সোমবার, এপ্রিল ১২, ২০২১

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরা, দেশ ও বিশ্বের সকল সংবাদ, সবার আগে

অনাবৃষ্টির মধ্যে নানা শঙ্কায় শুরু হয়েছে সুন্দরবনে মধু আহরণ মৌসুম

সুন্দরবনের মধু আহরণ মৌসুম শুরু হয়েছে। চলতি বছর অনাবৃষ্টির মধ্যে নানা শঙ্কায় শুরু হয়েছে মধু আহরণ। ১ এপ্রিল থেকে শুরু হয়ে চলবে ১৫ জুন পর্যন্ত। পূর্ব ও পশ্চিম বনবিভাগের দু’টি রেঞ্জ থেকে এ লক্ষ্যে মৌয়ালদের মধ্যে পাস-পারমিট দেওয়া শুরু হয়েছে।

বনবিভাগের পক্ষে চলতি মৌসুমে ২ হাজার ৪৫০ কুইন্টাল মধু ও ৭১৫ কুইন্টাল মোম আহরণের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হলেও বৃষ্টিহীনতায় লক্ষ্যমাত্রা অর্জন নিয়ে আশংকা প্রকাশ করেছেন মৌয়ালদের পাশাপাশি বনসংশি¬ষ্টরা। বৃষ্টিহীনতায় নানা আশংকাকে সামনে রেখে মৌয়ালরা বাপ-দাদার পেশা আঁকড়ে ছুটছেন সুন্দরবনে মধুর খোঁজে।

বাগেরহাট পুর্ব সুন্দরবন বিভাগের দেয়া তথ্যমতে জানা যায়, এ বছর ১ হাজার ৪০০ কুইন্টাল মধু এবং ৪৫০ কুইন্টাল মোম আহরণের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর আগে ২০১৯-২০ অর্থবছরে লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৮০০ কুইন্টাল মধু এবং ৩০০ কুইন্টাল মোম। ওই বছর আহরণ হয়েছিল ১ হাজার ২২০ কুইন্টাল মধু ও ৩৬৬ কুইন্টাল মোম।

পুর্ব বনবিভাগের শরণখোলা রেঞ্জের সহকারী বনসংরক্ষক (এসিএফ) মো. জয়নাল আবেদীন জানান, সংশি¬ষ্ট বন অফিস থেকে ১৪ দিনের পাস-পারমিট নিয়ে মৌয়ালরা বনে প্রবেশ করছে। এর আগে তাদের অনুর্ধ্ব ২০০ মণ ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন বৈধ বিএলসি ধারী নৌকার মালিকানাসহ নানা শর্ত বা নির্দেশনা রয়েছে।

নির্দেশনা অমান্যকারীর বিরুদ্ধে বন আইনে শাস্তির বিধান রেখে ৯ টি নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে মৌয়ালদের। এর মধ্যে সংরক্ষিত অভয়ারণ্য এলাকা থেকে মধু আহরণ করা যাবে না। মৌয়ালদের কেউ নিষিদ্ধ বনাঞ্চলে প্রবেশ করলে তাৎক্ষণিক তার পারমিট বাতিল করা হবে। এ ছাড়া মধু আহরণে মৌমাছি তাড়াতে অগ্নিকু- মশাল বা অনুরূপ কোনো দাহ্য পদার্থ এবং রাসায়নিক দ্রব্যাদি ব্যবহার করতে পারবেন না। মৌয়াল ও বনসংশি¬ষ্টরা জানান, মৌসুমের শুরুতে খলিশা ফুলের মধু আসে। এর পর আসে গরাণ এবং সর্বশেষ আসে কেওড়া ফুলের মধু। খলিশার মধু সবচেয়ে দামি।

সুন্দরবনে মৌসুমে মধু কম-বেশি হওয়া অনেকটা বৃষ্টির ওপর নির্ভর করে। চলতি বছর এ অঞ্চলে কোনো বৃষ্টিপাত হয়নি। আর বৃষ্টি না হলে ফুলে মধু জমে না। ফুল শুকিয়ে ঝরে যায়। তাই এবছর মধু কম হওয়ার আশঙ্কা করছেন মৌয়ালরা।

পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মুহাম্মদ বেলায়েত হোসেন বলেন, এ বছর সুন্দরবনে ১ হাজার ৪শত কুইন্টাল মধু সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে এবং এ খাত থেকে বনবিভাগ ১০ লাখ টাকা রাজস্ব আয় করবে। গত ২০১৯-২০২০ অর্থ বছরে সুন্দরবনে এক হাজার দুইশত বিশ কুইন্টাল মধু সংগ্রহ এবং ৯ লাখ টাকা রাজস্ব আয় হয়েছিলো বলে ডিএফও জানান।

সুন্দরবনের পশ্চিম বনবিভাগ সাতক্ষীরা রেঞ্জে ১ এপ্রিল বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় সাতক্ষীরা সহকারী বনসংরক্ষক (এসিএফ) এম এম হাসান মধু আহরণ মৌসুমের উদ্বোধন করেন। আগামী ১৫ই জুন আড়াই মাসব্যাপী মৌয়ালরা সুন্দরবনে নির্দিষ্ট এলাকায় মধু আহরণ করতে পারবেন।

তিনি জানান, চলতি বছর মধু আহরণের লক্ষ্যমাত্রা ১ হাজার ৫০ কুইন্টাল এবং মোম ২৬৫ কুইন্টাল নির্ধারিত হয়েছে। প্রতি কুইন্টাল মধু আহরণের জন্য ৭৫০ টাকা এবং প্রতি কুইন্টাল মোম ১ হাজার টাকা হারে রাজস্ব নির্ধারণ করা হয়েছে। পশ্চিম সুন্দরবন সাতক্ষীরা রেঞ্জের ৪টি স্টেশন বুড়িগোয়ালিনী, কোবাদক, কদমতলা ও কৈখালী ফরেস্ট স্টেশন থেকে পাস পারমিট দেওয়া শুরু হযেছে। ইতিমধ্যে নির্বিঘেœ মধু আহরণে মৌয়ালদের জন্য প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

সুন্দরবন পশ্চিম বন বিভাগীয় কর্মকর্তা ড. আবু নাছের মোহসিন হোসেন জানান, ফরেস্ট স্টেশন থেকে মৌয়ালীদের ১ এপ্রিল থেকে পাস পারমিট দেওয়া শুরু হয়েছে ১৫ জুন পর্যন্ত মধু আহরণ চলবে। মৌয়ালদের সঠিক নিয়ম মেনে মধু আহরণ করার দিক নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। তবে সব থেকে দুটি বিষয়ের উপর অধিক গুরুত্ব দেওয়ার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। চাক থেকে মধু আহরণ করার সময় মৌচাকের কিছু অংশ রেখে চাক কাটতে বলা হয়েছে।

সম্পূর্ণ চাক কোন ভাবে কাটা যাবে না। তাছাড়া মৌয়ালদের একটি দল যখন বনে মৌ চাক খুঁজতে থাকে তখন তাদের চোখ গাছের দিকে থাকে এ সময় বাঘের আক্রমণ থেকে সতর্ক থাকতে দলের দুই জনকে চারিদিকে নজরদারি রাখতে বলা হয়েছে। নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রায় মধু আহরণ হলে প্রায় ৮ লাখ টাকা রাজস্ব আদায় হবে বলে তিনি জানিয়েছেন।

মধূ আহরণকারী মৌয়ালদের সাথে কথা বলে জানাযায়, প্রতিটি নৌকা প্রস্তুত করতে প্রায় ৫০ হাজার টাকা খরচ হবে। প্রতিটি নৌকায় ১০/১২ জন মৌয়াল থাকেন। প্রতি জন মৌয়ালের মৌসুমে খরচ হয় ১২/১৫ হাজার টাকা। গত বছর একেক জন মৌয়াল প্রায় ২ মণ করে মধু পান। প্রতিমণ মধূ ২৫ হাজার টাকায় বিক্রি করেন। তবে এবার বৃষ্টি নেই। তাই মধু কেমন হবে তা নিয়ে রীতিমত আশংকার মধ্যেই মধূ আহরণে যাচ্ছেন তারা।

অধিকাংশ মৌয়ালদের নিজস্ব পুঁজি না থাকায় মহাজনদের কাছ থেকে দাদন নিয়েই বনে যান তারা। তবে বৃষ্টিহিনতায় অনেক মহাজন এবার পুঁজি বিনিয়োগে ঝুঁকি নেননি। তাই অনেকেই রয়েছেন নানামুখী সংকটে।

একই রকম সংবাদ সমূহ

শ্যামনগরে সড়ক দূর্ঘটনায় ভ্যান চালকের মৃত্যু

সাতক্ষীরার শ্যামনগরে সড়ক দূর্ঘটনায় মাহাবুব শেখ (২৫) নামে এক ভ্যান চালকের মৃত্যুবিস্তারিত পড়ুন

সাতক্ষীরায় সম্পত্তি রক্ষার দাবিতে এক ব্যক্তির সংবাদ সম্মেলন

সাতক্ষীরার শ্যামনগরে দীর্ঘদিনের ভোগদখলীয় সম্পত্তি অবৈধভাবে দখল করতে না পেরে ষড়যন্ত্র মূলকভাবেবিস্তারিত পড়ুন

শ্যামনগরে কিশোরীকে ধর্মান্তরিত করে বিয়ে করায় প্রধান শিক্ষক বরখাস্ত

সাতক্ষীরায় এক কিশোরীকে (১৬) ধর্মান্তরিত করে বিয়ে করার অভিযোগে শ্যামনগর উপজেলার নুরনগরবিস্তারিত পড়ুন

  • দায়িত্বের আড়াই বছর পূর্তিতে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসকের খোলা চিঠি
  • শ্যামনগরে খেলার সময় বিদ্যুতের তার গায়ে পড়ে শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু
  • শ্যামনগরে সরকারি গাছ মারতে গোড়ায় কেমিক্যাল মিশ্রিত পানি দিল দুর্বৃত্তরা
  • সাতক্ষীরা রেঞ্জের সুন্দরবনে বাঘের আক্রমণে এক মৌয়াল আহত
  • উপকূলের জানমালের নিরাপত্তা ও জীবনমান উন্নয়নে ১০ দফা দাবি
  • শ্যামনগরে আদালতের নির্দেশে ৭ মাস পর কবর থেকে মৃতদেহ উত্তোলন
  • শ্যামনগরের ভেটখালীতে বিয়ের আশ্বাসে শারীরিক সম্পর্ক
  • করোনা সতর্কতায় বিভিন্ন নির্দেশনা দিয়ে সাতক্ষীরা জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের জরুরি গণবিজ্ঞপ্তি
  • শ্যামনগরে বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে প্লাবিত, ঝুঁকিপূর্ণ ৪ ইউনিয়ন
  • শ্যামনগরের পদ্মপুকুরের চাউলখোলায় পাউবো বাঁধে ভয়াবহ ভাঙ্গন
  • শ্যামনগরের যশোরেশ্বরী কালীমন্দিরে পূজা দিলেন নরেন্দ্র মোদি
  • error: Content is protected !!