সোমবার, জুন ২১, ২০২১

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরা, দেশ ও বিশ্বের সকল সংবাদ, সবার আগে

‘শাসন করা তারই সাজে, সোহাগ করে যে’

পাগলা ঘোড়া ছুটেছে কলারোয়ায় করোনার সংক্রমণ বেড়েছে! সাতক্ষীরা জেলাজুড়ে সম্প্রতি করোনা সংক্রমণের হার উদ্বেগজনক ভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে। ৪বয়সী শিশু থেকে বৃদ্ধ পর্যন্ত নানান বয়সী মানুষের করোনা শনাক্ত হচ্ছে।
করোনার ব্যাপকতায় ইতোমধ্যে কলারোয়া ও তালা উপজেলার অনুষ্ঠেয় ইউপি নির্বাচনের ভোটগ্রহণ স্থগিত করেছে নির্বাচন কমিশন।
এরই মাঝে জেলা প্রশাসনের চলমান লকডাউন আরো এক সপ্তাহ বৃদ্ধি করেছে। লকডাউন বাস্তবায়নে আইনশৃংখলা বাহিনী, প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি ও বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ সরাসরি মাঠে থেকে কাজ করে যাচ্ছেন। নিজেদের সংক্রমনের ঝুঁকি থাকলেও সাধারণ মানুষকে নিরাপদে রাখতে ঐকান্তিক প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন তারা।

তবে লকডাউনে বিপর্যস্থ সাধারণ মানুষ। জনজীবন স্থবির ও নানান বিড়ম্বনার মধ্যে পড়ছে। পেট চালাতে হিমশিম খাচ্ছে অনেকে। প্রয়োজনের তাদিগে লকডাউনও পরিপূর্ণরূপে অনেকে মানতেও পারছেন না।

আবার করোনা শনাক্ত হওয়া ব্যক্তিদের বাড়ি নিয়ম অনুযায়ী প্রশাসন লকডাউন ঘোষনা করছে। সেই বাড়িতে লকডাউন লেখা ব্যানার টাঙিয়ে দিয়ে আসছে। কিন্তু সমস্যা সেখান থেকেই। লকডাউন হওয়া বাড়িতে কেউ যাচ্ছেন না, বা সেই বাড়ি থেকে কেউ বাহিরেও আসছেন না। ফলে ওই বাড়ির খাদ্য-খাবারসহ সকল প্রয়োজন সাময়িক স্থবির হয়ে যাচ্ছে। পরিচিতজনেরা বা সংশ্লিষ্টরা উদ্যোগি হয়ে কেউ কিছু পাঠালে সেটা পাচ্ছে নতুবা নয়। আবার যারা চাইতে পারছেন তারা কেউ পাচ্ছেন, যারা চাইতে পারছেন না তাদের অনেকেই পাচ্ছেন না। তাছাড়া এতো বেশি সংখ্যক শনাক্ত হচ্ছেন যে, এতো পরিবার লকডাউন করার ফলে হিমশিম খেতে হচ্ছে গোটা প্রশাসনকেও।

এরূপ বাস্তবতার প্রেক্ষিতে নিজের ফেসবুকে স্টাটাস দিয়েছেন কলারোয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামীলীগের কার্যনির্বাহী সদস্য আমিনুল ইসলাম লাল্টু।

হুবুহু সেটা তুলে ধরা হলো-

আমার প্রিয় কলারোয়া উপজেলা বাসী সালাম ও শুভেচ্ছা নিবেন। প্রায়ই বাড়িতে বা এক পরিবারের সবার জ্বর। প্রতিদিন পাগলা ঘোড়ার মতো ছুটে চলছে, আক্রান্তের হার প্রায় ৬০%। আমার ধারণা সাধারণ মানুষ লজ্জা, ভয় ও লকডাউনের যাঁতাকলে কেউ পড়তে চায় না। যে কারনে কেউ করোনা টেষ্ট করতে আগ্রহ দেখাচ্ছে না। লকডাউন করেই আমাদের দায়িত্ব শেষ। তার চিকিৎসা, খাওয়া দাওয়া ও পরিবারের অন্য সদস্যদের শারীরিক কি অবস্থা দেখা’র কেউ নেই। লকডাউন মানে সমাজে বা পাড়ায় একঘরে হয়ে থাকা। কেউই তার সাহায্য তো দুরের কথা নাক টিপে তার বাড়ি পার হচ্ছে। এ কথা লজ্জায় অন্যকে বলতে পারে না। আমরা মাহেন্দ্র, ইজিবাইক, ভ্যান মটরভ্যান, রাস্তায় উঠা বন্ধ করে দিয়েছি। তারা প্রশ্ন করে? আমরা গরীব কিস্তিতে গাড়ি নিয়ে চালিয়ে আমাদের পরিবার পরিজন ও বাবা মার ঔষধ কিনতে হয়। আমরা কি ভাবে চলবো? আমি মিথ্যা না বলে আমরা তোমাদের সহযোগিতা করবো।দুঃখের বিষয়,পরিষদ বলেন আর প্রশাসন বলেন আমরা শ্রমিক,লকডাউন পরিবার, ছিন্নমূল মানুষের জন্য কিছু করতে পারছি না। শেষ কথা “শাসন করা তারই সাজে,সোহাগ করে যে”।
তার পরেও আমি উপজেলা বাসীর কাছে অনুরোধ করবো নিজে ও পরিবারের সুরক্ষিত রাখতে নিরাপদে থাকুন, সুস্থ থাকুন। মহান আল্লাহ আমাদের নিশ্চয়ই সহায় হবেন ইনশাআল্লাহ।
(আমার ব্যক্তিগত মতামত)

একই রকম সংবাদ সমূহ

কলারোয়ায় শিক্ষক-কর্মচারী কল্যান সমিতির আয়োজনে অবসর সুবিধার চেক প্রদান

কলারোয়ায় মাধ্যমিক শিক্ষক কর্মচারী কল্যাণ ও সমবায় সমিতি লিঃ আয়োজনে অবসর পরবর্তীবিস্তারিত পড়ুন

কলারোয়ায় ফোর মাডারের ঘটনায় বেঁচে যাওয়া শিশু ‘মারিয়া’র নামে ফাউন্ডেশন

কলারোয়ায় চাঞ্চল্যকর ফোর মাডারের ঘটনায় বেঁচে যাওয়া ৪ মাসের শিশুর মারিয়ার নামেবিস্তারিত পড়ুন

কলারোয়ায় আম পাড়তে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে যুবকের মৃত্যু

কলারোয়ায় ভিজে জামলি (কোল) দিয়ে আম পাড়তে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে জাহিদুল ইসলাম(২৩) নামেবিস্তারিত পড়ুন

  • কলারোয়ায় চলমান লকডাউনে কর্মহীন হয়ে পড়া মানুষের মাঝে সবজি বিতরণ
  • কলারোয়ায় শেখ হাসিনার বহরে হামলা : স্থগিতই থাকলো ৭ জনের জামিন আদেশ
  • ‘আত্মসমর্থন নিশ্চিতপূর্বক অনিয়ম-দুর্নীতির খবর তুলে ধরতে হবে’: কলারোয়া উপজেলা চেয়ারম্যান
  • কলারোয়ায় ঘর পেলো আরো ২০ জন ভূমিহীন
  • কলারোয়ায় আরো ৮ ব্যক্তির করোনা শনাক্ত
  • কলারোয়ায় সেবা’র দাফন-সৎকার টিমের জন্য পিপিই প্রদান
  • কলারোয়ায় ২য় পর্যায়ে ভূমিহীন ও গৃহহীন ১৫ পরিবারের মাঝে জমিসহ ঘর প্রদান
  • কলারোয়ায় লকডাউন বাস্তবায়নে পুলিশ প্রশাসন কঠোর অবস্থানে, কয়েক জনকে জরিমানা
  • কলারোয়ায় আবারও ৪ নারীসহ ৬ জনের করোনা পজিটিভ
  • কলারোয়ায় করোনায় দুই ব্যক্তির মৃত্যু || শনাক্ত ৬
  • সাতক্ষীরায় দ্বিতীয় দফায় করোনা টিকা প্রদান কার্যক্রম শুরু
  • সাতক্ষীরায় একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড, শনাক্তের হার ৫০ শতাংশ
  • error: Content is protected !!