কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরা, দেশ ও বিশ্বের সকল সংবাদ, সবার আগে

দীর্ঘ ৪০ বছর পর সাতক্ষীরায় যেভাবে সময় কাটছে একলিমার

৪০ বছর আগে হারিয়ে যাওয়া একলিমা বেগম বাংলাদেশে এসেছেন। তাকে দেখতে প্রতিনিয়ত মানুষজন ভিড় করছেন। সবমিলে অনেক ব্যস্ত সময় পার করছেন একলিমা বেগম ও তার দ্বিতীয় পক্ষের ছেলে মোহাম্মদ আশরাফুল।

মরিয়ম বেগম নামে এক নারী বলেন, ৪০ বছর পর একলিমা ফিরে এসেছে জানতে পেরে তাকে দেখতে এসেছি। আমার মতো অনেক লোকজন আসছে।

একলিমা বেগমের ভাতিজা মোবারক হোসেন বলেন, আমার ফুফু ৪০ বছর পরে দেশে ফিরেছে। প্রতি মুহূর্তে লোকজন বাড়িতে আসছে। সকাল থেকে শুরু করে রাত পর্যন্ত বিভিন্ন এলাকা থেকে লোকজন আসছে। প্রতিবেশী ও আত্মীয়-স্বজনরা দাওয়াত করে খাওয়াচ্ছেন। লোকজন এত বেশি আসছে যে খাওয়ার সুযোগ পাচ্ছি না আমরা। সবাই এসে ফুফুর সঙ্গে কথা বলছে। ফুফু বাংলা বুঝতে পারছেন কিন্তু বাংলা বলতে পারছেন না।

একলিমার পাকিস্তানের দ্বিতীয় পক্ষের বড় ছেলে মোহাম্মদ আশরাফুল বলেন, বাংলাদেশের অনেক গল্প শুনেছি। তবে এখানকার মানুষ এত বেশি অতিথিপরায়ণ সেটা না আসলে জানতে পারতাম না। মাকে নিয়ে বিভিন্ন আত্মীয়-স্বজনের বাড়িতে ঘুরছি। সব কিছু মিলে খুব ব্যস্ত সময় পার করছি। বাংলাদেশি খাবারগুলো বেশ মজাদার। নিত্য-নতুন খাবার খেতে পেরে বেশ ভালো লাগছে। তাছাড়া অপরিচিত মুখগুলো দেখতে দেখতে সবাইকে এখন আপন লাগছে।

একলিমা বেগম বলেন, সব সময় লোকজন আসছে। সকালে ঘুম থেকে উঠার আগেই লোকজন এসে ভিড় করছে। এভাবেই সারা দিন লোকজনের সমাগম থাকছে। কিছু কিছু মানুষকে চিনতে পারছি। পরিচিত মুখগুলো দেখতে পেরে তৃপ্তি পাচ্ছি। আগামী ২৫ দিন বাংলাদেশে থাকব, তারপর পাকিস্তান ফিরতে হবে। তবে যাতায়াত থাকবে বাংলাদেশে।

খলিলনগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রণব ঘোষ বলেন, একলিমা বেগম দীর্ঘ বছর পরে স্বজনদের কাছে ফিরে এসেছে। বিষয়টি বেশ আনন্দের। এদিকে একলিমা বেগমের পাকিস্তান থেকে ফিরে আসাকে কেন্দ্র করে উপজেলাসহ বিভিন্ন অঞ্চল থেকে লোকজন দেখতে আসছে। মাকে ফিরে পেয়ে একলিমার তিন সন্তান অনেক খুশি।

প্রসঙ্গত, ১৯৮২ সালের কোনো এক দিন হারিয়ে যান একলিমা বেগম। পরিবারের সদস্যরা অনেক খোঁজাখুঁজি করেও সন্ধান পায়নি তার। অবশেষে চার মাস আগে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের কল্যাণে সন্ধান মেলে একলিমার। একলিমা বেগম (৬৫) সাতক্ষীরার তালা উপজেলার গঙ্গারামপুর গ্রামের মৃত ইসমাইল শেখের মেয়ে ও তিন সন্তানের জননী। স্বামীর মৃত্যুর পর মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেছিলেন তিনি। দীর্ঘ ৪০ বছর পর পাকিস্তানের শিয়ালকোটের দিলওয়ালীতে খোঁজ মেলে তার। কিভাবে তিনি সেখানে পৌঁছালেন সেটি বলতে পারেনি কেউ।

দীর্ঘ ৪০ বছর পর বৃহস্পতিবার (১০ নভেম্বর) দুপুর ১২টায় শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আসেন তিনি। পরবর্তীতে একই দিন দুপুর ৩টায় সাতক্ষীরার তালা গঙ্গারামপুর গ্রামে পৌঁছায় একলিমা। তার সঙ্গে তার দ্বিতীয় পক্ষের বড় ছেলে মোহাম্মদ আশরাফুল এসেছেন। এত বছর পর একলিমাকে কাছে পেয়ে আপ্লুত তার স্বজনরা। এলাকাবাসী তাকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেয়।

একই রকম সংবাদ সমূহ

সাতক্ষীরায় প্রয়াত সাংবাদিক সুভাষ চৌধুরী স্মরণে নাগরিক শোকসভা

সাতক্ষীরায় প্রয়াত সাংবাদিক সুভাষ চৌধুরী স্মরণে নাগরিক শোকসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার সকালেবিস্তারিত পড়ুন

সাতক্ষীরা সিটি কলেজের ১৬ জনসহ ৩১ শিক্ষককে তলব করেছে মাউশি

আগামী ২৮ নভেম্বর (সোমবার) বেসরকারি স্কুল-কলেজ শিক্ষকদের এমপিও আপিল বা পুনর্বিবেচনা কমিটিরবিস্তারিত পড়ুন

মীর খায়রুল দেবহাটা প্রেসক্লাবের সভাপতি নির্বাচিত হওয়ায় স্বপ্নসিঁড়ির সংবর্ধনা

সাতক্ষীরার প্রাক্তন রোভার স্কাউটদের সংগঠন স্বপ্নসিঁড়ির তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক মীরবিস্তারিত পড়ুন

  • সাতক্ষীরায় ফেনসিডিলসহ সাবেক জেলা পরিষদ সদস্য আটক
  • সাতক্ষীরায় প্রাইভেট হাসপাতাল ক্লিনিক ওনার্স এ্যাসোসিয়েশনের অভিষেক
  • সাতক্ষীরা জেলা সাংবাদিক ফোরামের নির্বাচনী তপশীল ঘোষণা উপলক্ষে আলোচনা সভা
  • বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহজাহান সিদ্দিকী বীর বিক্রমের মৃত্যুতে এমপি রবি’র শোক
  • পাটকেলঘাটার বহুল আলোচিত মেহেদী হাসান অবশেষে বিয়ের পিঁড়িতে!
  • জলবায়ু পরিবর্তনে প্রভাবে উপকুলীয় ক্ষতিপূরণের দাবিতে সাতক্ষীরায় মানববন্ধন
  • যশোরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনসভা সফল করতে সাতক্ষীরা থেকে এমপি রবি
  • পরিক্ষিত নেতাকর্মীদের দিয়ে জাতীয় পাটির কমিটি গঠন করতে হবে নেত্রী সাফিয়া
  • কলারোয়া পাইলট হাইস্কুল ও দমদম হাইস্কুল পরিদর্শনে জেলা শিক্ষা অফিসার
  • সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা. কুদরত-ই- খুদা ওএসডি
  • ঢাবির বঙ্গবন্ধু হল ছাত্রলীগের ধর্ম সম্পাদক হলেন সাতক্ষীরার ওয়াকিল
  • সাতক্ষীরায় কোভিড-১৯ এ ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের মাঝে নগদ অর্থ বিতরণ: এমপি রবি
  • error: Content is protected !!