিকার আদায় ও উন্নয়নেরবিস্তারিত পড়ুন

কালিগঞ্জের ইছামতি নদী থেকে অজ্ঞাত ব্যক্তির লাশ উদ্ধার

মো: আবু বক্কর সিদ্দিক, কালিগঞ্জ (সাতক্ষীরা): সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ উপজেলার সীমান্তে কালিন্দী-ঈছামতি নদীরবিস্তারিত পড়ুন

  • সাতক্ষীরা সদর উপজেলা প্রশাসনের মাসিক সভা অনুষ্ঠিত
  • সৃজনী মহিলা লোককেন্দ্র কর্তৃক শীতার্ত মানুষের মাঝে কম্বল বিতরণ
  • উন্নয়নের লক্ষ্যে গৃহীত পদক্ষেপে ন্যায়বিচার নিশ্চিতের আহ্বান ককাস কমিটির
  • আশাশুনিতে বাগালী প্রাইমারি স্কুলের ম্যানেজিং কমিটি বাতিলের দাবিতে স্মারকলিপি প্রদান
  • নড়াইলে রেলস্টেশন নির্মাণ কাজের অগ্রগতি পরিদর্শন করেন সেনাপ্রধান এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ
  • শিল্প-সংস্কৃতি যুব সমাজকে ক্রাইম থেকে দূরে রাখে এসপি মেহেদী হাসান
  • কলারোয়া কৃষি ব্যাংকে গ্রাহক সেবা উন্নয়নে মতবিনিময় সভা
  • সংরক্ষিত নারী আসনে সবার মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা
  • গাজীপুরে ট্রাক-অটোরিকশা সংঘর্ষে নিহত ৩
  • সাতক্ষীরার পাঁচ এমপি ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করলে উন্নয়নের জোয়ার বইবে- এমপি আশু
  • চট্টগ্রামে ৪ মাদ্রাসা ছাত্রকে ধর্ষণ, শিক্ষকের মৃত্যুদণ্ড
  • সংরক্ষিত ৪৮ আসনে আ. লীগের মনোনয়ন জমা
  • error: Content is protected !!