শনিবার, জুলাই ১৩, ২০২৪

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরা, দেশ ও বিশ্বের সকল সংবাদ, সবার আগে

মনিরামপুরের রাজগঞ্জ অঞ্চলে স্যালো মেশিনের পানি দিয়ে আমন রোপন

মনিরামপুরের রাজগঞ্জ অঞ্চলের চাষীরা আমন আবাদ করার জন্য জমি প্রস্তুত করতে গভীর নলকুপের পানি ব্যবহার করছেন। এই শ্রাবণ মাসেও বৃষ্টির পানির অভাবে চলতি আমন ধান রোপন মৌসুমে রাজগঞ্জ অঞ্চলের কৃষকরা নাজেহাল হয়ে পড়ছেন। আষাঢ়-শ্রাবণ মাসেও প্রয়োজন মতো বৃষ্টি না হওয়ায় ধানের চারা রোপন করতে পারছেন না। তাই বাধ্য হয়ে স্যালো মেশিন থেকে ঘন্টা চুক্তি পানি নিয়ে ধান রোপন করছেন তারা।

রাজগঞ্জ অঞ্চলের মাঠে মাঠে যেয়ে দেখা গেছে, কৃষকরা স্যালো মেশিনে পানি তুলে জমিতে দিচ্ছে। কৃষকরা বলেন, আমন চাষের এই ভর মৌসুমে কাংখিত বৃষ্টির দেখা নেই। যে টুকু বৃষ্টি হচ্ছে, তাতে জমি পাকানো যাচ্ছে না। তাই স্যালো মেশিনের উপর ভরসা করতে হচ্ছে। রাজগঞ্জ অঞ্চলের মাঠে মাঠে এই বর্ষা মৌসুমে গভীর এবং অগভীর নলকুপের সব গুলোই পুরোদমে চলছে।

কৃষি বিভাগ বলছে, বৃষ্টি কম হওয়ায় এই অঞ্চলের চাষীরা স্যালো মেশিনের পানি দিয়ে জমি পাকানোর কাজ করছে। তবে এখনও আমন মৌসুমের সময় আছে। আগামীতে বৃষ্টি হলে নেই সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।

রাজগঞ্জের রোহিতা, খেদাপাড়া, হরিহরনগর, ঝাঁপা, চালুয়াহাটি ও মশ্বিমনগর এই ইউনিয়ন গুলোর মাঠ ঘুরে দেখা গেছে, মাঠে ধান রোপণের জন্য পর্যাপ্ত পানি নেই। পানির জন্য স্যালো মেশিন চালিয়ে পানি তুলতে হচ্ছে। স্যালো মেশিন মালিকদের নিকট থেকে ১২০-১৬০ টাকা ঘন্টা চুক্তিতে পানি ক্রয় করতে হচ্ছে চাষীদের। ফলে কৃষকরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন।
এক দিকে কৃষি পণ্যের দাম কম, তারপরও যদি শুরুতেই পানি ক্রয় করে ধান রোপন করতে হয় তাহলে কৃষকের লোকসানের পরিমাণটা অনেক গুন বৃদ্ধি পাবে বলে হতাশা প্রকাশ করেছেন কয়েকজন কৃষক।

কথা হয় ঝাঁপা ইউনিয়নের হানুয়ার গ্রামের কৃষক শাহাজান কবির সঙ্গে।
তিনি বলেন, কৃষক ধান চাষের মৌসুম পায় তিনটি। বোরো, আউস ও আমন। বোরো ধান চাষ করতে হয় শীতের সময়। তাই বোরো চাষ করতে হয় স্যালো ম্যাশিনের পানি দিয়ে। ফলে খরচ হয় অনেক বেশি। বৃষ্টি না হওয়ার কারণে আউস চাষ এখন আর হয় না। তাই লাভের আশা করতে হয় আমন চাষে। কিন্তু চলতি বছরে আষাঢ়-শ্রাবণ মাসেও কাংখিত বৃষ্টির দেখা নেই। ফলে ধান রোপণে খুব বিপদে আছি।

ঝাঁপা গ্রামের কৃষক আসমত আলীসহ কয়েকজন জানান, যদি পানি কিনে ধান রোপন করতে হয়, তাহলে কৃষকের লোকসানের পরিমাণ অনেক বেশি হবে।

এদিকে উপজেলা কৃষি অফিস বলছে, আকাশের পানি আর স্যালো মেশিনের পানির মধ্যে কোনো পার্থক্য নেই। তবে স্যালো মেশিনের পানি দিয়ে আমনের আবাদ করলে কৃষকের উৎপাদন খরচ বৃদ্ধি পাবে।

একই রকম সংবাদ সমূহ

মনিরামপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় একজন নিহত

হেলাল উদ্দিন, মনিরামপুর (যশোর) : যশোরের মনিরামপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় আব্দুল্লাহ (২২) নামেরবিস্তারিত পড়ুন

মনিরামপুরে ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান ঈদগাহ ভাংচুর করার প্রতিবাদে ও বিচারের দাবিতে মানববন্ধন

হেলাল উদ্দিন, মনিরামপুর: যশোরের মনিরামপুর উপজেলার ঝাঁপা ইউনিয়নের জোঁকা গ্রামে রশীদ মাষ্টারেরবিস্তারিত পড়ুন

‘পুলিশের চাকরিকে ইবাদত মনে করি, এ কাজের মাধ্যমে জান্নাতে যেতে চাই’

চাকরিকে রুটি-রুজির পাশাপাশি ইবাদত মনে করেন যশোর জেলার নতুন পুলিশ সুপার মো.বিস্তারিত পড়ুন

  • দুই হাতের কনুই দিয়ে লিখে এইচএসসি পরীক্ষা দিচ্ছে মনিরামপুরের জাহিদুল
  • কোটা আন্দোলন: ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন যবিপ্রবির ২৭ বিভাগের শিক্ষার্থীদের
  • মনিরামপুরের খেদাপাড়া থেকে কৃষকের তিনটি গরু চুরি
  • কেশবপুরে দুই সাজাপ্রাপ্ত আসামিসহ ছ’জন গ্রেফতার
  • বেনাপোল কাস্টম হাউস’ (২০২৩-২৪) অর্থবছরে লক্ষ্যমাত্রা কমিয়ে বেশি আয় করেছে
  • কেশবপুরে ক্রয়কৃত জমি জোরপূর্বক দখল করে দোকানঘর ভাংচুরের অভিযোগ
  • কলারোয়া নিউজে সংবাদ প্রকাশের পর প্রতিবন্ধী আনারুলের পাশে দাঁড়ালেন আমেরিকা প্রবাসী বিকু মল্লিক
  • যশোরের রাজগঞ্জে বেড়েছে মোবাইলে জুয়া খেলা
  • মনিরামপুরে স্ত্রীকে গলাকেটে হত্যার চেষ্টার পর স্বামীর আত্মহত্যা!
  • বেনাপোল স্বলন্দরে চাঁদাবাজি বন্ধে ১১ প্রতিষ্ঠানকে চিঠি
  • অনলাইনে চমকপ্রদ বিজ্ঞাপনের ফাঁদ, তরুণীদের দিয়ে দেহ ব্যবসা
  • নারী কেলেঙ্কারীর অভিযোগে যশোর জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক তরিকুলকে অব্যাহতি