মঙ্গলবার, অক্টোবর ৪, ২০২২

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরা, দেশ ও বিশ্বের সকল সংবাদ, সবার আগে

করোনা

বাংলাদেশে এসে ফিরতে পারছেন না অনেক ভারতীয়, দেশে যাওয়ার আকুতি

কেউ গিয়েছিলেন আত্মীয়ের বাড়ি বেড়াতে। কেউ গিয়েছিলেন আত্মীয়ের বিয়ে বা জন্মদিনের অনুষ্ঠানে। কিন্তু লকডাউনের জেরে তাঁরা আর বাংলাদেশ থেকে ফিরতে পারেননি। অনেকেরই ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে গিয়েছে। হাতে টাকাও নেই। একবেলা-আধবেলা খেয়ে দিন কাটছে অনেকেরই। অপরদিকে আত্মীয়স্বজনের বাড়িতে কতদিন থাকা যায়? সকলেই দেশে ফিরতে চাইছেন। কিন্তু ফেরার কোনও উপায় খুঁজে পাচ্ছেন না।

যেমন বারাসতের দম্পতি রামপ্রসাদ মল্লিক এবং দীপিকা মল্লিক। ৯ মার্চ তাঁরা গিয়েছিলেন বাংলাদেশে এক আত্মীয়ের বাড়ি। ইচ্ছে ছিল ১০-১৫ দিনের মধ্যে ফিরে আসবেন। কিন্তু লকডাউনে জেরে আটকে পড়েছেন তাঁরা।
ওই দম্পতির মেয়ে নাইসা জানালেন, বাড়িতে ফিরতে না পেরে বাবা-মা চিন্তায় অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। দিন কয়েক আগে মা অসুস্থ হয়ে মাথা ঘুরে পড়ে গিয়েছিলেন।
নাইসার কথায়, ‘বাবার সাইনাসের সমস্যা রয়েছে। বাংলাদেশ থেকে ফিরে বাবার ডাক্তার দেখানোর কথা ছিল। কবে বাবা-মা বাড়ি ফিরতে পারবেন, জানি না। দু’মাস আগে ওঁদের ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে গিয়েছে। করোনা পরিস্থিতিতে বাবা-মায়ের জন্য খুবই চিন্তায় রয়েছি।’

গোবরডাঙার বাসিন্দা এক ব্যক্তি বাংলাদেশের মাদারিপুর জেলায় আত্মীয় বাড়িতে গিয়েছিলেন। লকডাউনে আটকে পড়েছেন। কাছে টাকা নেই। পরিচিত এক জনের বাড়িতে বাজার করছেন, রান্নার জন্য আনাজ কাটছেন, জামা কাপড় কাচছেন। দিন কয়েক আগে করোনা পরীক্ষার জন্য লালারস দিয়েছেন। কিন্তু কী ভাবে কবে দেশে ফিরতে পারবেন, তা তিনি জানেন না।

বাংলাদেশে আটকে থাকা ভারতীয়দের মধ্যে বেশির ভাগই অর্থনৈতিক ভাবে পিছিয়ে থাকা মানুষ। বিমানে আসা বা কোয়রান্টিনে থাকার মতো টাকা তাঁদের নেই। তাঁরা যে সব আত্মীয়ের বাড়িতে রয়েছেন, তাঁদেরও আর্থিক অবস্থাও ভাল নয়। আটকে থাকা অনেকেরই বিমানে আসার মতো আর্থিক সামর্থ্য নেই। অনেকেই চাইছেন, সরকার তাঁদের দেশে ফেরাতে পদক্ষেপ করুক।

পেট্রাপোল অভিবাসন দফতরের চিফ অফিসার জয়ন্ত বিশ্বাস বলেন, ‘বাংলাদেশে আটকে পড়া ভারতীয়রা দেশে ফিরতে চাইলে ও-দেশে থাকা ভারতীয় হাইকমিশনারের দফতরে যোগাযোগ করে আবেদন করতে হবে। দেশে ফিরে কোথায় কোয়রান্টিনে থাকবেন, সেটাও জানাতে হবে তাঁদের।’

অভিবাসন দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, এ ভাবে অনেকেই দেশে ফিরে আসছেন। তাঁরা বিমান বা সড়ক পথে ফিরছেন। বাংলাদেশে আটকে পড়া ভারতীয়দের পক্ষে কি হাইকমিশনারের অফিসে যোগাযোগ করা সকলের পক্ষে সম্ভব? অভিবাসন দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, শুধু ঢাকা নয় সিলেট, রঙপুর, খুলনা চট্টগ্রাম-সহ ৬-৭ জায়গায় হাইকমিশনের অফিস আছে। আটকে পড়া ভারতীয়দের সরাসরি যেতে হচ্ছে না। মেলে, ফোনে বা যে কোনও ডিজিটাল মাধ্যমে যোগাযোগ করলেই হবে।

নাইসা এ বিষয়ে বলেন, ‘মাসখানেক আগে ঢাকায় ভারতীয় হাইকমিশনের অফিসে ফর্ম ভর্তি করে বাবা-মায়ের ব্যাপারে আবেদন করেছিলাম। ঠিকানা, পাসপোর্ট ভিসার নথিপত্র চাওয়া হয়েছিল। বলা হয়েছিল, ধীরে ধীরে ভারতীয়দের দেশে পাঠানো হচ্ছে। আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে নেওয়া হবে। কিন্তু এখনও করা হয়নি।’
সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা

একই রকম সংবাদ সমূহ

আঙুলের ছাপ না মিললেও ভোট দিতে পারবেন ভোটাররা

ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট দিতে গিয়ে যেসব ভোটারের আঙুলের ছাপ মেলেবিস্তারিত পড়ুন

আবারও চিনির দাম বাড়ানোর প্রস্তাব

চিনির দাম আবার বাড়াতে বাংলাদেশ ট্রেড অ্যান্ড ট্যারিফ কমিশনকে প্রস্তাব দিয়েছে বাংলাদেশবিস্তারিত পড়ুন

দ্রব্যমূল্যের পাগলাঘোড়া নিয়ন্ত্রণে : পরিকল্পনামন্ত্রী

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান দাবি করেছেন, জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি হলেও সরকারের নানাবিস্তারিত পড়ুন

  • দুর্গাপূজা উপলক্ষে ভারতে ইলিশ যাবে আরও ৩ দিন
  • ‘জঙ্গিরা যতো স্মার্টই হোক না কেন, র‌্যাব আরও স্মার্ট’
  • সেপ্টেম্বরে কমেছে রেমিট্যান্স
  • ১২ কেজি এলপিজির দাম কমেছে ৩৫ টাকা
  • নোবেল পুরস্কারের জন্য মনোনীত বাংলাদেশি রায়ান সাদী
  • পদ্মা সেতুতে ৩ মাসে ২০০ কোটি টাকা টোল আদায়
  • দেশবরণ্যে সাংবাদিক তোয়াব খান আর নেই
  • সাতক্ষীরায় বাড়িতে ফিরলেন সাফজয়ী মাসুরা, সদর ইউএনও’র অভিনন্দন
  • দূর্গাপুজা উপলক্ষে বেনাপোল বন্দরে ৪ দিন আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য বন্ধ
  • কপ ২৭ : ক্ষয়-ক্ষতি প্রসঙ্গ অন্তর্ভুক্ত করার জন্য বাংলাদেশকে জোর অবস্থান নেওয়ার দাবি
  • শেখ হাসিনার রূপকল্পের হাত ধরে হাঁটছে দেশ
  • ড্রাইভিং লাইসেন্স বাড়িতেই পৌঁছে যাবে! বিআরটিএ
  • error: Content is protected !!