মঙ্গলবার, জানুয়ারি ১৮, ২০২২

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরা, দেশ ও বিশ্বের সকল সংবাদ, সবার আগে

আন্দোলনের মুখে অপসারিত হলো সাতক্ষীরা জজ কোর্ট ও ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টের মধ্যকার প্রাচীর

অবশেষে আইনজীবী, আইনজীবী সহকারি, নাগরিক সমাজ, রাজনীতিবিদ ও সাংবাদিকদের আন্দোলনের মুখে অপসারিত হলো জজ কোর্ট ও চিফ জুডিশিয়াল কোর্টের মধ্যকার কালেক্টরেট চত্বরের আংশিক প্রাচীর।

সোমবার দুপুর ১২ টায় সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এসএম মোস্তফা কামাল, জেলা ও দায়রা জজ শেখ মফিজুল ইসলাম ও পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান এবং স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের সাতক্ষীরা শাখার নির্বাহী প্রকৌশলী শাকিউল আযমসহ আইনজীবী সমিতির সাবেক ও বর্তমান কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে এ প্রাচীর অপসারণ করা হয়।

সাতক্ষীরা জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এড. আবুল হোসেন (২) জানান, ২০০৭ সালের আগষ্ট মাসে বিচার বিভাগকে নির্বাহী বিভাগ থেকে পৃথক (জুডিশিয়াল সেপারেশন) করা হয়। পরবর্তীতে ২০১২ সালে তৎকালিন আইনমন্ত্রী মোঃ কামরুল ইসলাম জুডিশিয়াল আদালতের ১০ তলা ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করেন।

২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে বর্তমান আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বিচারিক আদালতের কার্যক্রম উদ্বোধন করেন। তিনি আইনজীবী ও বিচারপ্রার্থীদের দুর্ভোগের কথা মাথায় রেখে কালেক্টরেট চত্বরের প্রাচীরের আংশিক অপসারণ করে সেখানে জজ কোর্ট ও জুডিশিয়াল কোর্টের মধ্যকার যোগাযাগকারি করিডর নির্মাণের ব্যাপারে সাতক্ষীরাবাসিকে আশ্বস্ত করেন।

সাতক্ষীরা জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এড. এম শাহ আলম জানান, জুডিশিয়াল কোর্টে বিচার শুরু হওয়ার পর কালেক্টরেট চত্বরের জজ কোর্ট থেকে জুডিশিয়াল কোর্টে আসার জন্য প্রধান সড়কের উপর দিয়ে যাতায়াত করতে হতো আইনজীবী, আইনজীবী সহকারি, বিচারপ্রার্থী ও বিচার ব্যবস্থার সঙ্গে জড়িত সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারিদের।

এতে অনেকে দুর্ঘটনার শিকার হন। ফলে কালেক্টরেট চত্বরের ডবল প্রাচীরের অংশ বিশেষ অপসারণ করে যাতায়াতের জন্য সেখানে করিডর নির্মাণ করা সময়ের দাবি হয়ে দাঁড়ায়। এ জন্য তার নেতৃত্বে আইনজীবী সমিতি কয়েকবার মানববন্ধন কর্মসুচিসহ বিভিন্নর কর্মসুচি পালন করে। আইনমন্ত্রণালয়, গর্ণপুর্ত বিভাগ ও জনপ্রশাসন মন্ত্রানালয়ে তারা চিঠি লিখেছেন।

বিষয়টি তিনটি মন্ত্রণালয়ের এখতিয়ার হওয়ায় তাদের আন্দোলন সফলতা পাচ্ছিল না। সর্বপরি চলতি বছরের ২ মার্চ জেলা আইনজীবী সমিতি ও জেলা নাগরিক কমিটির যৌথ ব্যানারে জজ কোর্টের সামনে কালীগঞ্জ- সাতক্ষীরা সড়কে এক মানববন্ধন কর্মসুচি পালিত হয়। এ কর্মসুচিতে ১৭ মার্চের মধ্যে কালেক্টররেট চত্বরের প্রাচীর অপসারিত করে চলাচলের রাস্তা উন্মুক্ত করা না হলে আদালত বর্জনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

এমনকি ২২মার্চের মধ্যে সাতক্ষীরাবাসীকে নিয়ে প্রাচীর অপসারণ করে যাতায়াতের রাস্তা উন্মুক্ত করার কর্মসুচিও ঘোষণা করা হয়। তার সভাপতিত্বে মানববন্ধন চলাকালে বক্তব্য দেন, সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক এড. তোজাম্মেল হোসেন তোজাম, বর্তমান সভাপতি এড. আবুল হোসেন(২), সাধারণ সম্পাদক এড. রেজোয়ান উদ দৌলা সবুজ, অধ্যক্ষ আব্দুল হামিদ, জেলা নাগরিক কমিটির আহবায়ক অধ্যাপক আনিসুর রহিম, সদস্য সচিব এড. আবুল কালাম আজাদ, সুনাম কমিটির জেলা শাখার আহবায়ক এড. সোমনাথ ব্যাণার্জী, আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক এড. ওসমান গনি, মুক্তিযোদ্বা এড. ইউনুস আলী, বাংলাদেশ ওয়ার্কার্স পার্টির সাতক্ষীরা শাখার সম্পাদক এড. ফাহিমুল হক কিসলু, বাসদের এড. শেখ আজাদ হোসেন বেলাল, জাসদের সুধাংশু শেখর সরকার, ওবায়দুস সুলতান বাবলু, গণফোরামের আলী নূর খান বাবুল, এড. তামিম আহমেদ সোহাগ, এড. সায়েদুজ্জামান সায়েদ প্রমুখ।

এড.এম শাহ আলম আরো বলেন, বিচারপ্রার্থী, আইনজীবী ও আইনজীবী সহকারিদের দুর্ভোগের কথা মাথায় রেখে সমস্যা সমাধানে যথেষ্ট আন্তরিক হন জেলা ও দায়রা জজ শেখ মফিজুল ইসলাম। একপর্যায়ে তারই আন্তরিক প্রচেষ্টায় সাতক্ষীরাবাসীর বহুদিনের স্বপ্ন সফল হয়। এরই ধারাবাহিকতায় সোমবার দুপুর ১২টায় কালেক্টরেট চত্বরের অংশ বিশেষ অপসারণ করে করিডর নির্মাণের কাজ প্রশস্ত হয়।

কালেক্টরেট চত্বরের প্রাচীরের অংশ বিশেষ ভাঙার কাজ শুরু হওয়ার পর সাতক্ষীরার জেলা ও দায়রা জজ শেখ মফিজুল ইসলাম বলেন, বিচারপ্রার্থী আইনজীবী ও আইনজীবী সহকারিদের সমস্যার কথা মাথায় রেখে তিনি কয়েক মাস আগে আইনমন্ত্রণালয়, গণপুর্ত মন্ত্রণালয় ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে চিঠি লেখেন। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন সাপেক্ষে মহামান্য রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদের কাছে পৌঁছায়।

তারই অনুমোদন সাপেক্ষে কালেক্টরেট চত্বরের প্রাচীরের অংশ বিশেষ অপসারন সংক্রান্ত একটি চিঠি গত ৫ জুন তিনি হাতে পান। ওই চিঠিতে থাকা নির্দেশনা অনুযায়ি তিনি সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এসএম মোস্তফা কামাল, জেলা পুলিশ সুপার মোঃ মোস্তাফিজুর রহমানকে সাথে নিয়ে প্রাচীর অপসারণের কাজ শুরু করেন।

জেলা ও দায়রা জজ আরো বলেন, করিডোর স্থাপনের ফলে জজ কোর্ট ও জুডিশিয়াল কোর্টের মধ্যকার দূরত্ব কমে যাবে। তাতে যাতায়াতে সুবিধা হবে আইনজীবী ও বিচারপ্রার্থীদের। যাহা ন্যয় বিচার প্রতিষ্ঠায় অনন্য ভূমিকা রাখবে।

একই রকম সংবাদ সমূহ

শ্যামনগরে ইউনিয়ন কমিটি থেকে বহিষ্কার হয়েও স্থান পেলেন উপজেলা আ.লীগের কমিটিতে

সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার রমজাননগর ইউনিয়ন আ.লীগের সহ সভাপতির পদ থেকে সাময়িক বহিষ্কারবিস্তারিত পড়ুন

সাতক্ষীরায় শিক্ষকের ভুমিকায় ইউপি চেয়ারম্যান, নিলেন ১০ম শ্রেণির গণিত ক্লাস

সাতক্ষীরার সদর উপজেলার সোনার বাংলা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের গণিত ক্লাসবিস্তারিত পড়ুন

কৃতি ছাত্রছাত্রীদের সংবর্ধনা দিয়ে প্রশংসায় ভাসছেন চেয়ারম্যান মিলন

সাতক্ষীরা সদরের আগরদাঁড়ী ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে ২০২১ সালের এসএসসি ও দাখিলবিস্তারিত পড়ুন

  • সাতক্ষীরায় হাফিজিয়া মাদ্রাসা এতিমখানায় সোয়েটার দিলো রোটারী ক্লাব
  • কলারোয়ায় জমিজমা বিরোধে অন্তস্বত্বা গৃহবধুকে মারপিটের অভিযোগ
  • সাতক্ষীরায় বারী সরিষার মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত দিবসে ড রৌফ
  • সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত
  • রোটারী ক্লাব অব সাতক্ষীরা’র পক্ষ থেকে শিশুদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ
  • সাতক্ষীরার আগরদাঁড়ী ইউপির উদ্যোগে কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা
  • সাতক্ষীরায় এমপি রবিকে শুভেচ্ছা জানিয়েছে সিটি কলেজের নতুন সভাপতি মকসুমুল হাকিম
  • শীতার্ত মানুষের মাঝে ইয়ুথ সাতক্ষীরা’র কম্বল বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন
  • সাতক্ষীরার আবাদেরহাটে পিচের রাস্তায় কাদা আছাড় খেয়ে ইউপি সদস্য আহত
  • এমপি রবিকে ফুলের শুভেচ্ছা জানালো সাতক্ষীরা জেলা জুয়েলার্স সমিতির
  • করোনা রোধে ইউপি চেয়ারম্যান ও সদস্যদের অগ্রণী ভূমিকা রাখতে হবে : এমপি
  • আগরদাড়ীর ৭নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আহত
  • error: Content is protected !!